1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ট্রাম্প, পুটিন নিয়ে কথা বললেন ওবামা, ম্যার্কেল

মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে শেষ ইউরোপ সফরে এখন জার্মানির বার্লিনে আছেন বারাক ওবামা৷ বুধবার তিনি জার্মান রাজধানীতে পৌঁছেছেন৷ রাতের খাবারে তাঁর সঙ্গী ছিলেন জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷

অনানুষ্ঠানিক এই ডিনারে যুক্তরাষ্ট্রের আগামী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, রাশিয়ার বর্তমান প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুটিন ও সিরিয়া সংকট নিয়ে আলোচনা হয়ে থাকতে পারে বলে সংবাদমাধ্যমগুলো জানাচ্ছে৷

তবে ম্যার্কেল এবং ওবামার মধ্যে আনুষ্ঠানিক বৈঠক হবে আজ বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় সোয়া তিনটায়৷ এরপর পাঁচটায় সংবাদ সম্মেলন করার কথা রয়েছে৷ আগামীকাল শুক্রবার এই দুই নেতার সঙ্গে আলোচনায় যোগ দেবেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী, ফরাসি প্রেসিডেন্ট ও ইটালির প্রধানমন্ত্রী৷

ইউরোপীয় নেতাদের সঙ্গে আলোচনায় রাশিয়ার উপর কার্যকর থাকা নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়ানো নিয়ে কথা হতে পারে৷ ইউক্রেনের সঙ্গে সমস্যায় জড়িয়ে পড়ার কারণে ২০১৪ সালে রাশিয়ার উপর ঐ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল৷ আগামী জানুয়ারি মাসের শেষে নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা৷ সিরিয়ায় বোমা হামলার কারণে নতুন করে রাশিয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা যায় কিনা, তা নিয়েও আলোচনা হতে পারে৷

ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর ইউরোপীয় নেতাদের মধ্যে কিছু আশংকা তৈরি হয়েছে৷ ট্রাম্প ইতিমধ্যে ওবামার সঙ্গে বৈঠক করেছেন৷ সেই অভিজ্ঞতা থেকে ওবামার কাছ থেকে ট্রাম্পের ব্যাপারে জানতে চাইবেন ইউরোপীয় নেতারা৷

‘মুক্ত বিশ্বের' নতুন নেতা ম্যার্কেল?

বার্তা সংস্থা এএফপি এই শিরোনাম দিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে৷ ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর পশ্চিমা বিশ্বের মূল্যবোধ রক্ষার দায়িত্ব এখন ম্যার্কেলের ঘাড়ে চাপছে বলে অনেক বিশ্লেষক মনে করছেন৷ ইতিহাসবিদ ও কলামিস্ট টিমোথি গার্টন গার্ডিয়ানে প্রকাশিত এক সম্পাদকীয়তে লিখেছেন, ‘‘আমি বলতে আনন্দ বোধ করছি যে, মুক্ত বিশ্বের নেতা এখন আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷''

জার্মানির বামপন্থি দৈনিক টাৎস লিখেছে, ‘‘ম্যার্কেল....হঠাৎ করেই মুক্ত, গণতান্ত্রিক আর উদারপন্থি বিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নেতা হয়ে উঠেছেন৷''

প্রেসিডেন্ট হিসেবে তাঁর দ্বিতীয় মেয়াদ শেষের আগে ইউরোপ সফরে এসে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ইংল্যান্ডে না গিয়ে জার্মানিতে আসার ঘটনাকেও একটি সংকেত হিসেবে দেখছে এএফপি৷ এই ঘটনাকে ‘ম্যার্কেলের কাছে ব্যাটন হস্তান্তর' বলে মনে করছে বার্তা সংস্থাটি৷ ইউরোপ সফরের আগে এক সংবাদ সম্মেলনে ওবামা ম্যার্কেলকে গত আট বছরে (সম্ভবত) তাঁর সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ আন্তর্জাতিক সহযোগী  বলে উল্লেখ করেছেন৷

ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর ম্যার্কেলের দেয়া বক্তব্যের প্রশংসা হচ্ছে অনেক৷ ম্যার্কেল বলেছিলেন, ‘‘(সব মানুষের) জন্ম, গাত্রবর্ণ, ধর্ম, লিঙ্গ, যৌন প্রবণতা বা রাজনৈতিক মতামত নির্বিশেষে গণতন্ত্র, স্বাধীনতা, আইনের শাসন ও মানবমর্যাদার মূল্যবোধের প্রতি শ্রদ্ধা জার্মানি ও অ্যামেরিকার মধ্যে যোগসূত্র৷ এই মূল্যবোধের ভিত্তিতে আমি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী প্রেসিডেন্টকে ঘনিষ্ঠ সহযোগিতার প্রস্তাব দিচ্ছি৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে অংশীদারিত্ব জার্মানির বিদেশনীতির ভিত্তি ও ভবিষ্যতেও তাই থাকবে৷''

‘‘এই বক্তব্যের মাধ্যমে ম্যার্কেল বাস্তব বিশ্বের নেতার দায়িত্ব গ্রহণে আগ্রহ দেখালেন এবং ট্রাম্পকে মূল্যবোধের বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দিলেন'', বলে মনে করছে জার্মান দৈনিক ডি ভেল্ট৷

জেডএইচ/ডিজি (রয়টার্স, এএফপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়