1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভাইরাল ভিডিও

ট্রাম্পের ভাষায় ট্রাম্পকে জব্দ!

নেদারল্যান্ডসের এক কমেডিয়ান খুব যত্ন করে একটি ভিডিও তৈরি করেছেন৷ শিরোনাম, ‘‘ট্রাম্পকে তাঁর ভাষাতেই স্বাগত জানায় নেদারল্যান্ডস৷'' মাত্র তিন দিনে শুধু ইউটিউবেই ভিডিওটি দেখা হয়েছে সাড়ে ৯৫ লক্ষ বার!

অন্য সব মাধ্যমেও যে তা অসংখ্যবার দেখা হয়েছে তাতে কোনো সন্দেহ নেই৷ নেদারল্যান্ডসে লেখক, কমেডিয়ান এবং টেলিভিশন উপস্থাপক আরিয়েন লুবাচ ভীষণ জনপ্রিয়৷ তার ওপর ভিডিওতে যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রেসিডেন্টকে নিয়ে তিনি যেভাবে ঠাট্টা-মশকরা করেছেন তা একেবারেই ব্যতিক্রমী৷ কোথাও একটিও আপত্তিকর শব্দ প্রয়োগ করেননি, কৌতুকের নামে ভাঁড়ামোও করেননি একদম৷ ট্রাম্পকে তাঁর বিতর্কিত বক্তব্য এবং সিদ্ধান্তের জন্য কটাক্ষ করতে গিয়ে স্থূল কৌতুক না করে যা করেছেন তাতে রাজনৈতিক প্রজ্ঞার পরিচয়ই রেখেছেন কমেডিয়ান হিসেবেই বেশি জনপ্রিয় আরিয়েন লুবাচ৷

টেলিভিশনে ‘সনডাগ মেট লুবাচ' বা ‘সানডে উইথ লুবাচ' নামের একটি অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন আরিয়েন লুবাচ৷ সেই অনুষ্ঠানের জন্য তৈরি এ ভিডিওতে মূলত ট্রাম্প যে উগ্র জাতীয়তাবাদকে পুঁজি করে ক্ষমতায় এসেছেন সেই বিষয়টিকেই নানাভাবে কটাক্ষ করা হয়েছে৷ ট্রাম্প বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল গড়া হবে৷ ভিডিওতে এ সিদ্ধান্তকে হাস্যকর প্রমাণ করতে গিয়ে দাবি করা হয়, নেদারল্যান্ডসও মেক্সিকোর পানি থেকে নিজেকে বাঁচাতে (সাগরে) দেয়াল (বাঁধ) গড়েছে৷ ট্রাম্প যে অভিষেক ভাষণে বলেছেন, ‘‘আজ থেকে অ্যামেরিকা প্রথম'', সে কথার জবাবে ভিডিওতে দাবি করা হয়, ইউরোপের খুব ছোট দেশ হলেও নেদারল্যান্ডসও কিন্তু খুব একটা কম নয়৷

ডাচ ভাষাকে ইউরোপের সেরা দাবি করে ভিডিওতে বলা হয়, ‘‘আমরা ডাচ ভাষায় কথা বলি৷ এটা ইউরোপের সেরা ভাষা৷ সব সেরা শব্দই আমাদের ভাষায় আছে৷ অন্য কোনো ভাষায় তা নেই৷''

নেদারল্যান্ডস কেন পর্যটকদের কাছে এত আকর্ষণীয়? কারণ নাকি সে দেশে টাট্টু ঘোড়ার পার্ক আছে৷ এমন মিনিয়েচার শহরও নাকি আছে যা শুধু দূর থেকেই দেখা ভালো৷

আরো অনেক অদ্ভুত অদ্ভুত জিনিসই নাকি আছে নেদারল্যান্ডসে৷ ভিডিওতে সেরকমই দাবি করা হয়েছে৷ সবচেয়ে জোরালো যে দাবি তা হলো, ‘‘মি. ট্রাম্প, যুক্তরাষ্ট্রে যেমন ট্রাম্প টাওয়ার আছে, তেমনি আমাদের আছে লি টাওয়ার্স৷''

মজার ব্যাপার হলো, লি টাওয়ার্স কিন্তু একজন শিল্পী, তিনি টাওয়ার নন বা তাঁর নামেও কোনো টাওয়ার নেই৷

ভিডিওর শেষে ট্রাম্পকে একটা অনুরোধ করা হয়েছে৷ অনুরোধটা হলো, ট্রাম্প যদি যুক্তরাষ্ট্রকে প্রথম স্থানে রাখেন, অর্থাৎ বিশ্বের সব দেশের সেরা ভাবেন, তাহলে নেদারল্যান্ডসকে দ্বিতীয় স্থানটা দিতে যেন কিছুতেই ভুল না করেন৷

এসিবি/ডিজি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও