1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র

ট্রাম্পের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হচ্ছেন এক্সন প্রধান টিলারসন

যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে বিশ্বের সবচেয়ে বড় জ্বালানি কোম্পানি ‘এক্সন মোবিল’-এর প্রধান নির্বাহী রেক্স টিলারসনের নাম মঙ্গলবার ঘোষণা করেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প৷

এক্সন মোবিলের প্রধান নির্বাহী হিসেবে বিশ্বের অনেক দেশের সঙ্গেই যোগাযোগ আছে টিলারসনের৷ বিশেষ করে রাশিয়া তথা পুটিনের সঙ্গে তাঁর ঘনিষ্ঠতা রয়েছে৷ জ্বালানি খাতে সহযোগিতার স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৩ সালে তাঁকে রাশিয়া সরকারের ‘অর্ডার অফ ফ্রেন্ডশিপ’ খেতাব দেয়া হয়৷

রাশিয়ার সঙ্গে এই সম্পর্কের কারণেই টিলারসনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়া নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করছেন অনেকে৷ এর মধ্যে রিপাললিকান দলের রাজনীতিকরাও আছেন৷ তবে ট্রাম্পের ট্রানজিশন দলের এক কর্মকর্তা বলছেন, রিপাবলিকান সরকারের সাবেক দু'জন পররাষ্ট্রমন্ত্রী – জেমস বেকার ও কন্ডোলিৎসা রাইস এবং সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী রবার্ট গেটস টিলারসনের ব্যাপারে সবুজ সংকেত দিয়েছেন৷

রাশিয়া নির্বাচন প্রভাবিত করেছে?

মার্কিন নির্বাচনে ট্রাম্পের জয়লাভের ব্যাপারে রাশিয়া সহায়তা করেছে বলে খবর প্রকাশিত হয়েছে৷ ওয়াশিংটন পোস্টে সপ্তাহান্তে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন বলছে, রুশ হ্যাকাররা শুধু ডেমোক্র্যাটিক দলের সার্ভারই নয়, রিপাবলিকান দলের সার্ভারেও প্রবেশ করেছে৷ ফলে মার্কিন গোয়েন্দারা এখন দাবি করছেন, রাশিয়া শুধু হিলারি ক্লিন্টন আর মার্কিন গণতন্ত্রেরই ক্ষতি করতে চায়নি, বরং তথ্যপ্রমাণ বলছে, সাইবার হামলার মাধ্যমে রাশিয়া ট্রাম্পের জয়ে সহায়তা করেছে৷

এই অভিযোগ নিয়ে তদন্তের ব্যাপারে সমর্থন জানিয়েছেন কয়েকজন শীর্ষস্থানীয় সেনেটর৷ তাঁদের মধ্যে রিপাবলিকানরাও আছেন৷ তবে ট্রাম্প এই অভিযোগকে ‘হাস্যকর’ বলে প্রত্যাখ্যান করেছেন৷ এক টুইটে তিনি বলেছেন, ‘‘আপনি চিন্তা করতে পারেন, নির্বাচনের ফল যদি উল্টো হত, আর আমরা রাশিয়া/সিআইএ কার্ড খেলতে চাইতাম তাহলে তাকে ষড়যন্ত্র বলা হতো৷’’

রাশিয়াও নির্বাচনকে প্রভাবিত করার মার্কিন অভিযোগকে ‘একেবারে ভিত্তিহীন’ বলেছে৷ দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র এই অভিযোগকে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর মধ্যকার দ্বন্দ্ব বলে আখ্যায়িত করেছেন৷

জেডএইচ/ডিজি (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন