1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সংবাদভাষ্য

ট্রাম্পের টুইট বিরক্তিকর, এনআরএ-র ভিডিও ভয়াবহ

সিএনএনকে আক্রমণ করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের করা সাম্প্রতিক টুইটের চেয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় গান লবি গ্রুপ এনআরএ-র প্রকাশ করা ভিডিওটি বেশি অস্বস্তিকর, বলে মনে করেন ডয়চে ভেলের মিশায়েল ক্নিগে৷

রেসলিং রিংয়ের বাইরে দাঁড়িয়ে থাকা স্যুট পরা এক ব্যক্তিকে ডোনাল্ড ট্রাম্প মাটিতে ফেলে দিয়ে মারছেন, এমন দৃশ্য দেখা গেছে একটি টুইটে৷ মার্কিন প্রেসিডেন্ট স্বয়ং তাঁর ব্যক্তিগত টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে এটি টুইট করেছেন৷ ট্রাম্প যাঁকে মারছেন তাঁর মাথায় সিএনএন-এর লোগো লাগানো ছিল৷ এই ভিডিওর মাধ্যমে যে বার্তা দেয়া হয়েছে তা অমার্জিত৷

এর মাধ্যমে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যেন আক্ষরিক অর্থেই সিএনএন, নিউ ইয়র্ক টাইমস কিংবা ওয়াশিংটন টাইমসের মতো প্রচলিত সংবাদমাধ্যমের বিরোধিতা করলেন৷ এসব গণমাধ্যমকে ট্রাম্প ও তাঁর সমর্থকরা প্রায়ই ‘ভুয়া গণমাধ্যম' বলে আখ্যায়িত করে থাকেন৷

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রচারণার শুরু থেকেই ট্রাম্প যেসব গণমাধ্যমকে তাঁর নিজের পক্ষের নয় বলে মনে করেছেন, তাদের বিরুদ্ধে চড়াও হয়েছিলেন৷

প্রেসিডেন্টের জন্য বেমানান

ট্রাম্প যে ভিডিওটি টুইট করেছেন তা শুধু বিরক্তিকরই নয়, অশোভনও বটে৷ অবশ্য ট্রাম্পের টুইট যেভাবে বিশ্ব গণমাধ্যমে খবর তৈরি করে তা বিবেচনায় ধরলে সাম্প্রতিক টুইটটিতে অবাক হওয়ার কিছু নেই৷ ট্রাম্পের নতুন আরেকটি টুইট আসার পর হয়ত ভিডিও সংশ্লিষ্ট টুইটটি নিয়ে আলোচনা মিইয়ে যাবে৷

স্পষ্ট করে বললে বলতে হয়, নিজের অপছন্দের মিডিয়া, রাজনীতিবিদ বা বিরোধী কাউকে হয়রানি বা আক্রমণ করতে ট্রাম্পের টুইটার ব্যবহার নিন্দনীয় একটি কাজ৷

আলোচনার মোড় ঘুরিয়ে দেয়া

অনেক বিশেষজ্ঞ মনে করেন, ট্রাম্পের টুইটার ব্যবহার একটি কৌশলও হতে পারে৷ এর মাধ্যমে তিনি হয়ত নাগরিক ও গণমাধ্যমগুলো যে বিষয় নিয়ে আলোচনা করত, তা থেকে তাদের নজর অন্যদিকে ঘুরিয়ে দি  চান৷ যেমন, এরকম একটি ভিডিও টুইট করার কারণে স্বাস্থ্যসেবা সংস্কার নিয়ে রিপাবলিকানদের চেষ্টায় যে স্থবিরতা নেমে এসেছে, তার চেয়ে টুইট নিয়েই বেশি আলোচনা হচ্ছে৷ অথচ স্বাস্থ্যসেবা আলোচনার সঙ্গে লক্ষ লক্ষ মার্কিন নাগরিকের ভালমন্দ জড়িত৷

Michael Knigge Kommentarbild App

মিশায়েল ক্নিগে, ডয়চে ভেলে

ট্রাম্পের টুইটের চেয়েও বেশি অস্বস্তির হচ্ছে আরেকটি সাম্প্রতিক ভিডিও৷ ট্রাম্পের কট্টর সমর্থক সংগঠন ‘ন্যাশনাল রাইফেল অ্যাসোসিয়েশন' বা এনআরএ ভিডিওটি তৈরি করেছে৷ এতে দেখা যাচ্ছে, সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সমর্থক ও ট্রাম্প বিরোধীদের কারণে নাকি দেশের অবস্থা হুমকির মুখে পড়েছে, বলে জানাচ্ছেন এক নারী৷ ‘‘এসব বন্ধ করার, আমাদের দেশকে বাঁচানোর একমাত্র উপায় হচ্ছে সত্য দিয়ে এসব মিথ্যা ঢাকা'', ভিডিওতে ঐ নারীকে বলতে শোনা গেছে৷

জুন মাসে ফেসবুকে ভিডিওটি শেয়ার করার পর ভাইরাল হয়েছে৷ সমালোচকরা বলছেন, এর মাধ্যমে প্রেসিডেন্টের বিরোধিতাকারীদের বিরুদ্ধে প্রত্যক্ষভাবে সহিংসতা উসকে দেয়া হচ্ছে৷

ট্রাম্পের টুইটের চেয়ে ইতিমধ্যেই দারুণভাবে বিভক্ত একটি দেশে এনআরএ-র উসকে দেয়া ভিডিও প্রকাশ যুক্তরাষ্ট্রের বিদ্যমান পরিস্থিতিকে আরও খারাপের দিকে নিয়ে যেতে পারে৷

মিশায়েল ক্নিগে/জেডএইচ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়