1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

ট্রাম্পের জয়ের মতো ঘটনা কি জার্মানিতেও ঘটতে পারে?

জার্মান রাজনীতির এমন কিছু গুণগত বৈশিষ্ট্য আছে, যাদের কল্যাণে এ দেশে ডোনাল্ড ট্রাম্পের মতো কোনো রাজনীতিকের উদয় ও উত্থান সম্ভব নয়, বলে মনে করেন ডয়চে ভেলের জেফারসন চেজ, যিনি নিজে একজন প্রবাসী মার্কিন নাগরিক৷

চেজ লিখছেন: ডোনাল্ড ট্রাম্প অপ্রত্যাশিতভাবে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হবার পর জার্মান বন্ধুবান্ধবদের কাছে আমার মতামতের কদর বেড়ে গিয়েছিল, কেননা আমি জার্মানি প্রবাসী মার্কিন নাগরিক৷ ট্রাম্পের মতো কেউ যে ক্ষমতার সর্বোচ্চ শিখরে উঠতে পারেন, জার্মানদের কাছে তা একটা দুঃস্বপ্নের মতো৷ কাজেই আমাকে যে দু'টো প্রশ্ন বারংবার শুনতে হয়েছে, সে দু'টি হলো – ‘‘অ্যামেরিকায় এটা ঘটল কিভাবে?'' আর ‘‘এটা কি এখানেও ঘটতে পারে?''

বাকি ইউরোপের মতো জার্মানিতেও পপুলিস্ট বা লোকানুবর্তী দক্ষিণপন্থি রাজনীতি ক্রমেই আরো বিস্তার লাভ করছে, এএফডি রাজনৈতিক দল ও পেগিডা আন্দোলন যার প্রমাণ৷ জার্মান জনগণের কিছু কিছু অংশ নিঃসন্দেহে বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে বিশেষ সন্তুষ্ট নয়৷ কিন্তু তা সত্ত্বেও এখানে ডোনাল্ড ট্রাম্পের মতো কারোর সাফল্যের সম্ভাবনা কম, বলে আমি মনে করি৷ তার একটি কারণ হলো, জার্মান রাজনৈতিক দলগুলি উচ্চ আসনের জন্য যেভাবে তাদের প্রার্থী মনোনয়ন করে থাকে৷

যুক্তরাষ্ট্রে যে কেউ ডেমোক্র্যাট বা রিপাবলিকান হিসেবে নিজের নাম লিখিয়ে রাজ্য পর্যায়ের প্রাইমারিগুলিতে অংশগ্রহণ করতে পারেন৷ জার্মানিতে রাজনৈতিক দলগুলি তাদের কনভেনশনে প্রার্থী মনোনয়ন করে বটে, কিন্তু দলীয় সম্মেলনে শুধুমাত্র অ-নির্বাচিত প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকেন৷ দলের নেতৃস্থানীয় সদস্যরাই গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচনগুলির জন্য প্রার্থী নির্বাচনে ভূমিকা নিতে পারেন৷ কাজেই জার্মানিতে প্রার্থীরা তাদের দলের মূল ধারার সঙ্গে অনেক বেশি ঘনিষ্ঠভাবে সম্পৃক্ত৷ ওদিকে ট্রাম্প রাজনীতির সঙ্গে আদৌ যুক্ত না হয়ে, এমনকি রিপাবলিকান দলেও ‘আউটসাইডার' হয়ে থেকে স্রেফ ঘোষণা করেন যে, তিনি প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হিসেবে রিপাবলিকান দলের মনোনয়ন পাবার চেষ্টা করবেন – জার্মানিতে যে কথা ভাবাই যায় না৷

একটি পন্থা অবশ্য থেকে যাচ্ছে: ধরে নেওয়া যাক ‘জার্মান ডোনাল্ড' একজন নাম-করা সেলিব্রিটি; সেক্ষেত্রে তিনি একটি নতুন দল গঠন করতে পারেন কিংবা কোনো সাম্প্রতিককালে সৃষ্ট দলের চাঁই হয়ে উঠতে পারেন – যেমন এএফডি দলের৷ অ্যাডল্ফ হিটলার ঠিক এভাবেই ন্যাশনাল সোশ্যালিস্টদের নেতা হয়ে তাঁর রাজনৈতিক উত্থান শুরু করেন, যা থেকে তিনি ১৯৩৩ সালে জার্মান চ্যান্সেলরের পদে উন্নীত হন৷

কিন্তু আমাদের ‘জার্মান ডোনাল্ড' কোনো প্রথা ও ঐতিহ্যবর্জিত ভুঁইফোড় দলের হয়ে একদিন জার্মান চ্যান্সেলরের পদ অলঙ্কৃত করতে পারবেন, এটা ভাবা বৃথা৷ জার্মান নির্বাচন হয় ‘প্রোপোর্শনালিটি' বা ভোটের অনুপাতের ভিত্তিতে৷ এখানে কোনো ভোটই মাঠে মারা যায় না৷ এছাড়া জার্মানিতে বহুদলীয় নির্বাচন, যুক্তরাষ্ট্রের মতো শুধু দু'টি দল নয়৷ এদেশের নির্বাচন পদ্ধতিতে কোনো দলের পক্ষে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়াটা খুবই বিরল; ফেডারাল জার্মান প্রজাতন্ত্রের ৬৭ বছরের ইতিহাসে  ১৯৫৭ থেকে ১৯৬১, শুধুমাত্র এই একটি কর্মকালে সিডিইউ-সিএসইউ দল একা শাসন চালাতে পেরেছে৷

‘আনুপাতিক প্রতিনিধিত্ব' প্রণালীর সঙ্গে মার্কিন প্রথার মূল তফাৎ হলো এই যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে একজন প্রার্থী সাকুল্যে বেশি ভোট পেলেও, নির্বাচনে পরাজিত হতে পারেন৷ এবারেও হিলারি ক্লিন্টন বস্তুত ডোনাল্ড ট্রাম্পের চেয়ে বেশি ভোট পেয়েছেন: ক্লিন্টন পেয়েছেন ৪৭.৭ শতাংশ ভোট, যেখানে ট্রাম্প পেয়েছেন ৪৫.৫ শতাংশ ভোট৷ ট্রাম্প যা জিতেছেন, তা হলো ইলেক্টোরাল কলেজ৷ এই ইলেক্টর-ভিত্তিক নির্বাচন প্রণালীর সুবিধা হলো এই যে, এর ফলে ছোট ছোট এলাকাগুলির মানুষজনের মতামতও গুরুত্ব পায়, শুধু নিউ ইয়র্ক কিংবা ক্যালিফর্নিয়ার মতো বড় শহরগুলি নয়৷ তা সত্ত্বেও বিগত কয়েক দিনে আমি আমার বন্ধু-বান্ধবদের বলতে বাধ্য হয়েছি যে, জার্মানরা যেভাবে তাদের সর্বোচ্চ নেতাদের নির্বাচন করেন, সে পদ্ধতি সুপারিশ করা চলে৷

জেফারসন চেজ/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়