1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

ট্রাম্পের আমলে কেমন থাকবে বাংলাদেশ?

ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রের বাংলাদেশ-নীতি এখনো স্পষ্ট নয়৷ দক্ষিণ এশিয়া নীতি ঘোষণার আগে তা স্পষ্ট হওয়ার সম্ভাবনাও নেই৷ তবে এরই মধ্যে কিছু সিদ্ধান্ত বাংলাদেশের জন্য প্রভাবক হিসেবে কাজ করছে৷

জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে ডোনাল্ড ট্রাম্প দায়িত্ব নেয়ার পর বাংলাদেশের পক্ষ থেকে তাঁর প্রশাসনের কোনো সিদ্ধান্তের ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া দেখানো হয় গত ৬ জুন৷ এর আগে ২ জুন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার আমলে ২০১৫ সালে সই হওয়া প্যারিস জলবায়ু চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে প্রত্যাহার করে নেয়ার ঘোষণা দেন৷ এর প্রতিক্রিয়ায় বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী এক বিবৃতিতে বলেন, ‘‘বর্তমান ও পরবর্তী প্রজন্মের জন্য সবুজ এবং নিরাপদ পৃথিবী তৈরির বৈশ্বিক প্রক্রিয়া থেকে যুক্তরাষ্ট্রের মতো বড় একটি দেশ বের হয়ে যাওয়া দুঃখজনক৷ বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত৷ বাংলাদেশ তার বন্ধু ও অংশীদারদের সঙ্গে মিলে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় সম্পদ আহরণ করবে৷''

প্যারিস চুক্তিতে যুক্তরাষ্ট্রসহ ১৮৭টি দেশ মিলে অঙ্গীকার করেছিল বৈশ্বিক উষ্ণতার মাত্রা ২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কম রাখবে৷

যুক্তরাষ্ট্রের বাজেটে বাংলাদেশ-নীতির প্রতিফলন:

ট্রাম্প প্রশাসনের প্রথম বাজেটে বাংলাদেশকে দেয়া আর্থিক সহায়তার পরিমাণ কমানোর প্রস্তাব করা হয়েছে৷ ২০১৬ সালে বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে ২১ কোটি ডলার আর্থিক সহায়তা পেয়েছিল৷ ট্রাম্পের পররাষ্ট্র দফতর তা কমিয়ে ২০১৮ সালের জন্য বাংলাদেশকে ১৩ কোটি ৮০ লাখ ডলার আর্থিক সহায়তা দেওয়ার প্রস্তাব করেছে৷ মার্কিন বাজেট প্রস্তাবনায় বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের সব সামরিক অনুদান বন্ধের প্রস্তাব করা হয়েছে৷ তবে প্রস্তাবিত বাজেটে বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার উন্নয়ন ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি সচল রাখার জন্য নতুন করে ৯ কোটি ৫০ লাখ ডলার বরাদ্দ দেওয়ার কথা বলা হয়েছে৷

এদিকে জঙ্গিবাদ দমনে অ্যান্টি-টেরোরিজম অ্যাসিসট্যান্স হিসেবে বাংলাদেশকে ৩০ লাখ ডলার বরাদ্দের প্রস্তাব করেছে মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর৷ মানবাধিকার ও আইনের শাসনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে জঙ্গিবাদ দমনে বাংলাদেশের আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে শক্তিশালী করতে তা কাজে লাগানো হবে৷

জানা গেছে, স্বাস্থ্য খাতে ২০১৬ সালে বাংলাদেশ আর্থিক বরাদ্দ পেয়েছে সাত কোটি ৯০ লাখ ডলার৷ ট্রাম্প প্রশাসন এ খাতেও বড় রকমের কাটছাঁটের প্রস্তাব করেছে৷ ২০১৮ সালে বাংলাদেশকে তিন কোটি ৬৭ লাখ ডলার আর্থিক সহায়তা দেওয়ার কথা বলা হয়েছে৷ তবে দক্ষিণ এশিয়ায় স্বাস্থ্য খাতে এটাই সবচেয়ে বড় মার্কিন সহায়তা৷ প্রস্তাবনায় দ্বিতীয় স্থানে আছে ভারত৷

অডিও শুনুন 00:49

‘সন্ত্রাস দমনই ট্রাম্প প্রশাসনের প্রধান এজেন্ডা’

২০১৬ সালে বাংলাদেশে সামরিক খাতে আর্থিক বরাদ্দ ছিল ২০ লাখ ডলার৷ এবার সামরিক খাতে সব সহায়তা বন্ধের প্রস্তাব করা হয়েছে৷ তবে সামরিক প্রশিক্ষণ ও শিক্ষার জন্য ১৫ লাখ ডলার বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে৷

অপরদিকে, ২০১৮ অর্থবছরের বাজেটে বাংলাদেশের জন্য আর্থিক সহায়তা ও উন্নয়ন তহবিলে (ইকোনমিক সাপোর্ট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ফান্ড- ইসিডিএফ) ৯ কোটি ৫০ লাখ ডলার বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে৷ ২০১৬ সালে এ খাতে কোনও বরাদ্দ ছিল না৷

মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা স্থিতিশীল এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বজায় রাখতে বাংলাদেশকে সহায়তার জন্য ইসিডিএফ খাতে বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে৷

ট্রাম্প পররাষ্ট্রনীতির কেন্দ্রীয় অংশে রয়েছে এ অঞ্চলের ‘রেডিক্যাল ইসলামিক টেরোরিজম' বা উগ্রবাদী ইসলামী সন্ত্রাস দমন৷ এক্ষেত্রে ট্রাম্প প্রশাসনের দক্ষিণ এশীয় কূটনীতিতে স্টেট ডিপার্টমেন্টের প্রচলিত ভূমিকার চেয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের সিদ্ধান্ত প্রাধান্য পাবে বলেই মনে করছেন বিশ্লেষকরা৷ যুক্তরাষ্ট্রের বাজেটে বাংলাদেরশের জন্য বরাদ্দের খাত দেখলে তা স্পষ্ট হয়৷

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশন:

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনের বাজেট ১০০ কোটি মার্কিন ডলার কমানোর প্রস্তাব করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র৷ বর্তমানে মিশনের চার ভাগের এক ভাগ খরচ বহন করে দেশটি৷ ফলে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশন হুমকিতে পড়তে পারে৷জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন, ‘‘যুক্তরাষ্ট্রের বাজেট কমানোর প্রস্তাব বাস্তবায়ন করা হলে জাতিসংঘের পক্ষে মানবিক কর্মকাণ্ড চালিয়ে নেওয়া একেবারেই অসম্ভব হয়ে পড়বে৷''

আর এই কারণে বাংলাদেশও ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে৷ জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী বহিনীতে বর্তমানে পুলিশসহ বাংলাদেশের সশস্ত্র বাহিনীর ৭ হাজার ১২৯ জন কর্মরত আছেন৷ জাতিসংঘ মিশনে সেনাবাহিনীর ৪ হাজার ৯২৬ জন, নৌবাহিনীর ৫২৪ জন, বিমান বাহিনীর ৬৩৯ জন এবং পুলিশ বাহিনীর এক হাজার ৪০ জন  সদস্য রয়েছেন৷ বাংলাদেশি বাহিনী বর্তমানে জাতিসংঘের ৯টি মিশনে কাজ করছে৷ মিশনগুলো হলো মোনুস্কো (ডি আর কঙ্গো), ইউনোসি (আইভরিকোস্ট), আনমিল (লাইবেরিয়া), ইউনিফিল (লেবানন), আনমিস (দক্ষিণ সুদান), ইউনামিড (সুদান-দারফুর), মিনারসো (ওয়েস্টার্ন সাহারা), মিনুসমা (মালি) ও মিনুস্কা (সেন্ট্রাল আফ্রেকান রিপাবলিক)৷

অভিবাসন নীতি:

২৭ জানুয়ারি সাত মুসলিম দেশ ইরান, ইরাক, সিরিয়া, লিবিয়া, সোমালিয়া, সুদান ও ইয়েমেনের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে একটি নির্বাহী আদেশে সই করেন ট্রাম্প, যা ওইদিন থেকেই কার্যকর হয়৷ এতে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে তীব্র সমালোচনা শুরু হয়৷ আন্দোলন শুরু হয় যুক্তরাষ্ট্রের অভ্যন্তরেও৷বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে৷ ওই নিষেধাজ্ঞার কবলে বাংলাদেশ না পড়লেও অভিভাসন নীতি এবং ভিসা নীতির কারণে বাংলাদেশের নাগরিকরা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে৷

সীমান্ত শুল্ক এবং টিপিপি:

ট্রাম্পের সীমান্ত শুল্ক (বর্ডার ট্যাক্স) পরিকল্পনা বাংলাদেশের পোশাক শিল্পে নতুন এক আশঙ্কা তৈরি করেছে৷ আর আশঙ্কার কারণ হলো, যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সীমান্ত শুল্ক (বর্ডার ট্যাক্স) পরিকল্পনা৷ তাঁর দায়িত্ব গ্রহণের পর এটা যদি বাস্তবায়িত হয় তাহলে বাংলাদেশের রপ্তানি খাত, বিশেষ করে পোশাক শিল্প আরও বেশি শুল্ক প্রতিযোগিতার মধ্যে পড়বে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা৷

এখনো চালু না হলেও নির্বাচনি প্রচারণার সময় ট্রাম্প যেসব বড় পরিকল্পনার কথা  বলেছিলেন তার মধ্যে সীমান্ত কর পরিকল্পনা একটি৷ ১৭ মাসের নির্বাচনি প্রচারণার সময় আমদানিকৃত পণ্যের ওপর ৩৫ থেকে ৪৫ শতাংশ সীমান্ত শুল্ক আরোপের কথা বলেছিলেন তিনি৷ এ পরিকল্পনার আওতায় যুক্তরাষ্ট্রের যেসব কোম্পানি পণ্য আমদানি করবে তাদেরকে সীমান্তে শুল্ক পরিশোধ করতে হবে৷

যদি শেষ পর্যন্ত প্রস্তাবিত সীমান্ত শুল্ক আরোপ করা হয়, তবে অন্য দেশগুলের মতো বাংলাদেশও ভুক্তভোগী হবে৷ বাংলাদেশ একক দেশ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে বেশি পোশাক রপ্তানি করে এখন ১৬ ভাগের কম শুল্ক দিতে হয়৷ তখন শুল্ক দিতে হবে ৪০ ভাগ৷

বর্তমানে মার্কিন খুচরা বিক্রেতাদেরকে বাংলাদেশ থেকে পোশাক পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে ১৫ দশমিক ৬১ শতাংশ শুল্ক দিতে হয়৷ আর বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে যে পরিমাণ পণ্য রফতানি হয় তার ৯৫ ভাগই পোশাক পণ্য৷ যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানিকারকদেরকে চীন থেকে পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে ৩ দশমিক ০৮ শতাংশ, ভিয়েতনাম থেকে পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে ৮ দশমিক ৩৮ শতাংশ, ভারত থেকে পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে ২ দশমিক ২৯ শতাংশ, তুরস্ক থেকে পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে ৩ দশমিক ৫৭ শতাংশ এবং ইন্দোনেশিয়া থেকে পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে ৬ দশমিক ৩০ শতাংশ শুল্ক পরিশোধ করতে হয়৷

তুলনা করলে এখনই বাংলাদেশি পোশাকের ওপর শুল্ক অনেক বেশি৷ তাই সীমান্ত শুল্ক অনেক নেতিবাচক প্রভাব সৃষ্টি করবে৷ অসম প্রতিযোগিতার মুখে পড়ে যাবে বাংলাদেশ৷

যুক্তরাষ্ট্রসহ এশীয় ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ১২টি দেশ ট্রান্স প্যাসিফিক পার্টনারশিপ (টিপিপি) চুক্তি অনুস্বাক্ষর করেনি৷ দেশগুলোর মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যের ক্ষেত্রে বিনা শুল্ক সুবিধার কথা উল্লেখ রয়েছে এই চুক্তিতে৷ দীর্ঘ আলোচনার পর ২০১৫ সালে চুক্তিটি সই হয়৷ চুক্তিতে স্বাক্ষরকারী অন্য দেশগুলো হলো– অস্ট্রেলিয়া, জাপান, ব্রুনাই দারুস সালাম, ক্যানাডা, চিলি, মালয়েশিয়া, মেক্সিকো, নিউজিল্যান্ড, পেরু, সিঙ্গাপুর ও ভিয়েতনাম৷ দেশগুলো বর্তমান বিশ্ব বাণিজ্যের ৪০ শতাংশ নিয়ন্ত্রণ করে৷

হোয়াইট হাউজে প্রথম দিনই টিপিপি বাণিজ্য চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে সরিয়ে নেয়ার কথা বলেনযুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ সেই মোতাবেক চুক্তিটি বাতিলও করেছেন তিনি৷

ইউরোপের দেশগুলো বাংলাদেশের রপ্তানি খাতের অন্যতম বড় বাজার৷ আবার একক দেশ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রেই বেশি পণ্য রপ্তানি করে বাংলাদেশ৷ ট্রাম্পের শাসনামলে সেই রপ্তানিখাত প্রভাবিত হবে কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে৷

সম্পর্ক কোন পথে?

গত নভেম্বরে ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের প্রেডিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ারপর ঢাকা ও ওয়াশিংটনের মধ্যে রুটিন বা দৈনন্দিন কার্যক্রমের বাইরে কেনো নতুনত্ব চোখে  পড়েনি। গত কয়েক মাসে রুটিন কাজের বাইরে দুই দেশ টিকফা বৈঠক করেছে৷ সেখানে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বাড়ানোর বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে হয়েছে বলে পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় সূত্র দাবী করেছে৷

তবে গত ২১ মে সৌদি আরবে আরব ইসলামিক আমেরিকান সম্মেলনশুরু হওয়ার আগে শেখ হাসিনা ও  মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যে সৌজন্য সাক্ষাৎ ও সংক্ষিপ্ত আলোচনা হয়৷ ওই সময় শেখ হাসিনা ডোনাল্ড ট্রাম্পকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান৷  তখন পররাষ্ট্র সচিব এম শহীদুল হক সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে সৌজন্য বিনিময় করেছেন৷ এরই এক পর্যায়ে শেখ হাসিনা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান৷ উত্তরে ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, আমি আশা রাখি, বাংলাদেশে যাবো।৷''

অডিও শুনুন 06:29

‘বাংলাদেশ ট্রাম্প প্রশাসনের নজরদারি এবং মনিটরিবং-এ থাকবে’

বিশ্লেষকরা যা বলছেন:

এখন পর্যন্ত এশিয়ার চীন ও ভারতের মতো  গুরুত্বপূর্ণ অনেক দেশেই মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিয়োগ দেয়া হয়নি৷ যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বেশিরভাগ কর্মকর্তাও এখনও নিয়োগ পাননি৷ ট্রাম্প প্রশাসন এখনও তাদের এশিয়া নীতি তৈরি করেনি৷ ট্রাম্পের এশিয়া নীতি কী হবে এবং সেই নীতি পরিচালনার জন্য কাদের নিয়োগ দেওয়া হবে সে বিষয়টি এখনও পরিষ্কার নয়৷

আন্তর্জাতিক রাজনীরি বিশ্লেষকরা বরছেন, যুক্তরাষ্ট্রের বৃহৎ দক্ষিণ এশিয়া নীতির একটি অংশ বাংলাদেশ৷ যতক্ষণ পর্যন্ত না সেই নীতি সবার কাছে পরিষ্কার হচ্ছে, ততক্ষণ পর্যন্ত আমাদের বাংলাদেশকে অপেক্ষা করতে হবে নতুন উদ্যোগের জন্য৷ ট্রাম্প কিছুদিন আগে সৌদি আরব সফর করেছেন এবং তাঁর মধ্যপ্রাচ্য নীতির বিষয়  অনেকটাই স্পষ্ট হয়েছে৷

বিশ্লেষকরা বলছেন, আগামী কিছুদিনের মধ্যে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর যুক্তরাষ্ট্র সফরের কথা আছে৷ এই সফর হলে ওয়াশিংটন হয়তো তার বৃহৎ দক্ষিণ এশিয়া নীতি তৈরি ও বাস্তবায়ন শুরু করবে৷

সাবেক রাষ্ট্রদূত এবং কুটনীতিক মোহাম্মদ জমির ডয়চে ভেলেকে বলেন. ‘‘যুক্তরাষ্ট্র এখন পর্যন্ত নিজেদের অভ্যন্তরীণ সমস্যারই সমাধান করে উঠতে পারেনি৷ অভ্যন্তরীণ সমস্যার সমাধান করেই না আন্তর্জাতিক সমস্যা নিয়ে কাজ করবে৷ তবে এরই মধ্যে ট্রাম্প মধ্যপ্রাচ্য সফর করেছেন৷ জি-৭ এ গেছেন৷ ন্যাটোতে গেছেন৷ ইসরায়েলে গেছেন৷ জাপান ও চীনের সঙ্গে যোগাযোগ হয়েছে৷''

তিনি বলেন, ‘‘ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেদ্রমোদী যুক্তরাষ্ট্র যাবেন কিছুদিন পরে৷ তখন হয়তো দক্ষিণ এশিয়া নিয়ে কথাবার্তা হবে৷ তবে এখন পর্যন্ত যা মনে হচ্ছে, তাতে সন্ত্রাস দমনই ট্রাম্প প্রশাসনের প্রধান এজেন্ডা৷ তাতে বাংলাদেশও প্রাধান্য পাবে বলে আশা করা যায়৷''

আন্তর্জাতিক রাজনীতির বিশ্লেষক এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকার ও রাজনীত বিভাগের অধ্যাপক ড. তারেক শামসুর রহমান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘ এখন পর্যন্ত কিছু সিদ্ধান্তে বাংলাদেশের ওপর নেতিবাচক প্রভাবের আশঙ্কার কথা বলা যায়৷ এরমধ্যে ভিসা ও অভিবাসন নীতি, বাংলাদেশেরর জন্য অর্থ সহায়তা কমানো, জলবায়ু চুক্তি থেকে সড়ে দাঁড়ান, জাতিসংঘ শান্তি মিশনের বাজেট প্রত্যাহার ইত্যাদি৷ তবে এখনো ট্রাম্প প্রশাসনের দক্ষিণ এশিয়া নীতি স্পষ্ট নয়৷ তারা ওবামা প্রশাসনের দক্ষিণ এশিয়ার ব্যাপারে প্রাইভট নীতি বহাল রাখবে বলে মনে হয় না৷ দক্ষিণ এশিয়া নীতি স্পষ্ট হলে তবেই বাংলাদেশ নীতির কথা আসবে৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘চীনের ওয়ান বেল্ট ওয়ান রো নীতি, ভারত মহাসাগর এবং কাতারকে নিয়ে উত্তেজনা দক্ষিণ এশিয়া নীতিতে প্রভাব ফেলবে৷ ভারত এবং চীনকে মাথায় রাখছে মার্কিন প্রশাসন৷''

মোহাম্মদ জমিরের মতো তারেক শামসুর রহমানও মনে করেন, ‘‘ট্রাম্প প্রশাসন জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ দমনকে যেভাবে গুরুত্ব দিচ্ছে, তাতে বাংলাদেশ বাইরে থাকবে না৷ বাংলাদেশ ট্রাম্প প্রশাসনের নজরদারি এবং মনিটরিবং-এ থাকবে৷

আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়