1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

টেকসই উন্নয়ন তরান্বিত করতে নতুন উদ্যোগ

সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার পর এবার টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার দিকে এগিয়ে চলেছে বিশ্ব৷ ২০১৫ সালেই এই পথ চলা শুরু হচ্ছে৷ বন শহরে আয়োজিত এক সম্মেলনে এই উদ্যোগের নানা দিক তুলে ধরা হয়েছে৷

default

আলোচনাচক্রে ডয়চে ভেলের মহাপরিচালক পেটার লিমবুর্গ

পৃথিবীর অবস্থা ভালো নয়৷ জলবায়ু পরিবর্তনের কু-প্রভাব টের পাওয়া যাচ্ছে নানাভাবে৷ অর্থনৈতিক বৈষম্যও দূর হচ্ছে না৷ জাতিসংঘের ‘মিলেনিয়াম ডেভেলপমেন্ট গোলস' বা সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা গত ১৫ বছরে অনেকটা দুর্বল হয়ে পড়েছে৷ সেই কর্মসূচির মূল লক্ষ্য ছিল মূলত উন্নয়নশীল দেশগুলি৷ টেকসই উন্নয়ন তরান্বিত করতে চলতি বছর গোটা বিশ্বের জন্য নতুন লক্ষ্যমাত্রা স্থির করা হচ্ছে, যার পোশাকি নাম ‘সাস্টেনেবল ডেভেলাপমেন্ট গোলস' বা এসডিজি৷ উন্নয়নশীল ও শিল্পোন্নত সব দেশ এর মাধ্যমে বর্তমান বিবর্তন প্রক্রিয়াকে টেকসই উপায়ে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবে, এমনটাই আশা করা হচ্ছে৷

সম্প্রতি বন শহরে এই এসডিজি-র বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করতে এক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হলো৷ বিশেষ করে এই লক্ষ্যমাত্রা কীভাবে বাস্তবে প্রয়োগ করা সম্ভব, সেই বিষয়টি বিশেষ গুরুত্ব পেয়েছে৷ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে আঞ্চলিক বা স্থানীয় পর্যায়ে অনেক সফল উদ্যোগের দৃষ্টান্ত কীভাবে অন্যান্য জায়গায় প্রয়োগ করা যায়, বক্তারা সে বিষয়েও আলোচনা করেছেন৷ এই বিবর্তন বা উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় সরকার, প্রশাসন, নাগরিক, জনগণ, শিল্পজগত, এনজিও ইত্যাদি ‘স্টেকহোল্ডার'-দের ভূমিকা কী হবে, সেটাও বড় প্রশ্ন৷

একটি বিষয় নিয়ে আর কোনো সন্দেহ নেই৷ মানবজাতির ইতিহাসে আজকের মতো এত সমৃদ্ধি কখনো দেখা যায়নি৷ কিন্তু সমস্যা হচ্ছে সেই সম্পদের বণ্টন নিয়ে৷ প্রযুক্তি সেই কাজে অনেকটাই সাহায্য করছে৷ বিশেষ করে মোবাইল প্রযুক্তির দৌলতে অনেক মানুষ নিজেদের দারিদ্র্যের কবল থেকে মুক্ত করতে পারছেন৷

আজকের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সাধারণ মানুষের হাতে সত্যি অনেক ক্ষমতা তুলে দিয়েছে৷ যারা সরাসরি ইন্টারনেটের নাগাল পাচ্ছেন না, তাঁরাও পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন নয়৷ ব্রাজিলের রিও ডি জানেরো শহরে নাগরিক ও প্রশাসনের মধ্যে সেতুবন্ধ রচনা করেছে ‘মেউ রিও' বা ‘আমার রিও' নামের এক প্রতিষ্ঠান৷ তার প্রধান মিগেল লাগো জানালেন, নাগরিকদের শামিল করা বড় এক চ্যালেঞ্জ৷ বিশেষ করে যারা ‘সিস্টেম' বা প্রচলিত শাসনব্যবস্থার উপর আস্থা হারিয়ে ফেলেছেন, তাঁদের আবার সক্রিয় করে তোলা কঠিন৷ তাই প্রশ্নটা প্রযুক্তি নয়, মানসিকতার৷

Bonn Conference

বক্তারা টেকসই উন্নয়নের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন

বর্তমান বিবর্তন প্রক্রিয়ায় সংবাদমাধ্যমের ভূমিকা সম্পর্কে বক্তব্য রাখেন ডয়চে ভেলের মহাপরিচালক পেটার লিমবুর্গ৷ তাঁর মতে, ডয়চে ভেলে বিশ্বব্যাপী তার পরিষেবার মাধ্যমে টেকসই উন্নয়নের গুরুত্ব তুলে ধরছে৷ শুধু সংবাদ শিরোনামের ঘটনা ও তার বিশ্লেষণ নয়, স্থানীয় পর্যায়ের নানা সফল উদ্যোগও গোটা বিশ্বের কাছে তুলে ধরছে ডয়চে ভেলে, যা বাকিদেরও প্রেরণা যোগাতে পারে৷ এ ক্ষেত্রে সহজ ভাষার প্রয়োগ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ৷ লিমবুর্গ-এর মতে, উন্নয়ন প্রক্রিয়ার সব ‘স্টেকহোল্ডার'-দের বোঝাতে হবে, তারা কীভাবে এর ফলে উপকৃত হচ্ছে৷ তা না হলে তাদের মন জয় করা যাবে না৷

ইউরোপীয় ইউনিয়নও এই মুহূর্তে একাধিক চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে৷ ইউরোপীয় কমিশনের কর্মকর্তা মিশায়েল কার্নিচনিশ ইউরোপের দোরগড়ায় সিরিয়া, লিবিয়া সহ একাধিক সংকটের কথা মনে করিয়ে দেন৷ তাঁর মতে, চারিদিকে স্থিতিশীলতার অভাব থাকলে ইউরোপও তা থেকে বেশিকাল সুরক্ষিত থাকতে পারে না৷ তাই ইউরোপকেও উন্নয়ন সম্পর্কে নতুন করে চিন্তা-ভাবনা করতে হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়