1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

টুইটার যখন রাজনীতির হাতিয়ার

কয়েক বছর আগে টুইটারে যোগ দেয়ার পরামর্শ হেসেই উড়িয়ে দিয়েছিলেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী৷ আর চলতি বছর বিজেপির নির্বাচনি স্লোগান ‘আব কি বার মোদী সরকার’ ছিল ভারতের অন্যতম জনপ্রিয় টুইট৷ ফলাফল এখন সবারই জানা৷

ভারতের সাম্প্রতিক লোকসভা নির্বাচনের মধ্যে দিয়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলো, বিশেষ করে টুইটার রাজনীতিবিদ এবং প্রচার মাধ্যমগুলোর কাছে ‘অতি গুরুত্বপূর্ণ হাতিয়ার’ হিসাবে আবির্ভূত হয়েছে৷ যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠান টুইটার ইনকর্পোরেটেড জানিয়েছে, ভারতে ব্যবহৃত কৌশলগুলো অন্যান্য দেশের নির্বাচনেও কাজে লাগাবে তারা৷

সামাজিক যোগাযোগের আরেক জনপ্রিয় সাইট ফেসবুকও এর আগে একই ধরনের ঘোষণা দিয়েছিল৷

বলা হচ্ছে, লোকসভা নির্বাচনে মোদীর দল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনের পেছনে সোশ্যাল মিডিয়ার গতিশীল এবং চমকপ্রদ ব্যবহার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে৷ চলতি বছর ভারতীয় টুইটারে নির্বাচন সংক্রান্ত টুইট হয়েছে ৫ কোটি ৮০ লাখের বেশি৷ এর মধ্যে ১ কোটি ১৮ লাখ টুইট হয়েছে সরাসরি নরেন্দ্র মোদীর অফিশিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টে৷

কেবল মোদী বা বিজেপি নয়, সব রাজনৈতিক দলকে নিয়েই নির্বাচনের আগে ঘনিষ্টভাবে কাজ করেছে টুইটার৷ অনলাইন ও অফলাইনে নিয়মিত টুইট করার সুবিধা দিতে বিভিন্ন মোবাইল ফোন কোম্পানির সঙ্গেও যৌথভাবে কাজ করেছে প্রতিষ্ঠানটি৷

টুইটার বলছে, ভারতের নির্বাচনে যে টুলগুলো তারা ব্যবহার করতে দিয়েছে, সেগুলো ব্রাজিল, ইন্দোনেশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনেও থাকবে৷ এর মধ্য দিয়ে টুইটারকে আরো বেশি মানুষের কাছে নিয়ে যাওয়াই তাদের লক্ষ্য৷

ভারতে টুইটারের মার্কেট ডাইরেক্টর ঋষি জেটলি বলেন, ‘‘টুইটার কতটা ‘ভ্যালু অ্যাড’ করতে পারে তা দেখার জন্য নির্বাচন সবচেয়ে ভালো সময়৷ ভারতীয় নির্বাচনে আমরা যা শিখেছি, তা পুরো বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে চাই৷’’

ব্রাজিলের আইন প্রণেতাদের কাছে সোশ্যাল মিডিয়ার সম্ভাবনা আর গুরুত্ব তুলে ধরতে গত সপ্তাহেই ল্যাটিন অ্যামেরিকার এই দেশটিতে উড়াল দিয়েছেন টুইটারের ‘শীর্ষ রাজনৈতিক কৌশলবিদ’৷ ভারতের মতো ব্রাজিলেও এবার রাজনীতিবিদরা ভোটের লড়াইয়ে ব্যবহার করবেন ৬ সেকেন্ডের ভিডিও অ্যাপ ‘ভাইন’৷
চলতি বছরের শেষ দিকে যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনে ভারতের মতোই ‘টুইট টু রিমেম্বার’ ফিচারটি ব্যবহার করতে পারবেন ভোটাররা৷ এই ফিচারের মাধ্যমে একটি টুইট করলেই ব্যবহারকারীদের মোবাইল ফোনের ক্যালেন্ডারে ভোটের তারিখটি যুক্ত হয়ে যাবে৷

রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসাবে টুইটার প্রথমবারের মতো গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠতে শুরু করে ২০১২ সালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময়৷ এরপর আরব বসন্ত হিসাবে পরিচিতি পাওয়া গণজাগরণের দিনগুলোতে টুইটার ব্যবহার হয় আন্দোলন সংগঠিত করার গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হিসাবে৷

‘ফলোয়ার’, অর্থাৎ অনুসরণকারীর সংখ্যার বিচারে রাজনীতিবিদদের মধ্যে টুইটারে সবার চেয়ে এগিয়ে আছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা৷ তাঁর টুইট অনুসরণ করেন ৪ কোটি ৩২ লাখ ব্যবহারকারী৷ আর টুইটারে দ্রুত জনপ্রিয় হতে থাকা নরেন্দ্র মোদীর অনুসরণকারীর সংখ্যা ৪৩ লাখ ৯০ হাজার৷

গত ১৬ই মে ভারতীয় নির্বাচনের ফল ঘোষণার পর মোবাইল ফোনে মায়ের সঙ্গে নিজের তোলা যে ছবি মোদী টুইট করেছিলেন, সেটি ভারতীয় টুইটারের ইতিহাসে রেকর্ড সংখ্যকবার রিটুইট হয়েছে৷

ভারতের জনসংখ্যার দুই তৃতীয়াংশের বয়স বর্তমানে ৩৫ এর কম৷ নির্বাচনের আগে মোদি ভালভাবেই বুঝেছিলেন যে, ভোটে জয় পেতে হলে এই তরুণ জনগোষ্ঠীকেই তাঁর জয় করতে হবে৷ এই যুদ্ধে মোবাইল ফোনের ভয়েস কল থেকে শুরু করে হলোগ্রাম, ফেইসবুক, টুইটার- সবই তিনি ব্যবহার করেছেন৷
ভারতে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা এখন ২৩ কোটি ৯০ লাখ৷ মোবাইল ফোন ব্যবহার করেন ৯০ কোটির বেশি ভারতীয়৷ আর টুইটার অ্যাকাউন্ট আছে এমন ভারতীয়র সংখ্যা সাড়ে তিন লাখ৷
ভারতীয় রাজনীতিবিদদের মধ্যে সবার আগে যাঁরা টুইটারে যোগ দিয়েছিলেন, কংগ্রেস নেতা শশী থারুর তাঁদের অন্যতম৷ টুইটারে তাঁর অনুসারীর সংখ্যা ২০ লাখের বেশি৷ কয়েক বছর আগে তিনি যখন রাহুল গান্ধীকে টুইটারে যোগ দেয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন, রাহুল তা আমলে নেননি৷

নির্বাচনে কংগ্রেসের ভরাডুবির পর এর দায়দায়িত্ব নিজের ঘাড়ে নিয়েছেন রাহুল৷ আর আগামীর জন্য কংগ্রেসকে প্রস্তুত করতে সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজেদের অবস্থান শক্ত করার জন্য আবারো শীর্ষ নেতৃত্বকে পরামর্শ দিয়েছে শশী থারুর৷

তিনি বলেছেন, ‘‘এভাবে বিজেপিকে জায়গা ছেড়ে দেয়ার কোনো অর্থ হয় না৷ এটা এমন এক জায়গা, যেখানে আমরাও একই রকম ভালো ফল দেখাতে পারতাম৷’’

জেকে/ডিজি (রয়টার্স, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন