1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ চলে গেল লন্ডনে, পরাজিত অস্ট্রেলিয়া

ইতিহাস হয়ে গেল অবশেষে৷ টি টোয়েন্টিতে ইস্পাতস্নায়ু অস্ট্রেলিয়া কুপোকাত ইংল্যান্ডের কাছে৷ ব্রিটিশরা এই প্রথম কোন বিশ্বকাপে হাত রাখতে পেরেছে৷ সাত উইকেটে পরাজিত অস্ট্রেলিয়া এই টুর্নামেন্টের ডার্ক হর্স ইংল্যান্ডের কাছে৷

default

ফাইনালের প্রস্তুতি নিতে অনুশীলনরত ইংল্যন্ড দলের একাংশ৷ শেষ হাসি হেসেছেন এঁরাই

বোলিং নাকি ব্যাটিং, কোনদিকে পাল্লা ভারী ছিল ফাইনালে

কলিংউডের যে ইংলিশ দলটা রবিবার ফাইনাল খেলতে নেমেছিল, তাদের দেখে মনে হয়েছে বিশ্বকাপ ঘরে নিয়ে যাওয়ার জন্য কোন বাধাকেই তারা পরোয়া করবে না৷ হয়েছেও তাই৷ অস্ট্রেলিয়া শুরুতে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ১৪৭ রানে আটকে যায় ইংরেজ বোলারদের সামনে৷ অস্ট্রেলিয়ার সব মারকুটে ব্যাটসম্যানদের যে আগে থেকেই বুঝে নিয়েছিলেন কলিংউডের বোলাররা তা বোঝা গিয়েছে দুই ওপেনারের মাত্র দুই রান করে ফিরে যাওয়া দেখে৷ পরক্ষণেই হ্যাডিন আউট মাত্র ১ রানে৷ অস্ট্রেলিয়া তিন উইকেটে ৮৷ এরপরেও জোরদার চেষ্টা করেছিলেন অধিনায়ক মাইকেল ক্লার্ক, ২৭ বলে ২৭ রান করে, কিংবা ক্যামেরন হোয়াইট ১৯ বলে ৩০ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলে৷ ডেভিড আর মাইকেল, দুই হাসি ভাই ২২ বলে ৪৭ রান তুলে শেষ চেষ্টা চালিয়েছিলেন৷ কিন্তু ১৪৭ এর জবাবে খেলতে নেমে মাত্র তিন উইকেটে ১৮ বল হাতে রেখে ম্যাচ বের করে নেয় ইংল্যান্ড৷ এর জন্য কৃতিত্ব দুই আফ্রো ব্রিটিশ কেভিন পিটারসেন আর কিসওয়াটারের৷ মাত্র ৬৮ বলে ১১১ রান করে অস্ট্রেলিয়ার কফিনে শেষ পেরেকটা পুঁতে দেন এই দুজনেই৷

ইংরেজদের হাতে এই প্রথম কোন বিশ্বকাপ

একেবারে আনকোরা বিশ্বকাপ৷ ১৯৮৭ সালে ক্রিকেটের সেরা আসরের ফাইনালে উঠেছিল মাইক গ্যাটিং-এর ইংল্যান্ড৷ হয়নি সেবার৷ ৯২ সালে গ্রাহাম গুচের ইংল্যান্ড একটা চেষ্টা করেছিল, সেবারেও হাতছাড়া৷ অবশেষে ২০১০ - এ এসে স্বপ্নপূরণ৷ ক্রিকেট খেলিয়ে দেশগুলির মধ্যে প্রথমসারিতে থেকেও নিজেদের দখলে এই প্রথম কোন বিশ্বকাপ৷ এর স্বাদ অবশ্যই আলাদা৷ তবে, এই বিশ্বকাপ কিন্ত মাত্র কুড়িটি ওভারের খেলা৷ মিনি সংস্করণ৷ ধ্রুপদী ক্রিকেট খেলিয়েরা যাকে তেমন ভাবে পাত্তা দেন না৷ তারপরেও মেনে নিতে হবে, এই মুহূর্তে সেই ছোট পাল্লার ক্রিকেট বিশ্বে এক নম্বর দেশটার নাম হল ইংল্যান্ড৷

অস্ট্রেলিয়ার মেয়েরা কিন্তু টি টোয়েন্টি জিতে নিলেন

ইংরেজিতে বলা হয় ‘আয়রনি'৷ অস্ট্রেলিয় পুরুষরা যেদিন টি টোয়েন্টি ক্রিকেট বিশ্বকাপ হাতে পেয়েও ফস্কালেন, সেই একই দিনে ব্রিজ টাউনে অস্ট্রেলিয়ার মেয়েরা কিন্তু ওই একই টি টোয়েন্টি নারী বিশ্বকাপ জিতে নিলেন নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে৷ শেষ বল পর্যন্ত রুদ্ধশ্বাস লড়াইয়ের পর বিজয় এসেছে অবারিতভাবে৷ এলিজি পেরির শেষ ওভারে তিন উইকেট তুলে নেওয়াটাই হয়ে গেছে অস্ট্রেলিয়ার জন্য টার্নিং পয়েন্ট৷ পুরুষদের খেলা শেষ হওয়ার কয়েক ঘন্টা পরেই মেয়েরা ওই একই টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জিতে নিয়ে অন্তত দেশের দুঃখে কিছুটা হলেও স্বান্তনার প্রলেপ দিতে পেরেছেন৷ এটাই বা কম কি?

প্রতিবেদন:সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়

সম্পাদনা : রিয়াজুল ইসলাম

সংশ্লিষ্ট বিষয়