1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

টিভি ও বেতার সম্প্রচারে ভারত-বাংলাদেশ গাঁটছড়া

সন্ত্রাসবাদ ও মৌলবাদের বিরুদ্ধে নিজেদের অবস্থান তুলে ধরতে গাঁটছড়া বাঁধছে ভারত-বাংলাদেশের সরকারি বেতার ও টেলিভিশন চ্যানেল৷ দিল্লিতে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু ও তথ্য-সম্প্রচার মন্ত্রী ভেঙ্কাইয়া নাইডুর বৈঠকে স্থির হয়৷

নতুন দিল্লির বাংলাদেশ হাই কমিশন থেকে বলা হয়, ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে সন্ত্রাসবাদ এবং মৌলবাদ সম্পর্কে যাতে ঠিক সময়ে সঠিক তথ্যাদি তুলে ধরা যায়, যাতে গুজব ও মিথ্যা খবর প্রচারে জনমনে বিভ্রান্তির সৃষ্টি না হয়, সে জন্যই এ চুক্তি৷ জানা গেছে, উভয় দেশের মধ্যে তথ্যের আদান-প্রদান বাড়াতে এই সমঝোতা-পত্রটি স্বাক্ষরিত হবে খুব শীঘ্রই৷

তিনদিনের দিল্লি সফরে এসে বাংলাদেশের তথ্য মন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এবং ভারতের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ভেঙ্কাইয়া নাইডুর মধ্যে স্থির হয় যে এই ডেটা বিনিময় সংক্রান্ত সমঝোতা-পত্রটি স্বাক্ষরিত হবে৷ এটাই নাকি সন্ত্রাস ও মৌলবাদ মোকাবিলার পাল্টা কৌশল৷ ইনু মনে করেন, এতে মগজ ধোলাইয়ের জন্য প্রচারিত মৌলবাদী ও জঙ্গি মতাদর্শের মোকাবিলা উভয় দেশের পক্ষেই সহজ হবে৷

বাংলাদেশ অবশ্য ইতিমধ্যেই জাকির নায়েকের পিস টিভির সম্প্রচার বন্ধ করে দিয়েছে৷ ঢাকা চায়, দিল্লিও অনুরূপ ব্যবস্থা নিক৷ বাংলাদেশের কাছে ইসলামের ইতিহাস অবিকৃত রেখে ১৯৭১-এর মুক্তিযুদ্ধের বৃত্তান্তকে সংরক্ষিত রাখার যৌথ প্রয়াসে ভারতের অংশগ্রহণ কাম্য, বলেন ইনু৷

জাকির নায়েক

বাংলাদেশ চায় দিল্লিও জাকির নায়েকের পিস টিভির সম্প্রচার বন্ধ করে দিক

বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধের একজন সৈনিক হিসেবে হাসানুল হক ইনু বিশ্বাস করেন যে, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহাসিক ভুল থেকে আজও পাকিস্তানের শিক্ষা হয়নি৷ তাঁর অভিযোগ, এখনও বাংলাদেশে সন্ত্রাসী হামলায় পাকিস্তান মদত দিয়ে চলেছে৷ জামাত আজও পাকিস্তানের মদতে বাংলাদেশে নাশকতা চালাচ্ছে৷ জঙ্গিদের মদতদাতা হিসেবে পাকিস্তানের ভূমিকা সম্পর্কে ভারত ও বাংলাদেশের অবস্থান অভিন্ন৷ তাই যৌথ প্রযোজনায় বাংলাদেশ মু্ক্তিযুদ্ধের একটি তথ্যচিত্র তৈরিতে ভারত-বাংলাদেশ তথ্য মন্ত্রীদ্বয় একমত হন৷ নাইডু বলেন, ভারতের ফিল্ম ডিভিশন, দূরদর্শন এবং অন্যান্য মিডিয়া ইউনিটগুলির মহাফেজখানায় সংরক্ষিত দলিলপত্রগুলো তথ্যচিত্রে ব্যবহার করা হবে৷ এই তথ্যচিত্র ‘রিলিজ' করা হবে ২০২১ সালে, ভারত-বাংলাদেশের কূটনৈতিক সম্পর্কের অর্ধ-শতবার্ষিকীতে৷ এছাড়া দু'দেশের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত হবে বাংলাদেশের জনক শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনী এবং তাঁকে হত্যার ষড়যন্ত্রের নেপথ্য কাহিনি নিয়ে এক মেগা তথ্যচিত্র৷

ছবিটি রিলিজ হওয়ার কথা ২০২০ সালে মুজিবের জন্ম শতবার্ষিকীতে৷ অডিও-ভিস্যুয়ালের যৌথ প্রযোজনা চুক্তির প্রস্তাবেও সম্মত হয়েছেন উভয় মন্ত্রী৷ সম্মত হয়েছেন ভারতের ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন ইনস্টিটিউটে বাংলাদেশের তরুণ ফিল্ম নির্মাতাদের প্রশিক্ষণ দেবার বিষয়েও৷ এছাড়া ভারতে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র উৎসব এবং বাংলাদেশে ভারতীয় চলচ্চিত্র উত্সবের বিষয়েও উভয় মন্ত্রী একমত হয়েছেন বলে শোনা যাচ্ছে৷ বাংলাদেশে ভারতীয় ছায়াছবি প্রদর্শনের ওপর বিধিনিষেধ শিথিল করার অনুরোধ জাননো হলে, ইনু বাংলাদেশ ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রেজের স্বার্থ অক্ষুন্ন রেখে বিষয়টি বিবেচনা করার আশ্বাস দেন৷

অন্যদিকে বাংলাদেশে এবং প্রবাসী বাংলা ভাষাভাষি শ্রোতাদের জন্য আকাশবাণী মৈত্রী চ্যানেল আবার চালু হবার কথা ২৩শে আগস্ট৷ চ্যানেলটির উদ্বোধন করার কথা রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের৷ এছাড়া ১৬ ঘণ্টার এই অনুষ্ঠানে থাকছে মূলত সংবাদ, সংবাদ পর্যালোচনা, রবীন্দ্রসংগীত, নজরুল গীতি এবং বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ইস্যু নিয়ে ভারতের অবস্থানের ওপর সঠিক আলোকপাত৷

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় এই চ্যানেলটির সূচনা হয়েছিল৷ কিন্তু ‘ট্র্যান্সমিটার' খারাপ হয়ে যাবার কারণে ২০১০ সালে তা বন্ধ হয়ে যায়৷ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী গত বছর ঢাকা সফরে গিয়ে দু'দেশের সাংস্কৃতিক বিনিময়ে গতি আনার প্রতিশ্রুতি দেন৷ আকাশবাণীর মহাপরিলকের সূত্র থেকে বলা হয়, সম্প্রতি এ জন্য কলকাতার কাছে চুঁচুড়ায় বসানো হয়েছে একটি উচ্চক্ষমতা সম্পন্ন এক হাজার এলভি-ডিআরএম ট্রান্সমিটার৷ বাংলাদেশের স্থানীয় এফএম চ্যানেলেও অনুষ্ঠানের অংশ বিশেষ প্রচার নিয়ে কথাবার্তা চলছে৷ আকাশবাণীর মহাপরিচালক ফায়াজ শায়েরিয়ার সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে সাংস্কৃতিক বন্ধনের পাশাপাশি, আবেগ, ইতিহাস ও ঐতিহ্যের যে একটা বড় ভূমিকা আছে, সে সম্পর্কে সাধারণ মানুষকে ওয়াকিবহাল করাই এর অন্যতম উদ্দেশ্য৷ এছাড়া ভারতের পররাষ্ট্রনীতিতে বাংলাদেশের গুরুত্বের কথা মাথায় রেখে বিভিন্ন ইস্যুতে ভারতের সঠিক মূল্যায়ন তুলে ধরাও কম গুরুত্বপূর্ণ নয়৷

এই সমঝোতাকে আপনি কীভাবে দেখছেন? জানান আমাদের, লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন