1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

‘টিবেব গার্লস’ ইথিওপিয়ার মেয়েদের আশার আলো দেখাচ্ছে

ইথিওপিয়ায় কমবয়সি মেয়েদের জন্য একটি কমিক সিরিয়াল তৈরি করে পরিবর্তন আনার চেষ্টা করছেন এক নার্স, যিনি পেশায় আজ সমাজ সংস্কারক তথা টেলিভিশন প্রযোজক৷

default

‘টিবেব গার্লস’এর চরিত্র

আদ্দিস আবাবার বিভিন্ন স্কুলের ছাত্রীদের ‘টিবেব গার্লস’ কমিক সিরিজের প্রথম এপিসোডটি দেখানো হচ্ছে৷ আমহারিক ভাষায় টিবেব কথাটির অর্থ হল জ্ঞান বা বিজ্ঞতা৷ সিরিয়ালটিতে তিনজন অতি বুদ্ধিমতী নায়িকা মেয়েদের সমানাধিকারের জন্য লড়াই করছে৷

‘টিবেব গার্লস’-এর স্রষ্টা ব্রুকটাউইট টিগাবু জানালেন, ‘‘ইথিওপিয়ার প্রতি পাঁচটি মেয়ের মধ্যে একজনের ১৫ বছর বয়স হবার আগেই বিয়ে হয়ে যায় আর তাদের অধিকাংশই আর কখনো স্কুলে ফিরে আসে না৷ এর অর্থ, তারা জীবনে সফল হবার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয়৷’’

‘টিবেব গার্লস’ এই পরিস্থিতি বদলাতে চায়৷ প্রোগ্রামটির উদ্ভাবকরা চান যে, ছোট ছোট মেয়েরা সিরিয়ালটির মধ্যে নিজেদের আশা-আকাঙ্ক্ষা-বেদনাকে খুঁজে পাক৷ কাজেই পাইলট এপিসোডগুলি প্রথমে স্থানীয় স্কুলগুলিতে দেখিয়ে যাচাই করা হয়, মেয়েদের সেটা ভালো লাগল কিনা৷ প্রকল্পের কর্মী ও জনস্বাস্থ্য বিষয়ের ছাত্রী রুথ ইটবারেক জানালেন, ‘‘আমরা ইথিওপিয়ার বিভিন্ন এলাকায় একই কাজ করছি৷ সেখানেও দেখা যায় অনেক মেয়ে কাঁদছে, কেননা তারা জানে সিরিয়ালের মেয়েটি কী কষ্ট সহ্য করেছে৷ আর তারা সেটা জানে বলেই, তার সঙ্গে একাত্ম বোধ করে৷’’

ভিডিও দেখুন 03:56

মেয়েদের আশার আলো দেখাচ্ছে কমিক সিরিয়াল

সিরিয়াল দেখার পর মেয়েদের লিখে রাখতে হয়, তাদের কী ভালো লেগেছে অথবা লাগেনি, আর গল্পটা কীভাবে এগোলে তাদের ভালো লাগবে৷ ১২ বছর বয়সের এডলাউইট বলল, ‘‘আমার খুব ভালো লেগেছে, কেননা সিরিয়ালটা মেয়েদের সমস্যা নিয়ে৷ আমি এরকম আগে কখনো দেখিনি৷’’

কমবয়সি মেয়েদের দুরবস্থা আর উপেক্ষা করতে পারেননি

‘টিবেব গার্লস’-এর স্রষ্টা হলেন ব্রুকটাউইট টিগাবু৷ পেশায় নার্স হলেও তিনি বলেন যে, তিনি ইথিওপিয়ায় কমবয়সি মেয়েদের দুরবস্থা আর উপেক্ষা করতে পারেননি৷ তিনি শোনালেন সেই কাহিনী: ‘‘কাজেই আমি ভাবলাম, আমি এতো বড় সমস্যাটার সমাধান করব কী করে? স্বভাবতই আমি সর্বত্র কিন্ডারগার্টেন তৈরি করতে পারি না; কাজেই আমি ভাবতে শুরু করলাম – কীভাবে আমি আমার দেশের লক্ষ লক্ষ ছেলেমেয়েদের কম খরচে উচ্চমানের শিক্ষা দিতে পারি৷’’

ব্রুকটাউইট ইতিমধ্যেই তিনটি সফল রেডিও ও টেলিভিশন সিরিজ প্রযোজনা করেছেন, যেগুলি ইথিওপিয়া জুড়ে ছেলেমেয়েদের জ্ঞান বাড়িয়েছে, কিন্তু সেই সঙ্গে মজাও দিয়েছে৷ ‘টিবেব গার্লস’ আরেকটি সফল সিরিজ হয়ে সামাজিক বাধানিষেধকে চ্যালেঞ্জ করবে বলে তাঁর আশা৷ তিনি জানেন, ‘টিবেব গার্লস'-এর সাফল্যের কারণ কি:-

‘‘আমরা শিশু বিবাহ নিষেধের মতো কড়া বিষয় দিয়ে শুরু করেছি বটে – কিন্তু কার্টুনের একটা আশ্চর্য ক্ষমতা আছে৷ কার্টুন বলে, ও গল্পকাহিনি বলে, মানুষ তা দূর থেকে দেখতে পারে, তা নিয়ে স্বচ্ছন্দে কথা বলতে পারে – আর সেটাই আমরা চাই৷ বিষয়টি নিয়ে কথা বলা হল প্রথম পদক্ষেপ৷’’

তবে তিনি স্বীকার করলেন যে,‘‘মাঝেমধ্যে আমি হতাশ হয়ে পড়ি৷ এটুকু করতে আমার দশ বছর লাগা উচিৎ হয়নি, আমার আরো বেশি শিশুর কাছে পৌঁছানো উচিৎ ছিল, এতোদিনে আমার গোটা পূর্ব আফ্রিকা ছেয়ে ফেলা উচিত ছিল – এতো দেরি হয়ে যাওয়ার কারণ বড় বেশি আমলাতন্ত্র, পৃষ্ঠপোষকতার অভাব, দৈনন্দিন নানা বাধাবিপত্তি৷’’

টিভি প্রোগ্রামগুলি ডিস্ট্রিবিউট করা খুবই শক্ত আর অর্থবলও বেশি নেই৷ সামাজিক উদ্যোগ ইথিওপিয়ায় আজও প্রচলিত নয়৷ব্রুকটাউইট-এর ভাষ্যে: ‘‘সরকারের নীতি আমাদের সাহায্য করে না, কেননা আমাদের আজও ব্যবসায়ী বলে গণ্য করা হয়৷ কাজেই আমাদের একই রকম কর দিতে হয় – যার অর্থ, আমাদের ভেবেচিন্তে বিনিয়োগ করতে হয়৷ আমাদের সামর্থ্য কম, কিন্তু কর্তব্য অনেক৷’’

কিন্তু ‘টিবেব গার্লস’-এর পেছনে যে দলটি রয়েছে, তার সদস্যরা সাহসী ও অনুপ্রাণিত৷ বাধা দেখলে হাল ছাড়ার পাত্র তারা নন৷ টিভি সম্প্রচারকদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা চলেছে৷

এফা বায়ার/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও