ঝুঁকিপূর্ণ ভবন লক্ষাধিক, ভাঙার নির্দেশ আটটি | বিশ্ব | DW | 07.06.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ঝুঁকিপূর্ণ ভবন লক্ষাধিক, ভাঙার নির্দেশ আটটি

ঢাকায় ভবন ধস রোধে এবার সক্রিয় সরকার৷ ইতিমধ্যে আটটি বাড়ি ভাঙার নির্দেশ দেয়া হয়েছে৷ তবে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের সংখ্যা নাকি লক্ষাধিক৷ আর তাই, কয়টি ভবন সরকার ভাঙবে তা নিয়ে প্রশ্ন জনমনে৷

default

ফাইল ফটো

ভবনধস রোধে সরকারের উদ্যোগ

দৈনিক প্রথম আলো সোমবার মূল প্রতিবেদন করেছে ঠিক এই বিষয়টি নিয়ে৷ শিরোনাম, ‘‘আট বাড়ি ভাঙার নির্দেশ''৷ পত্রিকাটির কথায়, ঢাকার নাখালপাড়ায় হেলে পড়া চারতলা বাড়ি এবং তেজগাঁওয়ের বেগুনবাড়ি এলাকার সাততলা ভবনসহ আশপাশের আটটি ঝুঁকিপূর্ণ বাড়ি ভেঙে ফেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার৷ ইতিমধ্যে এসব বাড়ির মালিকদের এ সিদ্ধান্তের কথা চিঠি দিয়ে জানানো হয়েছে৷

তবে দৈনিক ইত্তেফাক জানাচ্ছে আরো ভয়াবহ খবর৷ শিরোনাম, রাজধানীতে লক্ষাধিক ঝুঁকিপূর্ণ ভবন৷ অনুসন্ধানী এই প্রতিবদনে বলা হচ্ছে, ঢাকা ও আশেপাশের এলাকায় প্রায় লক্ষধিক ঝুঁকিপূর্ণ ভবন রয়েছে৷ এরমধ্যে শুধু পুরনো ঢাকায় রয়েছে ২৫ হাজার ঝুঁকিপূর্ণ বাড়ি৷

নিমতলীর অগ্নিকান্ড

প্রায় সব পত্রিকাই বিষয়টি নিয়ে খবর প্রকাশ করেছে৷ রবিবার নিমতলীর অগ্নিকান্ডে দগ্ধ আরেক শিশু প্রাণ হারায়৷ তবে, পত্রিকাগুলো মূলত মানবিক প্রতিবেদনকেই প্রাধান্য দিয়েছে৷ উল্লেখ্য, গত ৩রা জুন রাতে নিমতলীতে অগ্নিকান্ডে এক বিয়ের অনুষ্ঠানেই মারা যান বেশ কয়েকজন৷ ফলে পন্ড হয় বিয়ে৷ তবে, বেঁচে যান বর-কনে৷ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী এই জুটির বিয়ের দায়িত্ব নিয়েছেন এবং সরকারি গণভবনে তাদের বিয়ের অনুষ্ঠান করা হবে৷ দৈনিক কালেরকন্ঠসহ কয়েকটি পত্রিকা জানিয়েছে এই খবর৷ এছাড়া এই অগ্নিকান্ডে নিহত দুই বোনকে নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে বিডিনিউজটোয়েন্টিফোর ডট কম৷ শিরোনাম, ‘‘মাঠ জুড়ে ছুটে বেড়াবে না প্রিয় দুই মুখ''৷

৭ই জুন, ৬ দফা দিবস

দৈনিক সমকাল শিরোনাম করেছে, ‘‘ঐতিহাসিক ৭ জুন আজ''৷ ১৯৬৬ সালের এই দিনে আওয়ামী লীগ পূর্ব পাকিস্তানের স্বায়ত্তশাসন তথা ৬ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে হরতাল ডেকেছিল৷ সেদিন এ হরতাল বানচাল করতে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জে পুলিশ মিছিলে গুলিবর্ষণ করে৷ পুলিশের গুলিতে শ্রমিক নেতা মনু মিয়া ও ওয়াজিউল্লাহসহ ১৩ জন প্রাণ হারান৷ আহত হন অনেকে৷ প্রায় সব পত্রিকাই এই দিনটি উপলক্ষ্যে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে৷

গ্রন্থনা: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সংশ্লিষ্ট বিষয়