1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ঝড়ের পরেও বিপর্যস্ত ফিলিপাইন্স

‘হাইয়ান’ আঘাত হানার বেশ কয়েক দিন পরেও ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার পরিস্থিতির তেমন উন্নতি হচ্ছে না৷ অবকাঠামোর অভাব ও অব্যবস্থার কারণে ত্রাণ ক্ষতিগ্রস্তদের কাছে পৌঁছাতে পারছে না৷ মানুষের ক্ষোভও বেড়ে চলেছে৷

ফিলিপাইন্সে বিধ্বংসী ঝড় ‘হাইয়ান'-এর দাপটে হতাহতের সংখ্যা সম্পর্কে এখনো স্পষ্ট চিত্র পাওয়া যাচ্ছে না৷ দেশের জাতীয় বিপর্যয় ত্রাণ সংস্থার সূত্র অনুযায়ী বুধবার সকালে মৃতের সংখ্যা ২,২৭৫ ছাড়িয়ে গেছে৷ আহতের সংখ্যা ৩,৬৬৫-রও বেশি৷ অন্যান্য সূত্রে হতাহতের সংখ্যা অনেক বেশি বলে মনে করা হচ্ছে৷ জাতিসংঘের অনুমান, শুধু টাকলোবানেই ১০,০০০-এরও বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছে৷ লেইটে ও সামার প্রদেশই সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে৷

epa03946193 A Filipino kid holding a bottle of water walks under the rain in the super typhoon devastated city of Tacloban, Leyte province, Philippines, 12 November 2013. International aid poured in for the Philippines as authorities stepped up efforts to reach survivors driven to looting after one of the world_s strongest typhoons devastated their towns. A tropical depression brought heavy rains over the central and eastern Philippines, where provinces badly hit by Haiyan are located, raising concerns that relief operations would be hampered. EPA/FRANCIS R. MALASIG

এই শিশুটির কান্না কি শুনতে পারছেন আপনি?

দ্বীপরাষ্ট্র ফিলিপাইন্সে বিপর্যয়ের পর অবকাঠামো এতটাই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে যে, ত্রাণকাজে পদে-পদে সমস্যা দেখা যাচ্ছে৷ সেই সঙ্গে চলছে অরাজকতা৷ টাকলোবান শহরের কাছে উন্মত্ত জনতা একটি গুদাম থেকে চাল লুট করার চেষ্টা করছিল৷ মানুষের চাপে একটি দেয়াল ভেঙে গেলে কমপক্ষে ৮ জন প্রাণ হারিয়েছে৷ পুলিশ ও নিরাপত্তা রক্ষীরা গুদাম পাহারা দিলেও এত সংখ্যক মানুষকে আটকানো সম্ভব হয় নি৷ প্রায় ৫০ কিলো ওজনের কমপক্ষে ১২৯,০০০ চালের বস্তা লুট করা হয় বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে৷

গোটা বিশ্ব থেকে ফিলিপাইন্সে ত্রাণ এসে পৌঁছচ্ছে৷ কিন্তু সেনাবাহিনী মোতায়েন করেও কর্তৃপক্ষ ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের কাছে দ্রুত সাহায্য পৌঁছাতে পারছে না৷ ফলে ক্ষোভ বাড়ছে৷ প্রেসিডেন্ট বেনিগনো অ্যাকুইনো গোটা দেশে জরুরি বিপর্যয় পরিস্থিতি ঘোষণা করা সত্ত্বেও সমস্যা রয়ে গেছে৷

আন্তর্জাতিক দাতারা এখনো পর্যন্ত সব মিলিয়ে প্রায় সাড়ে পাঁচ কোটি ডলারের সাহায্যের অঙ্গীকার করেছে৷ ইউরোপীয় ইউনিয়ন প্রথমে ৩০ লক্ষ ইউরো পাঠিয়েছিল৷ পুনর্বাসনের জন্য আরও ১ কোটি ইউরো পাঠানো হচ্ছে৷ জার্মানির সাহায্যের অঙ্কও বেড়ে চলেছে৷ জার্মান সরকার ১০ লক্ষ ইউরো সাহায্যের ঘোষণা করেছে৷

ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় মানুষ নানা রকম সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে৷ সাধারণ মানুষের অনাহার, রোগের প্রকোপ থেকে শুরু করে ত্রাণ কর্মীদের অবসাদের মতো অনেক ঘটনার কথা জানা যাচ্ছে৷ সরকার তাদের সমস্যার প্রতি যথেষ্ট মনোযোগ দিচ্ছে না বলেও সমালোচনা শোনা যাচ্ছে৷ অনেক মানুষ নিজেদের ভাঙা বাড়িঘর ছেড়ে চলে যেতে প্রস্তুত নয়৷ অনেকের অন্য কোনো আশ্রয় নেই, বাকিরা নিজেদের ভিটেমাটি আগলে রাখতে চায়৷ ক্ষতিগ্রস্ত পথঘাট মেরামতির কাজ শুরু হয়েছে৷ ক্ষতিগ্রস্ত অঞ্চলগুলির সঙ্গে বিমান যোগাযোগও ধীরে ধীরে আবার চালু হচ্ছে৷

এসবি/ডিজি (ডিপিএ,এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন