1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

জেলখানায় ফ্যাশন শো, কয়েদিরাই মডেল!

সব অপরাধী চিরকাল অপরাধী থাকে না৷ নিজেকে সংশোধনের সুযোগ পেলে সমাজে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হতে পারেন অনেকেই৷ ইসরায়েলের এক জেলখানার কয়েদিরা সে'সুযোগই পেয়েছেন৷ মডেলদের মতো ‘ক্যাটওয়াক' করে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন তাঁরা৷

Bildergalerie Großbritannien Mode London Fashion Week Spring/Summer 2015

প্রতীকী ছবি

সোমবার দারুণ এক ফ্যাশন শো হয়ে গেল নেভে তিরজা জেলখানায়৷ ব্যতিক্রমী এ আয়োজনে বলতে গেলে সব কাজই করেছেন মেয়েরা, যাঁদের বেশিরভাগই কয়েদি৷ বিভিন্ন ধরণের অপরাধকর্ম করার কারণেই তাঁদের নেভে তিরজায় আগমন৷ কিন্তু মেয়েদের জন্য ইসরায়েলের একমাত্র এই জেলখানা কয়েদিদের চিরকালের জন্য অপরাধী হিসেবে দেখতে চায় না৷ যাঁর যে কাজে মেধা আছে জেলজীবন শেষে তাঁরা সেরকম কোনো কাজ করে গৌরবজনক জীবন শুরু করুক – তা-ই চায় জেল কর্তৃপক্ষ৷ সেই চাওয়া থেকেই কয়েদিদের নিয়ে ফ্যাশন শো-র আয়োজন, তাও আবার তাঁদের তৈরি পোশাক দিয়েই৷

অভিনব এই ফ্যাশন শো-কে সফল করে তুলতে বেশ আগে থেকেই কাজ শুরু করেছিল ইসরায়েলের ফ্যাশন স্কুল স্টুডিয়ো সিক্স-বি৷ স্কুলের ব্যবস্থাপক ইয়ানিভ শোয়ারৎজ জানালেন, তাঁদের দায়িত্ব ছিল মূলত ফ্যাশন শো-র প্রত্যেকটি ধাপের কাজে কয়েদিদের দক্ষ করে তোলা৷

Italien Silvio Berlusconi Zahnpflegerin Nicole Minetti

মডেলের ভূমিকায় কয়েদি (প্রতীকী ছবি)

সে দায়িত্ব তাঁরা ভালোভাবেই পালন করেছেন৷ তাঁদের কাছে প্রশিক্ষণ পেয়ে দারুণ সব পোশাক তৈরি করেছেন কয়েদিরা, সে পোশাক পরে লাল গালিচার ওপর পেশাদার মডেলদের মতো ক্যাটওয়াকও করেছেন তাঁরা৷ এমনকি ক্যাটওয়াক শুরুর আগে সবার হেয়ারস্টাইলও ঠিক করেছেন কয়েদিরা!

একদিনের ক্যাটওয়াকই শেষ নয়৷ জেলকর্তৃপক্ষ চায়, কারাবাসের সময় ফুরোলে কয়েদিরা মুক্ত জীবনটাকে নতুন করে শুরু করুক৷ তখন অপরাধীর জীবন হয়ে যাবে অতীত৷ সমাজের আর দশটা মানুষের মতো তাঁরাও সৎভাবে জীবনযাপন করবেন, অর্থ উপার্জন করবেন কাজ করে৷ নেভে তিরজা থেকে বের হয়ে ইতিমধ্যেই কয়েকজন এমন জীবন শুরু করেছেন৷ জেলখানার মুখপাত্র নিকোল ইংল্যান্ডার বেশ গর্ব করে জানালেন একজনের কথা৷ কয়েকদিন আগেও নেভে তিরজার কয়েদি ছিল একটি মেয়ে৷ জেলে থাকতেই ডিজাইনিংয়ের ওপর পড়াশোনা শুরু করেছিল৷ কারামু্ক্তির পরও নাকি মেয়েটি লেখাপড়া চালিয়ে যাচ্ছে!

এসিবি/ডিজি (এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন