1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

জেব্রা মাছের ডোরা আসে কোথা থেকে?

জেব্রা মাছ বা ডোরাকাটা মাছ আমাদের অনেকের পরিচিত, বিশেষ করে যাঁরা অ্যাকোয়ারিয়ামে মাছ পোষেন, তাঁদের৷ কিন্তু এই ‘জেব্রা দানিও’ যে একটি ‘মডেল অরগ্যানিজম’ বা ‘আদর্শ প্রাণিসত্তা’, তা কি জানতেন?

ডোরাকাটা ‘জেব্রা দানিও' অ্যাকোয়ারিয়ামের মাছ হিসেবে খুবই জনপ্রিয়৷ মাছটির বাস হিমালয় পর্বতমালার দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের নদী ও ঝর্ণাগুলিতে৷ আবার বৈজ্ঞানিক গবেষণাতেও এদের ব্যবহার করা হয়, যেমন জার্মানির ট্যুবিঙেন শহরের একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠানে৷

মনুষ্যদেহের বিকাশ বোঝার জন্য পরীক্ষাগারে এই জেব্রা মাছ পর্যবেক্ষণ করা হয়: ট্যুরিঙেন শহরে মাক্স প্লাঙ্ক ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা ঠিক যা করছেন৷ ১৯৯৫ সালে চিকিৎসাবিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ক্রিস্টিয়ানে ন্যুসলাইন-ফলহার্ড এখানেই কাজ করেন৷ তিনিই প্রথম আবিষ্কার করেন যে, মানুষ এবং অপরাপর প্রজাতির জীবদের সঙ্গে জেব্রা মাছের অনেক সাদৃশ্য আছে, যে কারণে জেব্রা মাছকে ‘মডেল অরগ্যানিজম' বা আদর্শ প্রাণিসত্তা বলে গণ্য করা হয়৷ ক্রিস্টিয়ানে ন্যুসলাইন-ফলহার্ড বলেন:

‘‘মাছেরা মেরুদণ্ডী প্রাণী, কাজেই মেরুদণ্ডী প্রাণীদের যাবতীয় বুনিয়াদী প্রণালী মাছেদের মধ্যেও দেখা যায়৷ শরীরের বিপাকের শক্তি কিংবা হজমশক্তি, কিংবা রক্ত অথবা হৃৎপিণ্ড, জেব্রা মাছে এ সব বুনিয়াদী প্রক্রিয়া খুঁটিয়ে দেখা যায়, যার পর প্রশ্ন জাগে: ‘এগুলো কি মানুষের মধ্যে এক, না আলাদা?' মানুষকে দিয়ে কাজ শুরু না করে প্রথমে জেব্রা মাছ নিয়ে কাজ করার সুবিধেটা হলো সেখানে৷''

ল্যাবোরেটরিতে

গত এক দশক ধরে মাক্স প্লাঙ্ক ইনস্টিটিউট ফর ডেভেলপমেন্টাল বায়োলজি-র গবেষকরা অনুসন্ধান করে দেখছেন, জেব্রা মাছেরা তাদের ডোরাগুলো পায় কোথা থেকে৷ জীবদেহের মলিকিউলের অনুসন্ধান অথবা বিশ্লেষণের জন্য গবেষকরা মাছের ভ্রূণে ফ্লুরোসেন্ট প্রোটিন ঢুকিয়ে দেন, যা আলো বিকিরণ করে৷ ল্যাব ম্যানেজার ব্রিগিটে ভাল্ডারিশ বলেন:

‘‘আমি কোষ প্রতিস্থাপন করছি, অর্থাৎ আমি দাতা ভ্রূণগুলিতে একটি ফ্লুরোসেন্ট মার্কার দিয়েছি৷ এই দাতা ভ্রূণগুলি গ্রহীতা ভ্রূণের অংশ হয়ে যাচ্ছে এবং সেই গ্রহীতা ভ্রূণের মধ্যেই বেড়ে উঠছে৷ এই পদ্ধতিতে আমি বাড়ন্ত ভ্রূণগুলিতে এক-একটি কোষের খোঁজ রাখতে পারছি সেগুলি বড় হয়ে ওঠা পর্যন্ত৷''

বিকাশের সূচনায় যখন কোষগুলির অভিবাসন শুরু হয়, তখন সেগুলোকে নীল থেকে অতিবেগুনি রশ্মির আলোয় সবুজ দেখায়৷ গবেষকরা এই কোষ অভিবাসন পর্যবেক্ষণ করে জীবদেহের বিভিন্ন প্রক্রিয়া সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারেন, যেমন ক্ষতের নিরাময় পদ্ধতি৷ ক্রিস্টিয়ানে ন্যুসলাইন-ফলহার্ড ব্যাখ্যা করলেন:

‘‘প্রাথমিক বিকাশের সময় কোষগুলোর টাইম-ল্যাপ্স সিকোয়েন্সে ছবি তুললে দেখা যায়, কী ভাবে হৃৎপিণ্ড তৈরি হচ্ছে, পেশিগুলো কী ভাবে তৈরি হচ্ছে, ধমনীতে কী ভাবে রক্ত বইছে৷ ইঁদুর নিয়ে পরীক্ষায় এ সব করা যায় না, কেননা তাদের ভ্রূণগুলো মাতৃদেহে খুব ভালোভাবে লুকনো থাকে৷ মাছেরা ডিম পাড়ে, কাজেই মাইক্রোস্কোপের নীচে এ সব দেখা সম্ভব৷''

ময়ূরের পেখম, সাদা বাঘ ও ডোরাকাটা মাছ

ডেভেলপমেন্টাল বায়োলজি বা জীবদেহের বিকাশ সংক্রান্ত বিজ্ঞানে এখনও একটি প্রশ্নের জবাব পাওয়া যায়নি: জেব্রা মাছের নিকটাত্মীয়দেরও অন্যরকম দেখতে কেন? একই পূর্বপুরুষ থেকে যাদের উৎপত্তি, তারা নানা ধরনের রং ও নকশা পায় কোথা থেকে? জীববৈচিত্র্যে এই প্রক্রিয়ার ভূমিকা কী? আবার ক্রিস্টিয়ানে ন্যুসলাইন-ফলহার্ড:

‘‘আমরা এখনও বুঝে উঠতে পারিনি, ময়ূর তার ছটা পায় কোথা থেকে, তার পেখম, তার বর্ণালী৷ এ রহস্যের সমাধান হয়ত আমরা কখনোই করতে পারব না, কেননা ময়ূরদের পর্যবেক্ষণ করা সোজা কাজ নয় – যেমন সাদা বাঘদের পর্যবেক্ষণ করা আরো কঠিন!''

গবেষকরা ইতিমধ্যে আবিষ্কার করে ফেলেছেন যে, সাদা বাঘরা সাদা হয় একটি জেনেটিক মিউটেশন বা জিন-গত রূপান্তর থেকে৷ মানুষ ও জীবজন্তুর অ্যালবিনিজম-এর ব্যাখ্যাও তাই৷ কে জানে, হয়ত দীন-হীন জেব্রা মাছ একদিন ময়ূরের পেখম তোলার রহস্যও ভেদ করতে সাহায্য করবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক