1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

জেনেটিক ত্রুটি এড়াতে আগাম ব্যবস্থা

জিনবাহিত রোগের কারণে জন্মের আগে, জন্মের সময় বা জন্মের পরে অনেক শিশু মারাত্মক পরিণতির শিকার হয়৷ প্রচলিত চিকিৎসা পদ্ধতির মাধ্যমে এমন ত্রুটি প্রতিরোধ করা সম্ভব নয়৷ কিন্তু ভ্রূণ অবস্থাতেই ত্রুটিপূর্ণ জিন আলাদা করা সম্ভব৷

ইমপ্লান্টেশনের আগে রোগনির্ণয়ের ক্ষেত্রে কঠিন জেনেটিক রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব৷ এর জন্য ভ্রূণের জিন পরীক্ষা করতে হয়৷

জার্মানির ল্যুবেক শহরের বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের ডাক্তাররা এই প্রথম এই প্রক্রিয়া প্রয়োগের সুযোগ পাচ্ছেন৷ বাবা-মায়ের জেনেটিক সমস্যা থাকলে এখনো পর্যন্ত শুধু মায়ের ডিম্বকোষ পরীক্ষা করা সম্ভব ছিল৷ ল্যুবেক শহরের বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের অধ্যাপক ড. গেয়র্গ গ্রিসিঙার বলেন, ‘‘পোলার বডি ডায়গনিস্টিকস নামের এই পদ্ধতির সমস্যা হলো, এ ক্ষেত্রে শুধু ডিম্বকোষ – অর্থাৎ শুধু মায়ের জেনেটিক অংশ পরীক্ষা করা যায়৷ কিন্তু বাবার দিকে কোনো ত্রুটি থাকলে তা ধরা পড়ে না৷ ফলে শুধু ডিম্বাশয় নয়, ভ্রূণের পরীক্ষা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ৷''

ভিডিও দেখুন 03:58

জেনেটিক ত্রুটি এড়াতে আগাম ব্যবস্থা

কিন্তু জার্মানিতে ভ্রূণের উপর কোনোরকম পরীক্ষার ক্ষেত্রে কড়া আইন রয়েছে৷ ডিম্বকোষের ক্ষেত্রে যা অনেকটা শিথিল৷ ড. গ্রিসিঙার বলেন, ‘‘তথাকথিত ‘পোলার বডি' হলো ডিম্বাশয়ের কোষ বিভাজনের বর্জ্য পদার্থ৷ এই আস্তরণ খোলা হয়, তারপর ছোট ‘পোলার বডি' বার করে নেওয়া হয়৷ এই ‘পোলার বডি' ডিম্বকোষের জেনেটিক গঠনের প্রতিচ্ছবি৷ অর্থাৎ ডিম্বকোষের আর সেটির প্রয়োজন পড়ে না৷ তাই সেটি বার করে নিয়ে আমরা পরীক্ষা করবো এবং ডিম্বকোষের গঠন সম্পর্কে জানতে পারবো৷''

ভ্রূণ সুরক্ষা আইনে পরিবর্তনের কল্যাণে ড. গ্রিসিঙার ২০১৪ সালের মার্চ মাস থেকে ভ্রূণ পরীক্ষা করার অধিকার পেয়েছেন৷

বাবা-মায়ের জিনের কারণে শিশুর কঠিন রোগ অথবা জন্মের সময় বা তার আগে শিশুর মৃত্যুর সম্ভাবনা বেশি হলে তবেই এটা করা যায়৷ একমাত্র কৃত্রিম ফার্টিলাইজেশন প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রেই এই পদ্ধতি প্রয়োগ করা সম্ভব৷ ড. গ্রিসিঙার বলেন, ‘‘ইমপ্লান্টেশনের আগে রোগনির্ণয়ের বিশেষত্বই হলো এই, যে একদিকে কৃত্রিম প্রজনন করতে হবে৷ অর্থাৎ হরমোন চিকিৎসার পর মায়ের ডিম্বাশয় থেকে ডিম্বকোষ বার করে নেওয়া হয়৷ তারপর মায়ের ডিম্বকোষ আর বাবার অণ্ডকোষ টেস্ট টিউবে কৃত্রিমভাবে প্রজনন করা হয়, যাতে বেশ কয়েকটি প্রাথমিক মানব-ভ্রূণ সৃষ্টি হয়৷''

তৃতীয় দিনে ডাক্তাররা ভ্রূণ থেকে কয়েকটি কোষ বার করে নিয়ে বিশ্লেষণ করেন৷ ড. গ্রিসিঙার বলেন, ‘‘যেমনটা দেখা যাচ্ছে, লেজার দিয়ে এমনভাবে কাটা হচ্ছে, যাতে সাকশান পাইপেটের মধ্যে কোষগুলি সত্যি আলাদা করা যায়৷ অন্যটা ভ্রূণের বাকি অংশ৷''

এই প্রক্রিয়ার লক্ষ্য হলো, বিশেষ কিছু বিচ্ছিন্ন জিন আবিষ্কার করা, যে গুলি সিস্টিক ফাইব্রোসিস-এর মতো কঠিন রোগের জন্য দায়ী৷ অসুস্থ ভ্রূণ আলাদা করা হয় এবং সুস্থ ভ্রূণ নারীর জরায়ুতে স্থাপন করা হয়৷

কিন্তু এই পথ সহজ নয়৷ কারণ মূল চিকিৎসার আগে প্রতিটি জেনেটিক রোগের জন্য ডাক্তারদের আলাদা পরীক্ষার প্রক্রিয়া তৈরি করতে হয়৷ ড. গ্রিসিঙার বলেন, ‘‘অর্থাৎ কেস কঠিন হলে বিশেষ এই দম্পতির জন্য আলাদা টেস্ট তৈরি করতে হবে৷ এটা একটা প্রযুক্তিগত চ্যালেঞ্জ এবং এর জন্য চাই যথেষ্ট লোকবল৷ এর জন্য কয়েক মাস সময়ও লাগতে পারে৷''

ইংল্যান্ডের মতো দেশে গত শতাব্দীর নব্বইয়ের দশক থেকে এই প্রক্রিয়ার অনুমতি রয়েছে৷ অন্যদিকে জার্মানিতে বিষয়টি নিয়ে নৈতিক বিতর্ক চলছে৷ কারণ এক্ষেত্রে মানুষই জন্ম-মৃত্যু সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নিচ্ছে, অসুস্থ ভ্রুণ সরিয়ে দিচ্ছে৷ ড. গ্রিসিঙার বলেন, ‘‘কঠিন রোগ কাকে বলে, সেটাও একটা কঠিন প্রশ্ন৷ বিশেষজ্ঞরা অবশ্য এই বিষয়ে একমত যে, কোনো তালিকার মাধ্যমে তা নির্ণয় করা চলে না৷ একটি রোগ কঠিন, অন্যটি নয় – এমনটা বলা যায় না৷ প্রতিটি ক্ষেত্রে বিচার-বিবেচনা করে সেটি স্থির করতে হয়৷''

ভবিষ্যতে নৈতিকতা বিষয়ক কমিশন প্রতিটি কেস পরীক্ষা করে দেখবে৷ একমাত্র তাদের সম্মতি পেলেই ডাক্তাররা ভ্রূণ নিয়ে কাজ করতে পারবেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়