1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

জীবনের জন্য রক্ত পরিশোধন পদ্ধতি ‘ডায়ালিসিস'

কিডনির কাজ হলো শরীরের বিষাক্ত পদার্থ মূত্রের মাধ্যমে বের করে দেওয়া৷ এছাড়া শরীরে পানি ও লবণের ভারসাম্য রক্ষা করে কিডনি৷ আর এই অঙ্গটি অচল হয় পড়লে ডায়ালিসিস ছাড়া জীবন রক্ষার আর কোনো উপায় থাকে না৷

৪০ বছর ধরে ভিলি কোলার ডায়ালিসিসে আবদ্ধ৷ সপ্তাহে তিনদিন তাঁকে ডায়ালিসিস নিতে হয়৷ প্রতিবার আট ঘণ্টা৷ তাঁর কিডনি যে কাজটি করতে পারে না, সেটির ভার নেয় মেশিন৷ পরিশোধন করে রক্ত৷

প্রেরণা জাগায় ডায়ালিসিস

১৫ বছর বয়সে ডাক্তার জানান যে তাঁর কিডনির মাত্র ছয় মাস কাজ করতে পারবে৷ এটা রীতিমত একটা ‘শক' ছিল, বলেন ভিলি কোলার৷ প্রথম দিকে হাল ছেড়ে দিয়েছিলেন তিনি৷ নিজের ঘরে মন খারাপ করে বসে থাকতেন৷ কিন্তু কিছুদিন পর উঠে দাঁড়ান৷ ‘‘জীবন তো এগিয়ে যাবে৷ ডায়ালিসিস তো মৃত্যর পরোয়ানা নয়৷ বরং উল্টোটাই৷ আমি খুব শিগগরই বুঝতে পারি, এই মেশিনই আমার জীবন রক্ষা করবে৷ যা আসলে ইতিবাচক'', বলেন ভিলি কোলার৷

রক্ত শুধু পুষ্টিকর পদার্থই নয় বিষাক্ত পদার্থও পরিবহণ করে৷ কিডনি এই বিষাক্ত পদার্থ ফিল্টার করে এবং তা প্রস্রাব হয়ে শরীর থেকে বের হয়ে যায়৷

যাদের কিডনি ঠিক মতো কাজ করে না, যেমন ভিলি কোলারের মতো মানুষদের বেলায় সেই কাজটি করে থাকে ডায়ালিসিস মেশিন৷ রোগীর শরীর থেকে রক্ত একটি নলের মাধ্যমে ডায়ালিসিস মেশিনে আনা হয়৷ সেখানে বিষাক্ত পদার্থ আলাদা করা হয়, যা মূত্র আকারে বের হয়ে যায়৷ অন্যদিকে পরিশোধিত রক্ত আবার শরীরে ঢোকানো হয়৷ এইভাবে সপ্তাহে তিনবার রক্তশোধন করা হয়৷

Symbolbild Tierversuche

ডায়ালিসিস করার সময় একটি সুঁই শিরার ভেতর দিয়ে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়

কিডনি রোগীর সংখ্যা কম নয়

জার্মানিতে প্রায় ৮০০০০ ডায়ালিসিস রোগী রয়েছেন৷ ৮৫ থেকে ৯০ শতাংশ রোগী ডায়ালিসিস কেন্দ্রে গিয়ে রক্তশোধন করান৷ অল্পসংখ্যক রোগী বাড়িতেই এই কাজটা সারেন৷

ভিলি কোলারও কিছুদিন বাড়িতে ডায়ালিসিস করেছেন৷ কিন্তু তাঁর মতে এতে সুবিধার চেয়ে অসুবিধাই বেশি৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘বাড়িতে ডায়ালিসিস করলে সবকিছুই নিজের করতে হয়৷ শিরায় সুঁই ফোটাতে হয়৷ এই কাজটা আবার নিজে করা যায় না, প্রয়োজন হয় অন্যের সাহায্য৷ তাই স্বামী বা স্ত্রীর ওপর চাপ পড়ে৷''

কোলারের কাছে এটা অস্বস্তিকর মনে হয়েছে৷ তিনি স্ত্রীকে চাপ দিতে চাননি৷ তাই ডায়ালিসিস কেন্দ্রে গিয়েই কাজটা করাচ্ছেন৷ ‘‘আমাকে ডায়ালিসিস করাতেই হবে৷ নয়ত মারা যাব'', বলেন কোলার৷

‘শান্ট' পদ্ধতি

ডায়ালিসিস করার সময় একটি সুঁই শিরার ভেতর দিয়ে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়৷ লক্ষ্য রাখা হয় যতটা সম্ভব বেশি রক্ত দ্রুত শরীর থেকে বের করে নেওয়া যায়৷ সেজন্য রক্ত বের করার পথটি বড় হতে হবে৷ এক্ষেত্রে তথাকথিত একটি শান্ট ব্যবহার করা হয়৷ বাহুতে একটি ছোট অপারেশন করে শিরা ও ধমনিকে সংযুক্ত করা হয়৷

শান্ট পদ্ধতি ৬০-এর দশকের প্রথম দিকে শুরু হয়েছে, বলেন ক্রেফেল্ড-এর কিডনি সেন্টারের প্রফেসর ডিটার বাখ৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘এই পদ্ধতিতে একটি বড়, চওড়া, লম্বা শিরা পাওয়া যায়, যার মাধ্যমে ভালোভাবে রক্ত প্রবাহিত হতে পারে৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়