1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘জিয়া স্বাধীনতার ঘোষক নন' মেনে নিচ্ছে বিএনপি!

ব্লগওয়াচে আবারে থাকছে এ কে খন্দকারের বই নিয়ে লেখা৷ এবার এক ব্লগার বলছেন, বইটির প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়ে দলের প্রতিষ্ঠাতা, সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানকেই অসম্মান করেছে বিএনপি৷ আরেক ব্লগার দাঁড়াতে চান বন্যাদুর্গতদের পাশে৷

Ziaur Rahman

(ফাইল ফটো)

বাংলাদেশের রাজনীতিতে বিতর্কের শেষ নেই৷ সবচেয়ে দীর্ঘ সময় ধরে যেসব বিষয় নিয়ে বিতর্ক চলছে, তার একটি মহান মুক্তিযুদ্ধের সূচনালগ্নে জিয়াউর রহমানের স্বাধীনতার ঘোষণার প্রসঙ্গ৷ বিএনপি সবসময়ই দাবি করে এসেছে, ‘শহিদ' জিয়াই প্রকৃত স্বাধীনতার ঘোষক৷ তবে সামহয়্যারইন ব্লগে আহমেদ রশীদ দাবি করেছেন এ কে খোন্দকারের বই নিয়ে অতি উৎসাহ দেখাতে গিয়ে ‘জিয়া স্বাধীনতার ঘোষক নন' অবশেষে মেনে নিচ্ছে বিএনপি!''

এমন লেখার যৌক্তিকতা বোঝাতে গিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘‘‘১৯৭১: ভেতরে বাইরে' নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে৷ জাতীয় সংসদেও সমালোচনা হয়েছে এ নিয়ে৷ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও চলছে তুমুল আলোচনা৷ মহান মুক্তিযুদ্ধের উপ-সেনাপতি এ কে খন্দকারের বহুল আলোচিত ‘১৯৭১: ভেতরে বাইরে'-র সব বক্তব্যকে শতভাগ সত্য বলেই উল্লেখ করেছে বিএনপি৷ এই বই নিয়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে চলছে নানা বিশ্লেষণ ও তোলপাড়৷ গত কয়েকদিনে দেশের সংবাদমাধ্যম, সামাজিক মাধ্যম, রাজনৈতিক অঙ্গন, অফিস-আদালত, চা-খানা মাঠে ময়দানে এ কে খন্দকারের এই অভিনব তত্ত্ব ও তথ্যটিই প্রধান আলোচনার বিষয় হয়ে উঠেছে৷'B' আর সে বিতর্ককে পুঁজি করে বিএনপি নেতারাও সব ধরনের ‘উসকানি' দিয়ে চলেছেন৷....পরিস্থিতি বিশ্লেষণে দেখা যাচ্ছে, বিতর্কিত বিষয়টি নিয়ে বিএনপি যতটা উচ্ছ্বসিত, ঠিক ততটাই নির্লিপ্ত স্বাধীনতার ঘোষক হিসেবে জিয়াউর রহমানের নামকে উড়িয়ে দেওয়ার প্রসঙ্গে৷ এর মধ্য দিয়ে দলটির রাজনীতির প্রধানতম স্লোগান ‘স্বাধীনতার ঘোষক জিয়া' বক্তব্যটি কি তাহলে বাতিল হতে চলেছে? – এই প্রশ্ন সবার৷''

আহমেদ রশীদ মনে করেন তা-ই হতে চলেছে, কেননা, ‘‘...এ কে খন্দকারের এই বক্তব্যের মধ্য দিয়ে নিশ্চিত হয়েছে জিয়াউর রহমানকে স্বাধীনতার ঘোষক দাবি করা অবান্তর৷ কেবল তাই নয় জিয়াউর রহমানকে একজন অনুপযুক্ত ব্যক্তি হিসেবেও চিহ্নিত করেছেন বইয়ের লেখক৷....এ বিষয়ে সামান্য প্রতিবাদও না করে বইয়ের বক্তব্যকে শতভাগ সত্য বলে এ কে খন্দকারের বক্তব্যকেই মেনে নিচ্ছেন বিএনপির শীর্ষ নেতারা৷ এবং এর মধ্য দিয়েই বিএনপির দীর্ঘ দিনের দাবি ‘স্বাধীনতার ঘোষক জিয়া' অবশেষে মিথ্যা প্রমাণিত হতে চলেছে৷

Bangladesh BNP Begum Khaleda Zia

বিএনপির ‘স্বাধীনতার ঘোষক জিয়া' বক্তব্যটি কি বাতিল হতে চলেছে?

অনেকের মতে, বইটির ব্যাপারে বরং বিএনপির মধ্যে একটি উচ্ছ্বসিত ভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে৷ দলটির নেতারা জিয়াউর রহমানকে স্বাধীনতার ঘোষক হিসেবে গ্রাহ্য না করার ব্যাপারে কোনো প্রতিবাদ জানাচ্ছেন না৷ বরং তাঁরা বইয়ে ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণের শেষে ‘জয় পাকিস্তান' কথাটি বলা-না-বলা নিয়ে বিতর্কে উসকানি দিচ্ছেন৷''

লেখায়ক জিয়াউর রহমানের ঘোষণা প্রসঙ্গে এ কে খন্দকারের বক্তব্যও তুলে ধরেছেন সামহয়্যারইন-এর ব্লগার৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘বইয়ের ৬০ পৃষ্ঠায় এ কে খন্দকার বলেছেন, ‘মেজর জিয়ার ঘোষণাটিকে কোনোভাবেই স্বাধীনতার ঘোষণা বলা চলে না৷ মেজর জিয়া রাজনৈতিক নেতা ছিলেন না বা ঘোষণা দেওয়ার মতো উপযুক্ত ব্যক্তিও ছিলেন না৷ যে ঘোষণা চট্টগ্রাম বেতার থেকে তিনি দিয়েছিলেন, ঠিক একই ধরনের একাধিক ঘোষণা ২৬ ও ২৭ মার্চ চট্টগ্রাম বেতার থেকে বেশ কয়েকজন রাজনৈতিক ও ছাত্রনেতাও দিয়েছিলেন, এমনকি বেতারকর্মীরাও একই ধরনের ঘোষণা দিয়েছিলেন৷''

এক অনুষ্ঠানে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দলের নেতা-কর্মীদেরকে বইটি পড়ার পরামর্শ দিয়েছেন এবং জিয়াউর রহমানের ঘোষণা সম্পর্কে এ কে খন্দকারের বক্তব্যকে ‘ব্যক্তিগত মন্তব্য' হিসেবে গুরুত্ব না দিলেও বিএনপির আরেক সিনিয়র নেতা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ বলেন, এ কে খন্দকার তাঁর বইয়ে যা বলেছেন তা শতভাগ সত্য৷''

আহমেদ রশীদ জানিয়েছেন, বিতর্কিত বইটিতে এ কে খন্দকার জিয়া বা শেখ মুজিবুর রহমান কাউকেই স্বাধীনতার ঘোষক মানেননি৷ লেখার একটি অংশে রশীদ লিখেছেন, ‘‘প্রসঙ্গত, এ কে খন্দকারের ‘১৯৭১: ভেতরে বাইরে' বইয়ের ৩২ পৃষ্ঠায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ সম্পর্কে বলা হয়েছে ‘বঙ্গবন্ধুর এই ভাষণেই যে মুক্তিযুদ্ধ আরম্ভ হয়েছিল, তা আমি মনে করি না৷ এই ভাষণের শেষ শব্দ ছিল ‘জয় পাকিস্তান'৷ তিনি যুদ্ধের ডাক দিয়ে বললেন ‘জয় পাকিস্তান'৷ এটি যে যুদ্ধের ডাক বা স্বাধীনতার আহ্বান, তা প্রচণ্ডভাবে প্রশ্নবিদ্ধ৷''

Erdrutsch Überschwemmungen in Bangladesch

‘দেশে এসে মানুষের অবস্থ দেখ, না হয় এইসব মানুষের জন্য কিছু কর’

সামহয়্যারইন ব্লগে মোস্তফা কামাল পলাশ অবশ্য রাজনৈতিক বিতর্কের ধারেকাছেও যাননি৷ তাঁর লেখার শিরোনাম, ‘ন্যাড়া আবারও বেল তলায় যেতে আগ্রহী: বন্যা দুর্গত মানুষদের সাহায্যার্থে এগিয়ে আসুন'৷

শিরোনামে ন্যাড়ার আবার বেলতলায় যাওয়ার বিষয়টি উল্লেখের কারণ হিসেবে তিনি লিখেছেন, ‘‘ন্যাড়ার ধর্মই হলো বেলের স্বাদ আস্বাদন করার জন্য মাথায় বেল পড়ার ঝুঁকি নিয়ে বেল তলায় যাওয়া৷ ঐ ন্যাড়াদের দলের একজন ভাবশিষ্য হিসাবে তাই প্রত্যাখ্যাত হওয়ার ঝুঁকি গ্রহণ করে আবারও প্রবাসী বন্ধুদের কাছে হাত পাতলাম বাংলাদেশের বন্যা দুর্গত মানুষদের সাহায্যার্থে আর একবার এগিয়ে আসার জন্য৷ নিজের মনকে বুঝিয়েছি, পলাশ, তুমি চোখ বন্ধ করে থাকো; পত্রিকার যে পাতায় বন্যা দূর্গত মানুষের ছবি থাকে, তা চোখ বন্ধ করে পরের পৃষ্টায় চলে যাবে৷ কিন্তু আমি পারলাম না, একটি এনজিও-তে কর্মরত ও কুড়িগ্রাম জেলার বর্ন্যা দূর্গত এলাকা পরিদর্শনরত বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের এক বড় ভাইয়ের ছবি দেখে৷ ছবিতে আমার মন্তব্যের প্রতিউত্তরে করা তার মন্তব্য সব সময় আমার মনে স্কুলের ঘণ্টার মতো বেজে যাচ্ছিল গত কয়েক দিন ধরে৷ পলাশ, তুমি দেশে এসে মানুষের অবস্থ দেখ, না হয় এইসব মানুষের জন্য কিছু ফান্ড তৈরি কর, ক্যানাডা থেকে এইসব মানুষের অবস্থা বুঝবা কী করে?''

সংকলন: আশীষ চক্রবর্ত্তী

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন