1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘জিহাদ জীবন দিয়ে বাবাকে রক্ষা করে গেছে'

পানির পাইপে পড়ে চার বছরের শিশু জিহাদের মৃত্যুতে শোকে ম্যুহমান বাংলাদেশিরা৷ দাবি উঠেছে উদ্ধার তৎপরতায় গাফেলতির, পুলিশের কর্মকাণ্ডের বিচারের৷ ব্লগ, ফেসবুকে এ সব দাবি করেছেন অনেকে৷

বাংলাদেমে শুক্রবার রাত থেকে সবার চোখ ছিল টেলিভিশনের পর্দায়৷ ঢাকায় খোলা এক পাইপের মধ্যে পড়ে গেছে এক শিশু৷ যেটি মাটির নীচে কয়েকশো ফুট গভীর৷ আর সেই পাইপের মধ্যে থেকে তাকে উদ্ধারের চেষ্টা চলছে৷ প্রায় ২৩ ঘণ্টা ধরে নানা নাটকীয়তার পর সেই শিশুটি উদ্ধার হয়, মৃত৷ রাষ্ট্রের উদ্ধারকারী দল যখন অভিযান স্থগিত করে, তখন একদল উদ্যোমী তরুণ তাদের তৈরি এক ‘ক্যাচার' দিয়ে উদ্ধার করে শিশুটিকে৷

বাংলা ব্লগ এবং ফেসবুকে জিহাদের উদ্ধার নিয়ে অনেক রকম মন্তব্য প্রকাশ হয়েছে৷ অনেকে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর পাইপে আদৌ কেউ আছে কিনা – সেই সংশয় প্রকাশের সমালোচনা করেছেন, জিহাদ যখন পাইপে তখন তার বাবাকে, খেলার সাথীদের থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের নিন্দা জানিয়েছেন৷

বাংলা ব্লগ সাইট সামহয়্যার ইন ব্লগে জুবায়ের বিন লিয়াকত লিখেছেন, ‘‘বিভিন্ন দুর্যোগ মোকাবেলার জন্য বিশেষভাবে প্রশিক্ষিত ফায়ার সার্ভিসের পাঁচটি ইউনিট কর্মীদের ২৩ ঘণ্টা ব্যর্থচেষ্টার পর স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবীদের মাত্র ২৩ মিনিটের চেষ্টায় সেই পাইপ থেকেই উদ্ধার করা হয় মৃত শিশু জিয়াদকে৷ এই ঘটনায় সরকার এবং সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কেউ ব্যর্থতার দায়ভার এড়াতে পারে না৷''

একই ব্লগ সাইটে ব্লগার সুবাস রায়ের লেখার শিরোনাম, ‘‘অভিশাপ দিয়ো আমাকে সোনামণি জিহাদ, ক্ষমা করো না!'' জিহাদের উদ্দেশ্যে তিনি লিখেছেন, ‘‘আমরা জাতি হিসেবে কত অসহায় তোমার এরূপ হৃদয়বিদারক বিদায়ের মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হলো৷ একজন অসহায়ের পাশে না সরকার থাকে, না প্রশাসন থাকে, না ভাগ্য থাকে, থাকে শুধু অসহায় মানবতা, থাকে হৃদয় নিংড়ানো অশ্রু৷ তবু তুমি ক্ষমা করো না আমাকে, অভিশাপ দিয়ো৷''

সুবাস রায় লিখেছেন, ‘‘তুমি ফিরে আস- এ আকুতি ছিল ১৬ কোটি হৃদয়ে, তোমার সে করুণ পরিণতি, ১৬ কোটি মানুষের, আমার আমাদের সবার৷ তোমার শ্বাসরুদ্ধ হয়েছে হয়ত বা একবার; কিন্তু আমার আমাদের বার বার, প্রতি মূহুর্তে শ্বাস রুদ্ধ হয়ে আসছিল, আসছে৷ তোমার জন্য আমার জন্য আমাদের জন্য একটি মাত্র সান্ত্বনা যে, হয়ত একটা দুর্ভাগা জাতির এর চেয়ে সুখময় মৃত্যু কামনা করা পাপ৷''

প্রসঙ্গত, জিহাদ যখন পাইপে আটকা তখন ঘটনাস্থলে উপস্থিত স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল এক পর্যায়ে পাইপে কোনো মানুষ নেই বলে ঘোষণা করেন৷ তাঁর এই ঘোষণার পর উদ্ধার তৎপরতায় শিথিলতা দেখা দেয় বলে অভিযোগ উঠেছে৷ ব্লগার রিফাত ইসলাম স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর দিকে প্রশ্ন ছুড়ে লিখেছেন, ‘‘আপনি কিসের ভিত্তিতে এমন ঘোষনা করলেন? এবার ভাবুন, জিহাদের মা জানে....তাঁর ছেলে পাইপে পড়ে গেছে৷ আপনি তাঁর পাশে দাঁড়িয়ে কান চুলকাতে চুলকাতে বললেন, কেউ পাইপে পড়েনি৷ সব নাটক৷ সেই মুহূর্তে জিহাদের মা-র আপনাকে কী করা উচিত....?''

উল্লেখ্য, সাংবাদিক গোলাম মোর্তোজা ফেসবুক লিখেছেন, ‘‘জিহাদ জীবন দিয়ে, লাশ হয়ে ফিরে, তার বাবার জেল খাটা থেকে রক্ষা করে গেছে৷ তা না হলে আমাদের কর্মবীর পুলিশ, জিহাদ গর্তে পড়ে গেছে, এই মিথ্যা প্রচারণা চালিয়ে সরকারকে বিপদে ফেলার অপরাধে, নিশ্চিত তাকে এখন জেলে রাখার ব্যবস্থা করতো৷''

সংকলন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়