1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘জিএসপি ফিরে পেতে তত্‍পরতা’

জিএসপি ফিরে পেতে নতুন করে তত্‍পরতা শুরু করেছে সরকার৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দেয়া শর্তগুলো পূরণের ব্যাপারেও হচ্ছে আগ্রহী৷ ফলে সংশোধন করা শ্রম আইনের বিল সংসদে তোলার আগেই আবারো সংশোধনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে৷

সোমবার মন্ত্রীসভার বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে৷ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সচিবালয়ে মন্ত্রীসভা কমিটির এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়৷ বৈঠকের পর মন্ত্রী পরিষদ সচিব মোশাররাফ হোসাইন ভূঁইঞা সাংবাদিকদের বলেন, শ্রম আইন আবারো সংশোধন করার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার৷ এ লক্ষ্যে একটি কমিটি গঠন করার সিদ্ধান্তও নেয়া হয়েছে৷ তিনি বলেন, আইনটি আবারো বিবেচনা করতে বর্তমান মন্ত্রী এবং সাবেক মন্ত্রীদের নিয়ে ‘রিভাইজ কমিটি' করা হবে৷

এর আগে গত ৫ জুন জাতীয় সংসদে ‘বাংলাদেশ শ্রম (সংশোধন) আইন ২০১৩' নামের বিলটি উত্থাপন করা হয়৷ পরে বিলটি অধিকতর পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটিতে পাঠানো হয়৷ কমিটি বিলটি নিয়ে গত ১৩ জুন থেকে তিন দিনব্যাপী গণশুনানি করে৷ শুনানিতে পাওয়া পরামর্শ ও আপত্তি নিয়ে গত দু'দিন সংসদীয় কমিটির বৈঠকে আলোচনা শেষে ২০ জুন সুপারিশ চূড়ান্ত করা হয়েছে৷

তবে বিলটি চূড়ান্ত করার আগে থেকেই শ্রমিকদের অধিকার সঠিকভাবে থাকা নিয়ে শ্রমিক নেতারা দাবি করে আসছিলেন৷ শ্রমিকদের স্বার্থ রক্ষা করে আইনটি পাশের জন্য যুক্তরাষ্ট্রও দাবি জানিয়েছিল৷ এমন পরিস্থিতির মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্রে শুল্কমুক্ত পণ্য প্রবেশের সুবিধা জিএসপি স্থগিত করা হয়৷ আর এরপরই নড়ে চড়ে বসে সরকার৷ শুরু করে নানা তত্‍পরতা৷

বাংলাদেশ টেক্সটাইল গার্মেন্টস শ্রমিক ওয়ার্কার্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ও সাভার-আশুলিয়া অঞ্চলের সভাপতি সৌমিত্র কুমার দাস ডয়চে ভেলেকে বলেন, শ্রম আইনের সংশোধনের পরও কিছু ধারা নিয়ে শ্রমিক সংগঠনগুলো আন্দোলন করে আসছে৷ রবিবারও ঢাকায় সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ টেক্সটাইল গার্মেন্টস শ্রমিক ওয়ার্কার্স ফেডারেশন৷ সংশোধিত আইনটিকে গণতান্ত্রিক করার জন্য তারা দাবি জানিয়ে আসছেন৷ তিনি বলেন, নতুন যে আইন করা হচ্ছে তা শ্রম আইন ২০০৬-এর চেয়েও খারাপ৷

তিনি বলেন, ‘‘নতুন সংশোধনীর ২৭ (৩) ধারায় বলা হয়েছে, কোনো শ্রমিক ১০ দিন কর্মক্ষেত্রে অনুপস্থিত থাকলে তাঁকে কোনো পাওনাদি দেয়া হবে না৷ কিন্তু মালিক যদি কোনো শ্রমিককে গার্মেন্টসে ঢুকতে না দিতে চান, তাহলে ওই শ্রমিক কোনোভাবেই প্রতিষ্ঠানে ঢুকতে পারবে না৷ কারণ প্রত্যেক গার্মেন্টসেই মালিকের কড়া নিরাপত্তা বেষ্টনী থাকে৷ এইভাবে একজন শ্রমিককে ১০ দিন অনুপস্থিত দেখিয়ে তাঁর কর্মজীবনের দীর্ঘ ১০/১৫ বছরের পাওনা থেকে বঞ্চিত করার সুযোগ থাকছে৷''

তিনি বলেন, শ্রমিকদের নিয়ে আইনগতভাবে লড়াই করতে গেলে এই বিষয়টা সামনে চলে আসে৷ কারণ মালিক যাঁকে বের করে দিয়েছেন, তাঁর ক্ষেত্রে বলা হয়ে যে দীর্ঘ সময় ধরে তিনি কর্মক্ষেত্রে আসেন না৷ আর যিনি সত্যি আসেন না, তাঁর ক্ষেত্রেও একই কথা বলা হয়৷

সৌমিত্র কুমার দাস বলেন, ‘‘এতদিন আইনে ছিল মালিক কোনো শ্রমিককে চাকরিচ্যুত করলে বছরে ১৪ দিনের ‘বেনিফিট' তিনি পাবেন৷ কিন্তু নতুন সংশোধনীতে সে পথও রহিত করা হয়েছে৷ ফলে কোনো শ্রমিক চাকরি চলে গেলে কোনো সুবিধাই আর পাবেন না৷ এছাড়া নতুন সংশোধনীতে ট্রেড ইউনিয়নের ব্যাপারে বলা হয়েছে, সবার অংশগ্রহণমূলক (মালিক-শ্রমিকদের নিয়ে) কমিটি৷ এটা তো কোনো শ্রম আইনের বিষয় না৷ তাহলে তো ট্রেড ইউনিয়নের দরকার নেই! আর সবার অংশগ্রহণে একটি কমিটি হলেও তো আর তার কোনো আইনগত ভিত্তি নেই৷ এটা কোনো নির্বাচিত কমিটিও না৷ এখন তারা আইনের মধ্যে এটি যোগ করে দিয়েছে৷'' তাই নতুন করে যেহেতু সংশোধনীর সুযোগ এসেছে, তাই অগণতান্ত্রিক ও শ্রমিক বিরুদ্ধ ধারাগুলো বাদ দেয়ার দাবি করেন তিনি৷

তিনি বলেন, ২০০৬ সালের শ্রম আইনে বলা ছিল কোনো মালিক শ্রম আইন ভঙ্গ করলে তাঁর জরিমানা হবে ৫০ হাজার টাকা, অনাদায়ে ছয় মাসের জেল৷ অথচ নতুন সংশোধনীতে সেটি কমিয়ে ২৫ হাজার টাকা আর অনাদায়ে ছয় মাসের জেলের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে৷

সৌমিত্র কুমার দাস বলেন, ‘‘একজন শ্রমিক ২০ বছর কাজ করলে তাঁর পাওনা হয় কয়েক লাখ টাকা৷ সেক্ষেত্রে একজন মালিক ওই শ্রমিককে পাওনা পরিশোধ না করে মাত্র ২৫ হাজার টাকা জরিমানা দিলেই মাফ পেয়ে যাবেন৷ এটা তো হতে পারে না৷ তাই শ্রম আইন সংশোধন করতে শ্রমিকদের প্রতিনিধিদের সঙ্গে কমিটিকে বসতে হবে৷ প্রয়োজন হলে তাঁরা মালিকদের সঙ্গেও বসবেন৷ কিন্তু নয়-ছয় করে কিছু করা যাবে না৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন