1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

জিএম প্রযুক্তির কল্যাণে আমিষ আলু!

ভারতের গবেষকরা জীন প্রযুক্তির মাধ্যমে এবার পরিবর্তন আনছেন আলুতে৷ এই আলু থেকে শতকরা ৬০ ভাগ পর্যন্ত বেশি আমিষ পাওয়া যাবে৷ এছাড়া অ্যামিনো অ্যাসিডের পরিমাণও এতে বেশি থাকবে৷

default

দু'বছরের বেশি সময় ধরে সাধনার পর উৎপন্ন হয় জিএম প্রযুক্তির আলু (ফাইল ফটো)

মঙ্গলবার ন্যাশনাল একাডেমি অফ সায়েন্সে পরিবেশিত একটি প্রবন্ধে জিএম প্রযুক্তির এই আলুর বিষয়টি প্রকাশ করা হয়৷ সেখানে বিজ্ঞানীরা আশা প্রকাশ করেছেন, পরিবর্তিত এই আলুর চাহিদা অনেক হবে৷ কারণ এতে অন্য একটি ভোজ্য ফসল, আমারান্থের বীজ থেকে নেওয়া জীন ব্যবহার করা হচ্ছে৷ বিজ্ঞানীরা বলছেন, ‘‘শিল্পোন্নত অথবা উন্নয়নশীল, যে দেশের মানুষই হোক না কেন, তাদের খাদ্য তালিকায় আলু একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে৷ আর নতুন এই আলু দিয়ে তৈরি বিভিন্ন খাবার মানুষের স্বাস্থ্যের পক্ষে আরও উপকারী হবে৷''

আমারান্থ গাছ সাধারণত লম্বা হয৷ এর পাতাগুলোও বড় বড়৷ কিন্তু এর বীজগুলো খুবই ছোট৷ এটি ছিলো দক্ষিণ আমেরিকার আদিবাসী অ্যাজটেক এবং উত্তর আমেরিকার রেড ইন্ডিয়ানদের একটা প্রধান খাবার৷ ১৯৭০'র দশকের শেষ দিক থেকে এটি যুক্তরাষ্ট্রে খাদ্যশস্য হিসেবে চাষ করা শুরু হয়৷ উচ্চ আমিষ ও অ্যামিনো অ্যাসিডের বিভিন্ন উপাদান এতে থাকায় এই শস্যটির বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে৷

নতুন দিল্লীর ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অফ প্ল্যান্ট গেনোম রিসার্চ গবেষণা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞানী শুভ্র চক্রবর্তীর তত্ত্বাবধানে অন্যান্য বিজ্ঞানীরা সাত ধরণের আলুর মধ্যে এই জীন প্রয়োগ করেন৷ দু'বছরের বেশি সময় ধরে সাধনার পর উৎপন্ন হয় জিএম প্রযুক্তির এই আলু৷ তাঁরা দেখতে পান, এই আলুতে সাধারণ আলুর চেয়ে ৩৫ থেকে ৬০ ভাগ বেশি আমিষ রয়েছে৷ রয়েছে লাইসিন, টাইরোসিন এবং গন্ধক জাতীয় এ্যামিনো এ্যাসিড, যেগুলির পরিমাণও সাধারণ আলুতে কম৷

প্রতিবেদন: জান্নাতুল ফেরদৌস

সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী