1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

জাহাজ থেকে তেল ছড়িয়ে দূষণ মুম্বই উপকূলে

বিদেশি দুটি মালবাহী জাহাজের মধ্যে সংঘর্ষের ফলে ক্রমাগত তেল ছড়িয়ে পড়তে থাকায় উদ্বিগ্ন সরকার ও পরিবেশ বিভাগ৷ তাই সোমবার জাহাজ দুটির মালিকের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেছেন কেন্দ্রীয় পরিবেশমন্ত্রী জয়রাম রমেশ৷

sea pollution

জাহাজ থেকে ছড়িয়ে পড়া তেলে নষ্ট হচ্ছে প্রকৃতি

মুম্বই বন্দরের অদূরে ক্ষতিগ্রস্ত জাহাজ থেকে তেল নিঃসরণের ফলে পরিবেশ দূষণে উদ্বিগ্ন প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিংও৷ এ বিষয়ে বিস্তারিত প্রতিবেদন তিনি জাহাজ চলাচল মন্ত্রণালয়ের কাছে চেয়েছেন এবং এর কারণ কী, তা খুঁজে বের করতে তদন্তের আদেশ দিয়েছেন৷ বিষয়টি আজ সংসদেও ওঠে৷ পরিবেশমন্ত্রী জয়রাম রমেশ সংসদে বলেন, জাহাজের মালিকের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে৷ মহারাষ্ট্র দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ ইতোমধ্যেই আইনি ব্যবস্থা নিয়েছে৷ কংগ্রেস সাংসদ ওই এলাকার বিপন্ন মত্সজীবীদের সমস্যার দিকে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তাঁদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার এবং জাহাজের চালকদের গ্রেপ্তার করার দাবি জানান৷

ভারতের উপকূল রক্ষী ও নৌ-বাহিনী দূষণ রোধে ব্যাপক অভিযান শুরু করেছে৷ উপকূল রক্ষী বাহিনীর ছয়টি জলযান ও হেলিকপ্টার থেকে দূষণ নিরোধক স্প্রে করা হচ্ছে৷ কিন্তু তেল তিঃসরণ এখনো বন্ধ হয়নি, বরং সমুদ্রের আরো বেশি এলাকায় তা ছড়িয়ে পড়ছে৷ এ পর্যন্ত প্রায় ৫০-৬০ টন তেল সাগরের জলে মিশেছে৷ ঘণ্টায় তিন থেকে চার টন তেল লিক করছে৷ বেশি ক্ষতিগ্রস্ত কন্টেনার জাহাজ ‘চিত্রা' প্রায় ৮০ ডিগ্রি হেলে যাওয়ায় সেখান থেকে তেল ছড়াচ্ছে বেশি৷ ওই জাহাজের ১২০০ কন্টেনারে ছিল ২৭০ টন তেল৷ ৩০০টি কন্টেনার ইতোমধ্যেই গড়িয়ে পড়েছে সমুদ্রে৷ তেল লিক করার আসল জায়গাটা চিহ্নিত করা যায়নি৷

জানা গেছে, তেল ছাড়াও সমুদ্রে ভাসতে দেখা গেছে কন্টেনারের বিপজ্জনক রাসায়নিক সোডিয়াম পার অক্সাইড, যা সামুদ্রিক জীব বৈচিত্র্যের পক্ষে অত্যন্ত ক্ষতিকারক৷ তেল নিঃসরণ বন্ধ করার জন্য মুম্বই পোর্ট ট্রাস্ট নিয়োগ করেছে নেদারল্যান্ডের এক বিশেষজ্ঞ দলকে৷ পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী অশোক চৌহান এক উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক ডেকেছেন৷ আর এই কারণে মুম্বই বন্দরে জাহাজ চলাচল আপাতত কমানো হয়েছে৷

প্রতিবেদন: অনিল চট্টোপাধ্যায়, নতুনদিল্লি

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ