1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

জার্মান স্কুলে ‘উসকানিমূলক’ নামাজ পড়ায় নিষেধাজ্ঞা

জার্মানির একটি স্কুলের কর্তৃপক্ষ শিক্ষকদের কাছে পাঠানো এক লিখিত নির্দেশনায় মুসলিম শিক্ষার্থীদের প্রকাশ্যে নামাজ পড়ায় বাধা দিতে বলেছে৷ ইসলামবিরোধী দল এএফডি এই সিদ্ধান্তের প্রশংসা করেছে৷ তবে বিতর্কও চলছে৷

ভুপার্টাল শহরের ইওহানেস রাও গিমনাজিয়ুমের ঐ নির্দেশনায় লেখা হয়েছে, ‘‘গত কয়েক সপ্তাহে মুসলিম শিক্ষার্থীদের স্কুল ভবনে নামাজ পড়তে দেখা গেছে, যা অন্যদের কাছে দৃশ্যমান ছিল৷ তারা টয়লেটে ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী ধোয়াধুয়ি করেছে, প্রার্থনার মাদুর পেতেছে এবং নির্দিষ্ট কিছু অঙ্গভঙ্গি করেছে৷''

নির্দেশনায় লেখা আছে, ‘এটি অনুমোদিত নয়' ৷ যারা নামাজ পড়ে, স্কুল কর্তৃপক্ষকে তাদের নাম জানাতে বলা হয়েছে৷ শিক্ষার্থীদের এই নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি ‘বন্ধুত্বপূ্র্ণ' আচরণ দিয়ে বলতে বলা হয় নির্দেশনায়৷

সামাজিক মাধ্যমে বিতর্ক

নির্দেশনাটি ফেসবুকে পোস্ট হওয়ার পর অনেকে এর সমালোচনা করেছেন৷ একজন জানতে চেয়েছেন, কেন তারা প্রার্থনা করতে পারবে না? ‘‘এমনকি আমাদের রাখালকন্যা প্রায়ই বাইবেল থেকে উদ্ধৃতি দিয়ে থাকেন,'' স্পষ্টতই জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলকে নির্দেশ করে এমন মন্তব্য করেন ঐ ফেসবুক ব্যবহারকারী৷

আরেকজন জার্মান সংবিধানের চার নম্বর ধারা (ধর্ম ও দার্শনিক মতবাদ প্রকাশের অধিকার) উল্লেখ করে লিখেছেন, ‘‘ধর্মীয় স্বাধীনতা সম্পর্কে যেন কী বলা ছিল? জার্মান সংবিধানের চার নম্বর ধারা?''

তবে স্কুল কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তের প্রশংসাও করছেন অনেকে৷ একজন লিখেছেন, ‘‘আমার মনে হয় চিঠিটা দারুন৷ এসব জিনিস স্কুলের সঙ্গে যায় না৷'' আরেকজনের প্রশ্ন, ‘‘আমরা কি স্কুলে তাদের কার্পেট পাততে দিতে পারি?''

এদিকে, জার্মানির ইসলামবিরোধী ও ডানপন্থি পপুলিস্ট পার্টি ‘অল্টারনেটিভ ফর জার্মানি' বা এএফডির ভুপার্টাল শহর শাখা স্কুল কর্তৃপক্ষের এই সিদ্ধান্তকে যুক্তিসংগত পদক্ষেপ বলে উল্লেখ করেছে৷

স্থানীয় প্রশাসনের সমর্থন

বৃহস্পতিবার ‘ডেয়ার ভেস্টেন' পত্রিকায় এই বিষয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিতহওয়ার পর এখন পর্যন্ত স্কুল কর্তৃপক্ষের বক্তব্য জানা যায়নি৷ তবে স্কুলের এই সিদ্ধান্তের প্রতি সমর্থন জানিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন৷ জেলা পরিষদের মুখপাত্র ডাগমার গ্রস ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে ‘উসকানিমূলকভাবে' নামাজ পড়ার উপর৷ স্কুলে শান্তি ও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান বজায় রাখার লক্ষ্যে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ৷''

তিনি বলেন, স্কুলের অনেক শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর অভিযোগ ছিল, তারা তাদের সহপাঠীদের আচরণের কারণে চাপ অনুভব করছেন৷ তবে নির্দেশনায় ব্যবহৃত কিছু শব্দের ভুল ব্যাখ্যা হতে পারে বলে স্বীকার করেন গ্রস৷

পরবর্তী পদক্ষেপ সম্পর্কে তিনি বলেন, স্থানীয় শিক্ষা অফিস স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে ঠিক করবে, কীভাবে কারও সমস্যা না করে শিক্ষার্থীরা তাদের ধর্ম পালন করতে পারে৷

আগের অভিযোগ খারিজ

২০১১ সালে বার্লিনের এক স্কুল শিক্ষার্থী তাকে তার স্কুলে প্রকাশ্যে শুক্রবারের নামাজ পড়তে না দেয়ার অভিযোগ এনেছিল৷ তবে তার নামাজ স্কুলের শান্তি বিনষ্ট করবে, এই কারণ দেখিয়ে আদালত সেই অভিযোগ খারিজ করে দিয়েছিল৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়