1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

জার্মান সমাজে মুসলমানদের সম্পৃক্ততা

জার্মান প্রেসিডেন্ট ক্রিস্টিয়ান ভুল্ফ বলেছেন, ইসলাম ধর্ম জার্মান সমাজেরই অংশ৷ কিন্তু জার্মানির নতুন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, ঐতিহাসিক দিক দিয়ে জার্মানির সঙ্গে ইসলামের কোনো সম্পৃক্ততা খুঁজে পাওয়া যাবে না৷

default

ইসলাম ধর্ম নিয়ে বিতর্ক

এই দুই রাজনীতিবিদের বক্তব্য তীব্র এক বিতর্কের সৃষ্টি করেছে জার্মানিতে৷ কেউ পক্ষে, কেউ বা বিপক্ষে বলছেন৷ ইসলাম ধর্ম সম্পর্কে একটা ভীতি এখানকার সমাজে বিরাজ করছে৷ বার্লিন ক্যাথিড্রালের উদ্যোগে এক আলোচনা সিরিজের আয়োজন করা হয়েছে সম্প্রতি, যার শিরোনাম – ‘বিদেশিদের সমাজে সম্পৃক্ততায় প্রতিবন্ধক ধর্ম'৷ জার্মানিতে বসবাসকারী বিভিন্ন ধর্মের মানুষের একত্রে বসবাস ও এই সমাজে তাদের সম্পৃক্ততার বিষয়টি আলোচনায় তুলে ধরা হয়েছে৷ বিশেষ করে জার্মান সমাজে ইসলাম ধর্মের ভূমিকাই আলোচনার মূল বিষয়৷ ধর্ম সম্পর্কে এখানকার মুসলিম তরুণ-তরুণীদের মনোভাবও উঠে এসেছে নানা জনের বক্তব্যে৷

সাড়া জাগিয়েছে তুর্কি এক তরুণীর আত্মজীবনী

তুর্কি বংশোদ্ভূত ১৯ বছরের তরুণী মেলবা আকবাস ‘যেমনটি আমি চাই' নামের আত্মজীবনীমূলক গ্রন্থে মসজিদ ও মিনি স্কার্ট – এই দুই'এর মধ্যে তাঁর জীবনের টানাপোড়েনের কথা তুলে ধরেছেন৷ জার্মান সমাজের আধুনিক জীবনযাত্রা, মসজিদে যাওয়া, নারী পুরুষের বিবাহ বহির্ভূত মেলামেশা – এসব উঠে এসেছে তার বইতে৷ মেলবা আকবাস বলেন, ‘‘আমাদের ধর্ম ইসলামের নির্দেশ অনুযায়ী বিয়ের আগে কারো সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করতে পারবনা৷ এমনকি কোনো পুরুষের হাত ধরা বা তার সঙ্গে এক ঘরে অবস্থান করাও নিষেধ৷ আমি আল্লাহ'য় বিশ্বাস করি, আমাদের শেষ নবীর ওপরও আস্থা আছে আমার৷ কিন্তু এজন্য নামাজ পড়া, বা মসজিদে দৌড়ানোর প্রয়োজন আছে বলে মনে করিনা৷''

NO FLASH Deutschland Imamausbildung

জার্মান মুসলিম ইমামদের প্রশিক্ষণ

গোঁড়া ধার্মিক বাবার সঙ্গে ঝগড়া বিবাদ সত্ত্বেও উচ্চ মাধ্যমিক বা ‘আবিটুয়র' পরীক্ষা পাশ করেন মেলবা৷ নিজেকে জার্মান সমাজের সঙ্গে সম্পৃক্ত বলে করেন এই তরুণী৷ তবে জার্মানিতে বসবাসকারী সব মুসলমানদের চিন্তাধারা যে একই রকম, তা বলা যায়না৷ বার্লিনের হুমবোল্ট বিশ্ববিদ্যালয়ে ইউরোপীয় মুসলিমদের আত্মপরিচিতি নিয়ে এক গবেষণা করছেন সমাজবিজ্ঞানী নাইকা ফ্রৌটান৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘এখানে মুসলমানদের মধ্যে নানামুখী স্রোতধারা রয়েছে৷ কেউ গোঁড়া ধার্মিক, কেউ ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে চান৷ কেউ বা সংস্কৃতিবান মুসলিম বলে পরিচিত হতে চান৷ অনেকে আবার মুসলিম পরিবার থেকে এলেও পরে ইসলাম ধর্ম থেকে দূরে সরে গেছেন৷ এক কথায় বলা যায় বৈচিত্র্যময়৷ অনেক তরুণ আবার নিজেদের ‘কুল মুসলিম' বা ‘পপ মুসলিম' বলেও অভিহিত করে৷''

ধর্ম সম্পর্কে অল্পবয়সীদের চিন্তাধারা

বিশেষ করে অল্পবয়সীদের মধ্যে লক্ষ্য করা যায়, তারা একদিকে পশ্চিমের আধুনিক সমাজে অংশ নিতে চায়, অন্যদিকে নিজেদের মুসলিম বলে পরিচয় দিতেও পছন্দ করে৷ সাপ্তাহিক ম্যাগাজিন ‘ডি সাইট'এর সম্পাদক ইয়র্গ লাউ এ প্রসঙ্গে এক উদাহরণ টেনে বলেন, ‘‘আমার এক বন্ধু ডুইসবুর্গ শহরে ধর্মযাজক৷ এক বৃত্তি শিক্ষাকেন্দ্রে ধর্ম শিক্ষক হিসাবে নিযুক্ত হন তিনি৷ খ্রীস্ট ধর্ম সম্পর্কে পড়ানোর কথা থাকলেও ওই প্রতিষ্ঠানে কোনো খ্রীস্টান না থাকায় মুসলমান ছাত্রদেরই ধর্ম শিক্ষার দায়িত্ব পান তিনি৷ এরপর তিনি নিজেই পড়াশোনা করে ইসলাম ধর্ম সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করার চেষ্টা করেন৷ তরুণদের সঙ্গে ইসলাম সম্পর্কে কথা বলে তিনি অবাক হয়ে লক্ষ্য করেছেন যে নিজেদের ধর্ম সম্পর্কে তারা খুব কমই জানে৷''

নিজ ধর্ম সম্পর্কে বাবা মায়ের ধারণাও কম

অনেক বাবা-মা ইসলাম ধর্ম-কর্মের চর্চা করলেও ছেলেমেয়েদের ঠিক মত ধর্মের ব্যাখ্যা দিতে পারেননা৷ তাই তরুণ প্রজন্ম নিজেদের মত করে ইসলামকে গ্রহণ করে৷ যার সঙ্গে ইসলাম ধর্মের খুব কমই মিল থাকে৷ সমাজ বিজ্ঞানী নাইকা ফ্রৌটান এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘লক্ষ্য করা যায় অনেকে নিজেদের ঐতিহ্য ও উৎপত্তি খুঁজতে শুরু করে, যার সঙ্গে তাদের তেমন পরিচয় নেই৷ যেমন ইরান থেকে আসা মানুষদের কথাই ধরা যাক৷ অনেকই ৩০ বছর ধরে সেখানে যায়নি, কথাবার্তা বলেও জার্মান ভাষায়৷ কিন্তু চেহারা ও নামে ইরানি বলেই বোঝা যাবে তাদের৷ তাদের ধর্ম সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলেও সঠিক উত্তর পাওয়া যাবেনা৷ কেননা সেখানকার দৈনন্দিন জীবন সম্পর্কে তাদের তেমন কোনো ধারণা নেই৷ এসব নিয়ে মাথা ঘামানোটা খুব সহজ নয়৷ তার চেয়ে গলায় সোনার মোটা চেন পরে ইরানি পপসংগীত শুনলে বা ইরানি ডিসকোথেকে গেলেই যদি নিজেকে ইরানি মনে করা যায়, তাহলে তো এটা খুব সহজ৷''

দিতে হবে ইসলাম সম্পর্কে সঠিক ধারণা

এখনকার মুসলিম তরুণ-তরুণীদের মধ্যে এক তৃতীয়াংশই জার্মানিতে জন্ম গ্রহণ করেছে বা বড় হয়ে উঠেছে৷ অভিবাসী বলতে এখন তাদের নয়, বরং তাদের মা-বাবা এবং দাদা-দাদিকে বোঝায়৷ এই তরুণরা নিজেদের বিদেশি মনে করতে চায়না, আবার নিজেদের মুসলমান পরিচিতিও বিসর্জন দিতে চায়না৷ এ প্রসঙ্গে সমাজবিজ্ঞানী ফ্রৌটান বলেন, ‘‘আমি রোজা রাখি, ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভে বিশ্বাস করি৷ তাহলেই আমি মুসলমান হয়ে গেলাম, আর কিছু জানতে হবেনা, এই রকম মনোভাব অনেকের৷ তাদের কাছ থেকে ইসলাম সম্পর্কে তেমন কিছু জানা যাবেনা৷ কেননা তাদের নিজেদেরই সুস্পষ্ট কোনো ধারণা নেই এসম্পর্কে৷''

এ কারণে ইসলাম ধর্ম শিক্ষার জন্য জার্মানভাষী শিক্ষিত ইমাম ও শিক্ষক নিয়োগের কথা চিন্তা করা হচ্ছে, যারা ছাত্রছাত্রীদের ইসলাম ধর্ম সম্পর্কে প্রকৃত শিক্ষা দিতে পারবেন৷ নয়তো ইসলাম সম্পর্কে একটা ভুল ধারণা টিকে থাকবে অনেক তরুণের মনে, যা তাদের জঙ্গিবাদের দিকেও ঠেলে দিতে পারে৷

প্রতিবেদন: রায়হানা বেগম

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

সংশ্লিষ্ট বিষয়