1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানিতে উচ্চশিক্ষা

জার্মান বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন বিষয় গ্লোবাল চেঞ্জ ইকোলজি

ইউরোপের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো পরিবেশ রক্ষার গুরুত্বের কথা বিবেচনায় শুরু করেছে নতুন একটি বিষয়৷ নাম গ্লোবাল চেঞ্জ ইকোলজি৷ ইদানিং আইটি-র দিকেও ঝুঁকে পড়েছে অনেকে৷

default

বাচাও এই পৃথিবীকে, শ্লোগান সর্বত্র

জার্মানির বাভারিয়া রাজ্যে ওবারফ্রাঙ্কেন শহরের পাহাড়ের কাছে জড়ো হয়েছে বায়রয়েথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কয়েকজন ছাত্র-ছাত্রী৷ সঙ্গে প্রফেসর ইয়োহানেস লুয়েরসও রয়েছেন৷ ঝলমলে রোদ৷ প্রফেসর বোঝাচ্ছেন৷ পরিবেশ রক্ষার বিভিন্ন দিক তুলে ধরছেন তিনি৷ ক্লাসরুমের পরিবর্তে বেছে নেওয়া হয়েছে পাহাড় ঘেরা জঙ্গল আর সবুজকে৷ খুব কাছ থেকে ছাত্র-ছাত্রীদের দেখানো হচ্ছে আবহাওয়া ও পরিবেশের পরিবর্তন আর তার নেতিবাচক প্রভাব৷ ছাত্রী ডানিয়েলার ভাষ্য, ‘‘ইদানিং যে বিষয়টি নিয়ে সবচেয়ে বেশি বিজ্ঞানীরা মাথা ঘামাচ্ছেন তা হল আবহাওয়া ও পরিবেশের পরবর্তন৷ তবে আমাকে যে বিষয়টি সবচেয়ে বেশি নাড়া দিয়েছে তা হল এই পরিবর্তনের মারাত্মক ফলাফলগুলো৷ ভবিষ্যতে কী থাকবে আর কী থাকবে না – তা আমি কিছুতেই মাথায় ঢোকাতে পারছি না৷''

আবেগ আপ্লুত ছাত্র-ছাত্রী

ডানিয়েলা ক্রেট্স দ্বিতীয় সেমেস্টারের ছাত্রী৷ বিষয় - গ্লোবাল চেঞ্জ ইকোলজি৷ ছাত্র-ছাত্রীদের পড়ানো হয়, বোঝানো হয় আবহাওয়া পরিবর্তনের কথা, দেখানো হয়, জানানো হয় বিভিন্ন নেতিবাচক দিকগুলো৷ বিশ্বব্যাপী তাপমাত্রা বাড়ছে৷ তার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলো নিয়ে আলোচনা করা হয়৷ গাছপালার মধ্যে কোন ধরণের পরিবর্তন আসছে তা সামনা সামনি দেখানো হয়৷ এছাড়া পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ক্ষরা, বন্যা, বৃষ্টিপাত বাড়ছে৷ প্রাকৃতিক এসব দুর্যোগ নিয়ন্ত্রণের বিভিন্ন দিক নিয়েও আলোচনা করা হয়৷ ডানিয়েলা ক্রেট্স বড় হয়েছেন ক্যানাডায়৷ সেখানকার হাই স্কুলে পরিবেশ ব্যবস্থাপনা বিষয় নিয়ে তিনি পড়াশোনা করেছেন৷

Biodiversität Flash-Galerie

ব্রাজিলের এই বন ও নদী জলবায়ু পরিবর্তনের ধকলের মুখোমুখি

বায়রয়েথ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথমবারের মত গ্লোবাল চেঞ্জ ইকোলজি বিষয়ে মাস্টার্স চালু করা হয়েছে৷ বিভাগের প্রধান প্রফেসর কার্ল বায়ারকুনলাইন৷ তিনি জানান, তাঁর প্রয়োজন তরুণ, উৎসাহ-উদ্দীপনায় ভরা একটি প্রজন্ম যারা বিজ্ঞানের বিভিন্ন বিষয়ে আগ্রহী৷ যারা আবহাওয়া এবং পরিবেশের এই পরিবর্তন নিয়ে কাজ করতে পারবে, বিষয়টি বুঝবে৷ বায়ারকুনলাইন বললেন, ‘‘এটা নামে মাত্র মাস্টার্স স্টাডি৷ আসলে আমরা এমন কিছু ছেলে-মেয়ে খুঁজছি যারা এই বিষয়টি নিয়ে শুধু পড়াশোনা নয় পরবর্তী সময়ে গবেষণাও চালিয়ে যাবে৷ যারা এই বিষয় নিয়ে ব্যস্ত থাকবে৷ তাদের আমরা চাই যারা সত্যিকার অর্থেই আবহাওয়া ও পরিবেশ নিয়ে চিন্তাভাবনা করে৷ একারণে আমি নিজেই ছাত্র-ছাত্রীদের সঙ্গে একান্তে সময় কাটাই৷ প্রতিটি বিষয় তাদের খুব কাছ থেকে দেখাই, বোঝাই৷''

পড়াশোনার চাপে ক্লান্ত ছাত্র-ছাত্রীরা

তবে এই বিষয়টির অত্যন্ত গভীরে যাওয়ারও একটি নেতিবাচক দিক আছে৷ চতুর্থ সেমেস্টারের ছাত্র হোলগার ডেম্পেল৷ তিনি জানান এত অল্প সময়ে এত বেশি পড়াশোনা এবং গবেষণা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়৷ ডেম্পেল জানান, ‘‘কত কিছু পড়ার আছে, জানার আছে তা বলে বোঝানোর মত নয়৷ কত কাজ বাকি, কত কাজ আছে – কোন কিছুরই শেষ নেই৷ মাস্টার্সের এই কোর্স যথেষ্ট নয়৷ গত ছুটিতে আমাকে পরিবেশ বিষয়ে ইন্টার্নশিপ করতে হয়েছিল৷ ছুটি কাটাতে পারিনি৷ ইন্টার্নশিপ না করলে পড়াশোনায় পিছিয়ে পড়তাম৷ তবে একথা সত্যি যে এই বিষয়ে পড়াশোনার ফলে আমি অনেক কিছু শিখেছি, জেনেছি৷ ভবিষ্যতে প্রতিটি শিক্ষাই কাজে লাগবে৷ আবহাওয়া ও পরিবেশ রক্ষায় – কাজ পেতে কষ্ট হবে না৷''

গ্লোবাল চেঞ্জ ইকোলজি বিষয় নিয়ে পড়াশোনা করলে ভবিষ্যতে এই ক্ষেত্রে ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ জার্মানিতে রয়েছে৷ তবে পড়াশোনা এবং গবেষণায় বেশ ভাল ফলাফল করা জরুরি৷ কারণ প্রতিটি সেমেস্টারের ফাঁকে ফাঁকে ছাত্র-ছাত্রীদের বিভিন্ন কোম্পানি বা গবেষণা প্রতিষ্ঠানে ইন্টার্নশিপের জন্য পাঠানো হয়৷ সেসব প্রতিষ্ঠান থেকেই পরবর্তীতে ডাক আসে – কাজ করার, ক্যারিয়ার গড়ার, প্রকৃতিকে বাঁচানোর৷

প্রতিবেদন: মারিনা জোয়ারদার

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক