1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

জার্মান বন্দরে মাদক খোঁজার প্রযুক্তি

হামবুর্গ বন্দরে সারা বিশ্ব থেকে আসে জাহাজ বোঝাই লাখ লাখ টন পণ্য৷ এর মধ্যে লুকিয়ে থাকে পাচার করা মাদক, যার সন্ধানে থাকেন শুল্ক বিভাগের লোকজন ও তাদের বিশেষ ট্রেনিং দেওয়া কুকুর৷ ল্যাবরেটরি ও ফরেন্সিক পরীক্ষাও বাদ পড়ে না৷

ভিডিও দেখুন 04:16

হামবুর্গ বন্দরে যেভাবে মাদক খোঁজা হয় | অন্বেষণ

অপরাধবৃত্তি দেশ বা সীমান্ত চেনে না৷ আন্তর্জাতিক অপরাধী চক্রগুলির খোঁজে থাকে জার্মান পুলিশ৷ পুলিশের হাতে সেরা অস্ত্র হল আধুনিক ফরেন্সিক প্রযুক্তি৷

হামবুর্গ বন্দরে প্রতি বছর ৯০ লাখ টন মাল নামে, সারা বিশ্ব থেকে আসা নানা ধরনের পণ্য৷ রুটটা আন্তর্জাতিক মাদক পাচারকারীদেরও চেনা৷ সম্প্রতি হামবুর্গের শুল্ক বিভাগ দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে আসা পণ্যের মধ্যে ১১ কিলো কোকেন খুঁজে পেয়েছে৷

শুল্ক বিভাগের কর্মকর্তার কাজ হলো পাচার করা মাদকের খোঁজ করা৷ হামবুর্গ বন্দরের শুল্ক বিভাগের কর্মী ডিটার লেন্ডজেভস্কি বলেন, ‘‘এই কার্গোটা আমি বেছে নিয়েছি কেননা এর সবটাই এসেছে এশিয়া থেকে, কাজেই এতে হেরোইন পাবার সম্ভাবনা আছে৷''

এ কাজে তাঁকে সাহায্য করে একটি মাদক সন্ধানী কুকুর৷ এ সব কুকুর প্রশিক্ষণেই শেখে: কোকেন, হেরোইন, আফিম, গাঁজা, অ্যাম্ফেটামাইন, মারিজুয়ানা ইত্যাদি কীভাবে শুঁকে বার করতে হয়৷

লেন্ডজেভস্কি বলেন, ‘‘মানুষের চেয়ে কুকুরের নাকে গন্ধ শোঁকার বহু লক্ষগুণ কোষ আছে৷ গন্ধের যে মস্তিষ্ক রয়েছে, মানুষের ক্ষেত্রে তা মটরশুঁটির মতো বড়ো৷ কুকুরের ক্ষেত্রে তা আখরোটের মতো৷ কুকুরের নাকের গঠনও আলাদা৷ বৃষ্টির পর জঙ্গলের মধ্য দিয়ে হাঁটার সময়ও সে ঠিক গন্ধ শুঁকে নিতে পারে৷ সে সময় গন্ধ আরও জোরালো হয়ে ওঠে৷ কুকুর তার ভিজে নাকে আরও সূক্ষ্ম গন্ধ পায়৷ এই কার্গোটায় কিছু নেই, কিন্তু কুকুরটাকে ট্রেনিং-এ রাখতে হবে৷ কুকুরটা যাতে একটা কিছু খুঁজে পায়, সে জন্য আমি এখানে মাদক লুকিয়ে রেখেছি৷ তার ফলে ও ভবিষ্যতেও খোঁজার উৎসাহ পাবে৷''

কুকুরটার জন্যে এটা একটা খেলা, কিন্তু হামবুর্গের শুল্ক বিভাগের কর্মীদের কাছে মাদক খোঁজার কাজে এই কুকুরগুলো অপরিহার্য৷

হামবুর্গ বন্দরে চোরাচালান হয়ে আসে প্রধানত কোকেন৷ কোকেন খুঁজে পাওয়া গেলে সেটা পাঠানো হয় ল্যাবরেটরিতে৷ সেই সাদা গুঁড়া পরীক্ষা করে দেখা হয়৷ হামবুর্গ বন্দরের কেমিস্ট টোমাস গেরেস বলেন, ‘‘সব কিছু হতে পারে – ময়দা, পাউডার করা চিনি, কিন্তু আবার কোকেনও হতে পারে৷ সেটা টেস্ট করে দেখতে হয়৷''

টোমাস সাদা গুঁড়াটাকে একটা সলিউশনে মিশিয়ে দেখছেন: সলিউশন নীল হয়ে গেলে গুঁড়াতে কোকেন আছে, প্রমাণ হবে৷ তবে আদালতে প্রমাণ হিসেবে এই টেস্ট পর্যাপ্ত নয়৷ গেরেস বলেন, ‘‘এই প্রাথমিক পরীক্ষার ফলাফল আদালতে পেশ করা চলে না, কেননা এতে অনেক গোলমাল থাকতে পারে৷ ওদিকে বহু মামলা শেষমেষ আদালতে যায় বলে আমাদের স্পষ্ট প্রমাণ চাই যে, এতে সত্যিই কোকেন আছে৷''

সেই প্রমাণই দিতে পারে একটি মাস স্পেকট্রোমিটার, যাতে গুঁড়ো পদার্থের সলিউশনটি ২৮০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড টেম্পারেচারে বিশ্লেষণ করা হয়৷ গেরেস বলেন, ‘‘পদার্থটিকে ইলেকট্রন বর্ষণ করে জর্জরিত করা হয়, ফলে মলিকিউলগুলি ভেঙে পড়ে এবং তার টুকরোগুলি মাস স্পেকট্রোমিটারে তাদের ওজন অনুযায়ী বিশ্লেষণ করা হয়৷''

একটি নমুনা নিঃসন্দেহে কোকেন৷ গেরেস বলেন, ‘‘এই যন্ত্রটি দিয়ে আমরা বলতে পারি, সলিউশনে কতটা কোকেন আছে, অর্থাৎ কোকেনের কনসেনট্রেশন কতো৷''

শুল্ক বিভাগের তদন্তকারীদের কাছে এই টেস্টের ফলাফল দরকারি: কোকেন যতো বিশুদ্ধ হবে, ততোই বোঝা যাবে যে, এর পিছনে পাচারকারীরা রয়েছে৷ কোকেন যারা বেচে, তারা ঐ কোকেন বাড়িয়ে পাঁচগুণ করে৷ গেরেস বলেন, ‘‘ওর কাছে পাঁচ গ্রামের বেশি কোকেন হাইড্রোক্লোরাইড বের হলে সেটা খুব কম নয়, উঁচু সাজা হতে পারে৷''

অপরাধীদের আদালতে হাজির করার আগে জোরকদমে তদন্ত চলেছে – যাতে হামবুর্গ বন্দর মাদকমুক্ত থাকে৷

বিশেষ ঘোষণা: এই সপ্তাহের অন্বেষণ কুইজে অংশ নিতে ক্লিক করুন এখানে

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও