1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

জার্মান নাগরিকদের জন্য নতুন ইলেকট্রনিক পরিচয়পত্র

১লা নভেম্বর থেকে জার্মানিতে চালু হয়ে গেল ইলেকট্রনিক পরিচয়পত্র৷ অনলাইন যুগের চাহিদা অনুযায়ী এই পরিচয়পত্র নাগরিকদের জীবন অনেক সহজ করে তুলবে বলে দাবি করা হচ্ছে৷

default

জার্মানির নতুন হাইটেক পরিচয়পত্র

বাধ্যতামূলক পরিচয়পত্র

জার্মানিতে প্রত্যেক নাগরিকের একটি সচিত্র পরিচয়পত্র রয়েছে, যা সবসময় কাছে রাখতে হয়৷ তাতে নাম, স্থায়ী ঠিকানা, বয়স, জন্মদিন ইত্যাদি নানা তথ্য লেখা থাকে৷ এই নাগরিক পরিচয়পত্র নিয়ে এমনকি ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাকি দেশগুলিতেও যাতায়াত করা যায় – সঙ্গে পাসপোর্ট রাখারও দরকার নেই৷ শুধু তাই নয়, জার্মানিতে কোথাও স্থায়ীভাবে বসবাস করতে গেলে প্রত্যেক নাগরিককে স্থানীয় সরকারি দপ্তরে গিয়ে নথিকরণ করতে হয় – এমনকি বিদেশিদের ক্ষেত্রেও এই নিয়ম প্রযোজ্য৷

Flash-Galerie Abbildung neuer Personalausweis Vorder- und Rückseite

নতুন পরিচয়পত্রের সামনে ও পেছনের অংশ

এতকাল শুধু ল্যামিনেট করা এই জাতীয় সচিত্র পরিচয়পত্র নিয়েই কাজ চলে যাচ্ছিলো৷ যে কোনো জায়গায় পরিচয়ের প্রমাণ দিতে হলে এই পরিচয়পত্রই ভরসা৷ সরকারি-বেসরকারি সব দপ্তর থেকে শুরু করে পোস্ট অফিস থেকে পার্সেল আনতে গেলেও দেখাতে হয় এই পরিচয়পত্র৷ তবে পাসপোর্ট বা ড্রাইভিং লাইসেন্স নিয়েও অনেক জায়গায় কাজ চালানো যায়৷

নতুন যুগের চ্যালেঞ্জ

একবিংশ শতাব্দীর এই তথ্য-প্রযুক্তি সর্বস্ব জীবনযাত্রায় অনেক কাজই হচ্ছে ‘ভারচুয়াল' বা অদৃশ্য জগতে – সশরীরে উপস্থিত থাকার কোনো প্রয়োজন নেই৷ ব্যাঙ্কিং থেকে শুরু করে সিনেমা, ট্রেন, বাস, বিমানের টিকিট কাটা, কেনাকাটা করা, নানা রকম পরিষেবার সুযোগ নেওয়া – এসবের জন্যই মানুষ আরও বেশি করে ইন্টারনেটের দ্বারস্থ হচ্ছেন৷ এমন যুগে শুধু ল্যামিনেট করা এই কাগজের পরিচয়পত্র চলতে পারে না৷ তাই জার্মানিতে শুরু হয়েছে যুগোপযোগী পরিচয়পত্র সহ বেশ কিছু উদ্যোগ, যা বর্তমান যুগের চাহিদা পূরণ করতে পারবে৷

NO FLASH Symbolbild Internet Sicherheit

ইন্টারনেটের ব্যবহার বেড়ে চলায় পরিচয়ের প্রশ্নের গুরুত্ব বাড়ছে

এর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প হচ্ছে সচিত্র জাতীয় পরিচয়পত্রের আধুনিকীকরণ৷ ১লা নভেম্বর থেকে চালু হল এই ইলেকট্রনিক পরিচয়পত্র৷ দেখতে হুবহু ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ডের মতো৷ বর্তমান পরিচয়পত্রের মতো এই হাই-টেক কার্ডের মধ্যেও নাগরিকের ছবি ও অন্যান্য তথ্য লিখিত অবস্থায় থাকবে৷ সেইসঙ্গে থাকছে এক চিপ, যার মধ্যে ভরা থাকছে আরও অনেক গুণাগুণ৷ মূল উদ্দেশ্য, ইন্টারনেটের মাধ্যমেও নিজের পরিচয় নিশ্চিতভাবে প্রমাণ করা৷ তবে এই হাই-টেক পরিচয়পত্রের সব গুণাগুণ সবাইকে ব্যবহার করতেই হবে, এমন কোনো বাধ্যবাধকতা নেই৷ স্বেচ্ছায় বাড়তি সুযোগ নিতে চাইলে থাকছে নতুন দুটি বৈশিষ্ট্য৷ প্রথমটির নাম ‘ই-আইডি' – অর্থাৎ ‘ইলেকট্রনিক আইডেন্টিটি'৷ এর মাধ্যমে অনলাইন পদ্ধতিতে নিজের পরিচয়ের প্রমাণ দেওয়া যাবে৷ দ্বিতীয় বৈশিষ্ট্যের মাধ্যমে অনলাইন পদ্ধতিতে স্বাক্ষরও করা যাবে৷ সরকারি-বেসরকারি যে কোনো প্রতিষ্ঠান এই অনলাইন পদ্ধতির সুযোগ নিতে পারবে৷ ফলে ঘরে বসেই কম্পিউটারের মাধ্যমে যে কোনো নাগরিক এমন অনেক কাজ সেরে ফেলতে পারবেন, যার জন্য এতকাল বেশ দৌড়ঝাঁপ করতে হতো৷

NO FLASH NXP produziert Chips für neuen Personalausweis

পুরানো ও নতুন পরিচয়পত্র

নিরাপত্তা নিয়ে দুশ্চিন্তা

গোটা প্রকল্পের উদ্দেশ্য অত্যন্ত যুগোপযোগী – কোনো সন্দেহ নেই৷ এর ফলে নাগরিকদের জীবনযাত্রাও অনেক সহজ হয়ে পড়বে, সময়ও অনেক বাঁচবে৷ কিন্তু ইন্টারনেট যেমন অনেক কাজ সহজ করে তোলে, তেমন ইন্টারনেটে বিপদেরও অভাব নেই৷ ব্যাঙ্কের ক্রেডিট কার্ড থেকে শুরু করে ইন্টারনেটের অনেক পরিষেবার ক্ষেত্রে অপরাধ ও অপব্যবহারের ঘটনার অভাব নেই৷ ইলেকট্রনিক পরিচয়পত্রের ক্ষেত্রে নিরাপত্তা সংক্রান্ত দুশ্চিন্তা কতটা বৈধ? জার্মান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি হেনিং ক্যোলার গত মার্চ মাসে সেবিট মেলায় বলেছিলেন, ‘‘নতুন এই পরিচয়পত্রের ক্ষেত্রে আমরা সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দিচ্ছি৷ বিভিন্ন পর্যায়ে নিরাপত্তার ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে৷ পরিচয়পত্রের সঙ্গে পিন নম্বর লাগবে৷ যদি কেউ আমার পিন জানতে পেরে যায়, বাড়িতে বসেই আমি সেই পিন বদলে ফেলতে পারবো৷ অর্থাৎ আমিই এই কাজ করতে পারবো৷ তবে অবশ্যই নিজের জন্মদিনের মতো সংখ্যা পিন হিসেবে ব্যবহার করা উচিত হবে না৷ এই পিন কোথাও লিখে রাখাও উচিত হবে না৷ এই সব সাবধানতা অবলম্বন করলে নিরাপত্তার ক্ষেত্রে কোনো সমস্যা হবে না৷''

Deutschland Kriminalität Verbrechen Statistik Innenminister Thomas de Maiziere

জার্মান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী টোমাস দেমেজিয়ের

সমাধানসূত্র

সম্প্রতি সংবাদ মাধ্যমে প্রস্তাবিত এই প্রকল্পে নিরাপত্তার ক্ষেত্রে কিছু দুর্বলতা তুলে ধরা হয়েছে৷ এক টেলিভিশন অনুষ্ঠানে দেখানো হয়েছ, কীভাবে সহজেই কারো পিন নম্বর জেনে ফেলা যায়৷ জার্মান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী টোমাস দেমেজিয়ের অবশ্য সব সমালোচনা অস্বীকার করে বলেছেন, গোটা বিশ্বে অন্য কোথাও এত নিরাপদ পরিচয়পত্র নেই৷ তিনি নিজে ১লা নভেম্বর থেকে নতুন এই পরিচয়পত্র ব্যবহার করবেন এবং অন্যদেরও করার পরামর্শ দিয়েছেন৷

জার্মান সরকারের তথ্য সংরক্ষণ কর্মকর্তা পেটার শার অবশ্য এই সমস্যার অন্য এক সমাধানসূত্র তুলে ধরেছেন৷ তাঁর মতে, পিন নম্বর টাইপ করার জন্য সস্তার রিডিং যন্ত্র একেবারেই উপযুক্ত নয়৷ তাই শুরু থেকেই আলাদা বিশেষ যন্ত্রের নিজস্ব কিবোর্ডের মাধ্যমে পিন কোড টাইপ করা বাধ্যতামূলক করা উচিত৷ সেই যন্ত্রের দাম কিছুটা বেশি হতে পারে, তবে একবার এমন যন্ত্র কিনলে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যাবে৷

প্রতিবেদন: সঞ্জীব বর্মন
সম্পাদনা: দেবিরতি গুহ

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়