1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

জার্মানি থেকে সিরিয়ার দিকে জিহাদির স্রোত

ইতিমধ্যেই ‘‘জিহাদের এলাকায়’’, অর্থাৎ সিরিয়াতে শ’চারেক জার্মান যোদ্ধার খবর পাওয়া গিয়েছে৷ তাঁদের যাওয়াই শুধু নয়, পরবর্তীতে তাঁদের জার্মানিতে ফেরা নিয়েও কর্তৃপক্ষ বেশ শঙ্কিত৷ কিন্তু করার কিছু আছে কি?

অবশ্য সিরিয়ায় শুধু তথাকথিত ‘‘জার্মানরাই'' নয়, ৭৪টি দেশ থেকে আগত মোট বারো হাজার বিদেশি ‘‘সংগ্রামে'' সংশ্লিষ্ট৷ তাঁদের অধিকাংশই আরব বংশোদ্ভূত; বিদেশি যোদ্ধাদের মধ্যে হাজার আড়াই এসেছে পশ্চিমি দেশগুলো থেকে; আর জার্মানি থেকে আগত জিহাদিদের সংখ্যা চারশো – যদিও সেটাও আনুমানিক৷

বাস্তব সত্য হলো: জার্মানিতে তরুণ ইসলামি জঙ্গিদের একটা মহল শুধু গড়েই ওঠেনি, ক্রমাগত বেড়েও চলেছে৷ অপরদিকে জার্মানিতে চল্লিশ লাখ মুসলিমের বাস, কিন্তু সালাফিদের সংখ্যা পাঁচ থেকে দশ হাজারের বেশি নয় – যদিও তারা মানুষ তথা মিডিয়ার নজর কাড়তে জানে: কখনো বাজারে পবিত্র কোরান বিলি করে, কখনো কোনো মসজিদের কাছে জনসভা করে৷ এমনকি সমাজকর্মীদের মতো পথে পথে ঘুরে যুব-কিশোরদের সঙ্গে কথাবার্তা বলে তাদের রংরুট বানানোর প্রচেষ্টাও করে থাকে এই সালাফিরা৷ তাদের সর্বাধুনিক ‘প্রচার' অভিযান সারা জার্মানিতে চাঞ্চল্য ও উষ্মার সৃষ্টি করেছে: ভুপার্টাল শহরে তাদের কয়েকজনকে ‘শরিয়া পুলিশ' লেখা প্লাস্টিকের উর্দি পরে ডিস্কো কিংবা বার-এর সামনে তরুণ-তরুণীদের ‘অনাচার' থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানাতে দেখা গেছে৷

জিহাদিদের আকর্ষণ

এক পর্যায় যুব-কিশোরের কাছে সালাফি মতবাদ একটি স্পষ্ট কাঠামো ও স্পষ্ট ধ্যানধারণা এনে দেয় – বিশেষ করে সেই যুব-কিশোরের যদি নিজের জীবনকে অর্থহীন বলে মনে হয়, কিংবা সেই জীবনে অন্য কোনো ধরনের বাস্তব অথবা কাল্পনিক সংকট দেখা দিয়ে থাকে৷ সালাফিরা ঠিক সেই মুহূর্তে এসে তাঁকে সঙ্গ দেয়, সান্ত্বনা দেয়, ফিরিয়ে দেয় তাঁর আত্মসম্মান৷ অপরদিকে সালাফিদের কাছে এই মুহূর্তে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো – সিরিয়া৷

সিরিয়া এবং ইরাক থেকে ইন্টারনেট প্রচারণার একটা স্রোত ভেসে আসছে জার্মানি অভিমুখে৷ ইসলামিক স্টেট-এর মিডিয়া বিভাগ সিরিয়া ও ইরাকে আইসিস বা আইএস-এর গতিবিধিকে দেখায় ঠিক অ্যাকশন ফিল্মের মতো – পেশাদারদের তৈরি করা অ্যাকশন ফিল্ম৷ সেই ফিল্ম দেখে উদ্বুদ্ধ হয়ে যদি কোনো হবু জিহাদি জার্মানি থেকে সিরিয়া যেতে চায়, তবে সে পথও অতি সোজা: তিন ঘণ্টা বিমানযাত্রার পর তুরস্ক; সেখান থেকে ‘সবুজ সীমান্ত' পার হয়ে সিরিয়ায় ঢুকলেই হলো৷

জার্মান জিহাদি

ইরাক কিংবা সিরিয়ার যুদ্ধে জার্মান জিহাদিদের ভূমিকা খুব গুরুত্বপূর্ণ নয়৷ তার মূল কারণ এই যে, জার্মান জিহাদিরা স্থানীয় আরব সংস্কৃতির সঙ্গে বিশেষ পরিচিত নয়; ফলে তাদের আচার-আচরণে নানা ভুলভ্রান্তি ঘটে থাকে৷ এছাড়া তারা যুদ্ধেও বিশেষ দড় নয়, কেননা জার্মান জিহাদিদের অধিকাংশ বাধ্যতামূলক সামরিক সেবায় পর্যন্ত অংশ নেয়নি৷ সেই কারণেই হয়ত জার্মান জিহাদিদের বারংবার আত্মঘাতী বোমারুর ভূমিকায় দেখা যায়৷

মাত্র এক মাস আগে জার্মানির ডিন্সলাকেন থেকে আসা ফিলিপ ব্যার্গনার মোসুল শহরের কাছে নিজেকে উড়িয়ে দেয় এবং সেই বোমায় আরো বিশজন মানুষের প্রাণ নেয় – ফিলিপ জাতে জার্মান, পরে মুসলমান ধর্ম গ্রহণ করেছিল৷ এ যাবৎ পাঁচজন জার্মান জিহাদি ইরাকে আত্মঘাতী বোমা আক্রমণ চালিয়েছে বলে জানা গেছে – তবে তাদের বাস্তবিক সংখ্যা সম্ভবত আরো অনেক বেশি৷

Symbolbild Deutsche Frauen im Syrienkrieg

জার্মান জিহাদিরা স্থানীয় আরব সংস্কৃতির সঙ্গে বিশেষ পরিচিত নয়

রোখার পন্থা

জার্মান জিহাদিরাও জার্মানির নাগরিক – এবং অনেক ক্ষেত্রে জার্মান নাগরিকদের সন্তান৷ তাদের এভাবে ইসলামিক স্টেট-এর হাতে তুলে দেওয়া যায় না, মরতে দেওয়া যায় না৷ আবার তারা যখন ‘যুদ্ধের' অভিজ্ঞতা নিয়ে জার্মানিতে ফেরে, তখন তারা তাদের স্বদেশের পক্ষেও বিপদ সৃষ্টি করতে পারে৷ কিন্তু তাদের সিরিয়া কিংবা ইরাক যাওয়া, অথবা জার্মানিতে ফেরা, দু'টোর কোনোটাই সংবিধানসম্মত উপায়ে রোখা সম্ভব নয় – অন্তত আপাতত নয়৷

ওদিকে জার্মানি উত্তর ইরাকের কুর্দ বা কুর্দিদের অস্ত্র দিতে চলেছে – যার অর্থ, জার্মানিতে প্রতিশোধমূলক আক্রমণের সম্ভাবনা বাড়বে৷ এবং সেই আক্রমণে যে সিরিয়া থেকে প্রত্যাবর্তিত কোনো ‘জার্মান জিহাদি' জড়িত থাকবে না, তা-ই বা কে বলবে?

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়