1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

জার্মানি ঘুরে গেলেন দুদকের মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড বিজয়ীরা

সম্প্রতি জার্মানি ঘুরে গেলেন বাংলাদেশের একদল সাংবাদিক, যাঁদের কয়েকজন এসেছিলেন দুদক-এর মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড জয় করে৷ দুর্নীতি প্রতিরোধের লক্ষ্যে সচেতনতা সৃষ্টিতে ভূমিকা রাখছে বিশেষ এই অ্যাওয়ার্ড, মনে করেন সংশ্লিষ্টরা৷

জার্মানির বন শহরে গত ১৩ থেকে ১৫ জুন অনুষ্ঠিত হয় গ্লোবাল মিডিয়া ফোরাম৷ ডয়চে ভেলের উদ্যোগে আয়োজিত বাৎসরিক এই ফোরামে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাজনীতিবিদ, গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব, সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা অংশ নেন৷ চলতি বছর বাংলাদেশ থেকে আসা অতিথিদের মধ্যে ছিলেন দুদক-এর মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড জয়ী পাঁচ সাংবাদিক এবং অ্যাওয়ার্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত কয়েকজন৷

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, জার্মান ডেভেলপমেন্ট কোঅপারেশন (জিআইজেড), প্রেস ইন্সটিটিউট অফ বাংলাদেশ (পিআইবি) এবং দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সহযোগিতায় দুর্নীতি প্রতিরোধ বিষয়ক রিপোর্টিং-এর জন্য সাংবাদিকদের দুদক মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড দেয়া হচ্ছে ২০১৩ সালে৷ চলতি বছরের বিজয়ীরা হচ্ছেন কুন্তাল রয়, সোহেল আহমেদ, মো. মাহবুবুল আলম, ওয়াহিদুজ্জামান, কাজল হাজরা৷

প্রতিযোগিতা সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এই প্রতিযোগিতার উদ্দেশ্য হচ্ছে সাংবাদিকদের দুর্নীতি প্রতিরোধের উপরে কাজ করতে আরো উৎসাহ দেয়া৷ বাংলাদেশে দুর্নীতি নিয়ে অনেক রিপোর্ট হয়েছে, তবে প্রতিরোধের বিষয়টি মাথায় রেখে তেমন একটা কাজ হচ্ছিল না৷ এই অ্যাওয়ার্ড দুর্নীতি প্রতিরোধকে গুরুত্ব দিচ্ছে৷''

দুদক-এর পুরস্কারজয়ী সাংবাদিকদের সঙ্গে জার্মানি সফর করেন প্রতিযোগিতার অন্যতম সহযোগী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের চেয়ারপারসন প্রফেসর মো. মফিজুর রহমান৷ তিনি জানান, সবাই চায় সমাজ প্রতিটি পর্যায়ে দুর্নীতিমুক্ত হোক৷ এ জন্য যে কোনো উদ্যোগই ভালো৷

তবে প্রফেসর রহমান মনে করেন, মিডিয়া অ্যাওয়ার্ডের মাধ্যমে স্বল্পসময়ের জন্য একটি প্রভাব সৃষ্টি করা গেলেও দীর্ঘমেয়াদে সমাজে প্রভাব সৃষ্টিতে আরো উদ্যোগ প্রয়োজন৷ তিনি বলেন, ‘‘অ্যাওয়ার্ড দিয়ে সাময়িক সময়ের জন্য একটা ইম্প্যাক্ট তৈরি করা যেতে পারে, কিন্তু দীর্ঘমেয়াদে সমাজে একটা প্রভাব আনতে গেলে সেই আকাঙ্খাটা সাংবাদিকদের মধ্য থেকে আসতে হবে৷ এবং গণমাধ্যমের মালিকানার দিক থেকে আসতে হবে৷''

দুর্নীতি দমন কমিশনের মহাপরিচালক ড. মো. সামসুল আরেফিন জানান, মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড সাংবাদিকদের মধ্যে দুর্নীতি প্রতিরোধ নিয়ে কাজ করতে উৎসাহ বাড়াচ্ছে৷ আর পুরস্কার বিজয়ীরা এই বিষয়ে দীর্ঘমেয়াদে কাজও করছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘যারা পুরস্কার পাচ্ছে, আমি মনে করি না তাঁরা শুধু পুরস্কারের জন্যই প্রতিবেদনগুলো ছাপেন৷ নিজেদের মনের তাগিদ থেকে তাঁরা সেগুলো ছাপেন৷ দেশের প্রতি তাঁদের দায়িত্ববোধ, সমাজের প্রতি দায়িত্ববোধ, দুর্নীতির বিরুদ্ধে তাদের বলিষ্ঠ অবস্থান – এগুলো থেকেই তাঁরা আসলে রিপোর্টটা করে থাকেন৷''

প্রতিবেদনটি নিয়ে আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখে জানান, নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়