1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

জার্মানির শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলিতে তুর্কি ভাষা শেখার ধুম

ইদানীং জার্মানিতে অনেক শিক্ষার্থী তুর্কি ভাষা শেখায় আগ্রহ দেখাচ্ছে৷ ভবিষ্যতে শুধু তুর্কি বংশোদ্ভূতরা নয়, যে কেউ স্কুলে দ্বিতীয় বিদেশি ভাষা হিসাবে তুর্কি নির্বাচন করতে পারবে৷ বহু জার্মান স্কুলেই তাই শিখানো হচ্ছে এ ভাষা৷

default

স্কুলে ক্লাস চলছে

গেলসেনকিয়ার্শেন শহরের রিকার্ডা হুখ গিমনাসিয়ুম বা হাই স্কুলের থার্ড পিরিয়ড চলছে৷ একাদশ শ্রেণির ১৫ জন ছাত্রছাত্রী একটি তুর্কি কবিতা বিশ্লেষণ করছে৷ ‘‘কবি নারীদের নরম প্রকৃতির বলে অভিহিত করেছেন৷ যারা পৃথিবীকে সুন্দর করতে পারেন৷'' ছাত্রী এনেস সেটিনার ব্যাখ্যা করে বলে৷ এটি একটি ক্রেডিট কোর্স৷ যারা এখানে বসে আছে, তারা আবিটুয়র বা উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার একটি বিষয় হিসাবে তুর্কি ভাষা নির্বাচন করেছে৷

পাঠ্যবিষয় হিসাবে তুর্কি ভাষা

এই স্কুলটি ৩০ বছরেরও আগে পাঠ্যবিষয় হিসাবে তুর্কি ভাষার প্রবর্তন করে৷ সে সময় অভিবাসী শ্রমিকদের সন্তানদের স্কুলশিক্ষা সহজ করার জন্য এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল৷

Türkei Istanbul Blick über den Bosporus

জার্মান শিক্ষার্থীদের অনেকে বিদেশে সেমেস্টার করার সুযোগ পেলে ইস্তানবুলকে নির্বাচন করেন

৬০-এর দশকে তুরস্ক থেকে খনি ও শিল্প কলকারখানায় কাজ করার জন্য এইসব শ্রমিককে আনা হয়৷ তাদের সন্তানদের অনেকে গিমনাসিয়ুমে পড়ার যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও ভাষার কারণে তা সম্ভব হতো না৷ স্কুলটি এই সব ছেলেমেয়েকে আবিটুয়র পরীক্ষার সুযোগ দেওয়ার জন্য তাদের ভর্তি করে নেয়৷

ফ্রেঞ্চ বা ল্যাটিন ভাষার বদলে শিক্ষার্থীরা দ্বিতীয় বিদেশি ভাষা হিসাবে তুর্কি নির্বাচন করতে পারে৷ তবে যারা একেবারে তুর্কি জানে না, তাদের জন্য এই বিষয় উপযোগী নয়৷ এমনকি তুর্কি বংশোদ্ভূত সেরেনাই উল্কার মতো ছাত্রীদের পক্ষেও সহজ নয় এই ভাষা৷ ‘‘অনেকটা জার্মান ক্লাসের মতো৷ ভাষাটা জানা থাকতে হয়, ক্লাসে মুদ্রিত পাঠ নিয়ে কাজকর্ম করা হয়৷'' জানায় ১৬ বছর বয়স্ক সেরেনাই৷

নর্থরাইন ওয়েস্টফালিয়া রাজ্যের তথ্য অনুযায়ী গত বছর ৮,৫০০ ছাত্রছাত্রী পাঠ্যবিষয় হিসাবে তুর্কি ভাষা নির্বাচন করে আগের চেয়ে বেশি৷ এ কারণে এখন এমন একটি পাঠ্যসূচি তৈরি করা হয়েছে, যাতে শুধু তুর্কি বংশোদ্ভূতরা নয়, যে কেউ দ্বিতীয় ভাষা হিসাবে তুর্কি নির্বাচন করতে পারে৷

এই বিষয়টি নেওয়ার ব্যাপারে যেন এখন ধুম পড়ে গিয়েছে৷

বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতেও তুর্কি ভাষার জনপ্রিয়তা বাড়ছে

এই অভিজ্ঞতা ডুইসবুর্গ-এসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের তুর্কি ভাষা ইন্সটিটিউটের পিনার ও ওগুজকানেরও৷ তিনি এই ইন্সটিটিউটের গবেষণা সহকারী৷ এই ইন্সটিটিউটে তুর্কি ভাষার শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়৷ ‘‘১৯৯৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর ৩০ জন্য শিক্ষার্থী নিয়ে যাত্রা শুরু হয় ইন্সটিটিউটটির৷ আজ সব মিলিয়ে ৬২০ জন শিক্ষার্থী পড়াশোনা করছেন এই প্রতিষ্ঠানে৷'' জানান পিনার৷

এ কারণে ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ তুর্কি ভাষা বিভাগের জন্য নুমেরুস ক্লাউসুস বা ভর্তির সীমারেখা প্রবর্তন করেছে৷ তুর্কি ভাষার এই জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি একটা কারণও ব্যাখ্যা দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা৷

তুরস্ককে অর্থনৈতিক দিক দিয়ে শক্তিশালী দেশ হিসাবে দেখা হচ্ছে জার্মানিতে৷ আর এই জন্যই পালিত হচ্ছে ‘জার্মান-তুরস্ক বিজ্ঞানের বছর'৷

বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্মান শিক্ষার্থীদের মধ্যেও দেশ হিসাবে তুরস্ক জনপ্রিয়৷ বিদেশে কোনো সেমেস্টার করার সুযোগ পেলে ইস্তানবুলকে নির্বাচন করেন অনেকে৷

বহু সহযোগিতামূলক কর্মসূচি রয়েছে

জার্মান-তুর্কি বিশ্ববিদ্যালয়গুলির মধ্যে সহযোগিতামূলক কর্মসূচি বা প্রকল্প রয়েছে হাজার খানেক৷ এর মধ্যে প্রায় অর্ধেকই ইস্তানবুলের বিশ্ববিদ্যালয়গুলির সঙ্গে সম্পৃক্ত৷

ডুইসবুর্গ-এসেন ইউনিভার্সিটির পিনার ওগুজকান এই প্রবণতাটা লক্ষ্য করেছেন৷ ‘‘আমাদের ইন্সটিটিউটের সব ছাত্রছাত্রীকে বিদেশে এক সেমেস্টার পড়াশোনা করতে হয়৷ এদের ৯০ শতাংশই ইস্তানবুলে যান৷''

এতো উচ্ছ্বাস সত্ত্বেও রিকার্ডা হুখ গিমনাসিয়ুমের পরিচালক উর্সুলা ক্লে কিছুটা হতাশার বাণীও শোনান৷ তাঁর স্কুলে তুর্কি ভাষা শেখার আগ্রহ হ্রাস পাচ্ছে৷ তিনি বলেন, ‘‘আমাদের প্রাথমিক কোর্সের শিক্ষার্থীর সংখ্যা মাত্র ১৫ জন৷ এমনও হতে পারে আগামী বছর একজন ছাত্রও এই বিভাগে থাকবে না৷''

পড়ার পাট চুকিয়ে তুরস্কে কাজ করার ইচ্ছা

সেরেনাই উল্কার সামনের বছর হাই স্কুল ফাইনাল পরীক্ষা বা আবিটুয়র পাশ করলে ব্যবস্থাপনা বিভাগে পড়াশোনা করতে আগ্রহী৷ তারপর তুরস্কে চাকরি ও বসবাস করতে চায় সে৷ ‘‘সেখানে সূর্য, সাগর, সৈকত সবকিছুই আছে৷'' হেসে জানায় এই কিশোরী৷ পরে কিছুটা গম্ভীর হয়ে বলে, ‘‘জার্মানিতে ইন্টিগ্রেশন শুধু একটা নির্দিষ্ট সীমা পর্যন্ত৷ শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের সুযোগ সুবিধা চমৎকার৷ কিন্তু চাকরির বাজারে তুর্কি বংশোদ্ভূত মেয়ে হিসাবে বৈষম্যের শিকার হতে হয়৷''

সেরেনাই শুধু তার ক্লাসে একাই নয়, আরো অনেকে স্কুল ও ইউনিভার্সিটির পড়াশোনা শেষ করে তুরস্কে যেতে আগ্রহী৷

এটা দুঃখজনক, মনে করেন গবেষণাবিদ পিনার ওগুজকান৷ এইভাবে জার্মানি সুশিক্ষিত কর্মী হারাচ্ছে৷ ‘জার্মান-তুরস্ক বিজ্ঞানের বছর' পালনের মাধ্যমে এই ক্ষেত্রে পরিবর্তন হবে বলে আশা করেন তিনি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়