1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

জার্মানির রাজনীতি সচেতন কিশোরসমাজ চায় ভোটাধিকার

জার্মানির মতো একটি দেশে, যেখানে প্রবীণ জনগোষ্ঠীর সংখ্যা ক্রমেই বেড়ে যাচ্ছে, সেখানে শিশু-কিশোরদের আশা আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন কি ঘটতে পারে? ‘না’, মনে করে সচেতন কিশোর সমাজ৷ তাদের দাবি ১৬ বছর বয়স থেকেই ভোটাধিকার দিতে হবে৷

‘‘অবশ্য আমরা চাই না যে, কিন্ডারগার্টেনের বাচ্চারা ভোটকেন্দ্রে হামাগুড়ি দিয়ে যাক৷'' স্পষ্ট করে বলে ১৬ বছরের ফেলিক্স ফিংকবাইনার৷ সে আরো জানায়, ‘‘আমরা চাই ভোটাধিকারের বয়স কমিয়ে ১৬ কিংবা ১৪ বছর করা হোক৷ রাজনীতি সচেতন কোনো কিশোর ভোট দিতে চাইলে সে সুযোগ থেকে তাকে বঞ্চিত করা উচিত নয়৷''

ভোটাধিকারের দাবি

গত কয়েক বছর ধরে শিক্ষা ও পরিবেশ সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে মাথা ঘামাচ্ছে ফেলিক্স৷ যে সব বিষয়ের সঙ্গে তার ভবিষ্যৎ জড়িয়ে রয়েছে, সে ব্যাপারে সিদ্ধান্তও নিতে চায় এই কিশোর৷

গত বছরের নভেম্বর মাসে ফেলিক্স ও তার বন্ধুরা ভোটাধিকারের সর্বনিম্ন বয়সসীমা বাতিল করার দাবি জানিয়ে একটি অভিযোগ সংসদের নিম্নকক্ষে পেশ করে৷ এ ব্যাপারে ‘ভবিষ্যৎ প্রজন্মের অধিকাররক্ষা ফাউন্ডেশনের' পক্ষ থেকে তাদের সহায়তা করা হয়৷ তবে কিশোরদের এই অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করা হয়৷ তাই সম্প্রতি তারা ফেডারেল সাংবিধানিক আদালতে এ ব্যাপারে মামলা দায়ের করেছে৷

এই কিশোররা মনে করে বয়স্কদের পরিচালিত রাজনীতি খুব শ্লথ গতিতে চলে৷ এছাড়া প্রাপ্তবয়স্কদের তুলনায় তাদের চাহিদাও ভিন্নরকম৷ ‘‘আমাদের কাছে যা গুরুত্বপূর্ণ, রাজনীতিতে তা সেরকম গুরুত্ব পায় না৷ যেমন আমি পরিবেশ সমস্যা ও ন্যায়বিচারে আগ্রহী৷'' জানায় ফেলিক্স৷ এছাড়া শিক্ষার ক্ষেত্রেও বয়স্কদের চিন্তাভাবনার সঙ্গে কিশোর কিশোরীদের চিন্তাভাবনার ফারাক অনেক৷

Wolfgang Gründinger

ভল্ফগাং গ্র্যুনডিঙার বলেন, অস্ট্রিয়াতে ১৬ বছর বয়স থেকেই কিশোর-কিশোরীরা ভোট দিতে পারে

কিশোরদের চিন্তাভাবনা দীর্ঘমেয়াদী

শিশু কিশোররা দীর্ঘমেয়াদী চিন্তাভাবনা করে৷ কেননা স্বাভাবিকভাবেই তারা পৃথিবীতে বেশিদিন থাকবে৷ আজ যে সব সমস্যার সমাধান করা যাচ্ছে না, ভবিষ্যতে সে সব সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে তাদেরই৷

তবে সমালোচকরা ভিন্ন মত পোষণ করেন৷ সিডিইউ-ঘরানার তরুণ দল ‘ইয়ুঙে ইউনিয়ন'-এর ইওহানেস শ্টাইনিগার এই প্রসঙ্গে আইনি বাধ্যবাধকতার কথা উল্লেখ করেন৷ আইনি দায়বদ্ধতা ও ভোটাধিকারের বয়স ১৮ বছর থেকে করা হয়েছে৷ ‘‘আমাদের এখানে অধিকার ও কর্তব্যের মধ্য ভারসাম্য রক্ষা করা হয়৷ ভোটাধিকারের বয়স কমানো হলে এই অধিকারও ক্ষুণ্ণ হতে পারে৷'' যুক্তি দেন শ্টাইনিগার৷

অন্যদিকে ‘ভবিষ্যৎ প্রজন্মের অধিকাররক্ষা ফাউন্ডেশনের' ভল্ফগাং গ্র্যুনডিঙার বলেন, অস্ট্রিয়াতে ১৬ বছর বয়স থেকেই কিশোর-কিশোরীরা ভোট দিতে পারে৷ গত নির্বাচনগুলিতে বয়স্কদের চেয়ে কিশোর ভোটারদের অংশ গ্রহণের হার বেশি ছিল সেখানে৷ তিনি মনে করেন, ভোটাধিকারের বয়স হ্রাস করা হলে রাজনীতির প্রতি কিশোরদের আগ্রহ বৃদ্ধি পাবে৷ এই যুক্তি মেনে নিতে নারাজ শ্টাইনিগার৷ এর পরিবর্তে রাজনৈতিক বিষয়বস্তুর ব্যাপারে নতুন করে চিন্তাভাবনা করার প্রস্তাব রাখেন তিনি৷ পরামর্শ দেন স্কুলে রাজনৈতিক শিক্ষার প্রতি জোর দিতে৷

কয়েকটি রাজ্যে সীমিত সুযোগ রয়েছে

জার্মানির কয়েকটি রাজ্যে রাজ্য বিধানসভা ও কিছু ক্ষেত্রে স্থানীয় নির্বাচনে কিশোর কিশোরীরা ১৬ বছর বয়স থেকে ভোট দিতে পারে৷ যেমন শ্লেসভিগ হলশ্টাইন, ব্রান্ডেনবুর্গ, নর্থরাইন ওয়েস্টফালিয়া, স্যাক্সনি-আনহাল্ট ও ট্যুরিঙেনে৷ লোয়ার স্যাক্সনিতে ১৯৯৬ সাল থেকেই ১৬ বছর বয়সিরাও স্থানীয় নির্বাচনে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারছে৷

অবশ্য জার্মানিতে অনূর্ধ্ব ১৮ বছর বয়সিরা এক ধরনের নির্বাচনে অংশ নিতে পারে ১৯৯৬ সাল থেকে৷ এই নির্বাচন বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি সংস্থা কর্তৃক পরিচালিত হয়ে থাকে৷ তবে তাদের ভোট সরাসরি বার্লিনের রাজনীতিতে প্রভাব বিস্তার করে না৷ এই নির্বাচনের মাধ্যমে শুধু রাজনীতিতে কিশোর ভোটারদের মনোভাব প্রকাশ পায়৷

পালটাপালটি যুক্তি

অন্যদিকে ১৬ বছর বয়স থেকে ভোটাধিকার দেওয়ার ব্যাপারে উল্টো যুক্তিও দেওয়া যেতে পারে৷ ২০১১ সালে বাডেন-ভ্যুর্টেমব্যার্গের কিশোর ভোটারদের নির্বাচনে কট্টর দক্ষিণপন্থি এনপিডি পার্টি সাধারণ রাজ্যসভার নির্বাচনের চেয়ে চার গুণ বেশি ভোট পেয়েছে৷

গ্র্যুন্ডিঙার এই যুক্তি খণ্ডন করে বলেন: ১৮ বছরের কম বয়সিদের ইউরোপীয় নির্বাচনে কট্টর ডানপন্থি দল ‘অল্টারনেটিভ ফর জার্মানি' খুব খারাপ ফলাফল করেছে৷ মাত্র দুই শতাংশ এই দলকে ভোট দিয়েছে৷ অন্যদিকে প্রাপ্তবয়স্করা তো এই দলকে ইউরোপীয় সংসদে প্রতিনিধি করে পাঠিয়েছে৷ এখানে প্রশ্ন করাই যেতে পারে, কারা চরম ডানপন্থার দিকে ঝোঁকে – বেশি বয়স্করা না অল্পবয়সিরা?

আসল কথা হলো জার্মানিতে বর্ষীয়াণদের হার বাড়ছে৷ ২০২০ সালে জনসাধারণের ছয় ভাগের একভাগ হবে তরুণ সম্প্রদায়৷ এর ফলে বয়স্করাই রাজনৈতিক অ্যাজেন্ডা ও ভবিষ্যতমুখী বিষয়ের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবেন৷ এই মত ‘ভবিষ্যৎ প্রজন্মের অধিকার রক্ষা ফাউন্ডেশনের'৷

১৬ বছর বয়সি ফেলিক্স ফিংকবাইনার ও তার বন্ধুবান্ধবদের ফেডারেল সাংবিধানিক আদালতের রায়ের জন্য অপেক্ষা করতে হবে৷ সে পর্যন্ত তাদের অধিকার আদায়ের জন্য লড়াই করে যাবে তারা৷ নির্বাচনের বয়সসীমা নিয়ে বক্তৃতা বিবৃতি দিয়ে মনোযোগ আকর্ষণ করবে মানুষের৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়