1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

জার্মানির মায়েরা যখন গর্ভপাত বেছে নেন

জন্মের আগেই শিশুর শরীরে ত্রুটি শনাক্ত করার প্রযুক্তি মানুষের হাতের মুঠোয় চলে এসেছে৷ ডাউন সিন্ড্রোমের আশঙ্কা থাকলে জার্মানিতে মায়েরা সাধারণত গর্ভপাতের পথ বেছে নেন৷ নতুন এক পরীক্ষাও এই বিতর্ককে আরও উসকে দিচ্ছে৷

Bildergalerie Fotoprojekt 11 Wochen, 23 Stunden, 59 Minuten – Illegale Abtreibung in Argentinien

প্রতীকী ছবি

আখেন বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে জন্মের আগে শিশুর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন ড. টামে গ্যোকে৷ চিকিৎসাবিদ্যার অগ্রগতির ফলে এখন তিনিও আগেভাগেই রোগ প্রায় নিখুঁতভাবে শনাক্ত করতে পারেন৷ এখন তিনি জেনেটিক বিশ্লেষণ প্রক্রিয়াও কাজে লাগাচ্ছেন৷

‘প্রি-নাটাল ডায়াগনোসিস'-এর ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি খোঁজ পড়ে ‘ডাউন সিনড্রোম-এর৷ ভবিষ্যৎ সন্তানের শরীরে এটা ধরা পড়লে জার্মানিতে প্রায় ৯০ শতাংশ অন্তঃসত্ত্বা নারী গর্ভপাতের সিদ্ধান্ত নেন৷ ড. টামে গ্যোকে বলেন, ‘‘এটা একটা কঠিন পরিস্থিতি৷ কারণ গর্ভবতী নারীর অবশ্যই নিজস্ব সিদ্ধান্ত নেবার, নিজের ভবিষ্যৎ স্থির করার অধিকার রয়েছে৷ আমাদেরও সেটা মেনে নিতে হয়৷ অন্যদিকে আমাদের মূল কাজ জীবন রক্ষা করা – অনেকটা ভাবী শিশুর হয়েও ওকালতি করা৷''

ফার্স্ট ট্রিমেস্টার স্ক্রিনিং-এর ক্ষেত্রেও ডাউন সিন্ড্রোম রোগের ঝুঁকি নির্ণয় করা হয়৷ এর জন্য আলট্রা-সাউন্ড ও রক্ত পরীক্ষা করা হয়৷ ড. গ্যোকে বলেন, ‘‘ফার্স্ট ট্রিমেস্টার স্ক্রিনিং-এর আলট্রা-সাউন্ড পরীক্ষায় আমরা মূলত শিশুর উচ্চতা মেপে দেখি৷ তার আকার ও অবয়ব ভালো করে লক্ষ্য করি৷ নিউকাল স্ক্যান করাও খুব জরুরি৷ নাকের হাড়ের মতো অঙ্গগুলির উপরও নজর রাখতে হয়, যাতে ভবিষ্যতে ঝুঁকি বিশ্লেষণের সময় এগুলিও বিবেচনা করা যায়৷''

নাকের হাড় ছোট হলে সেটা ডাউন সিন্ড্রোমের ইঙ্গিত হতে পারে৷ সেইসঙ্গে ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ হৃদযন্ত্রের ত্রুটিও এই পরীক্ষায় ধরা পড়ে৷

ডাক্তাররা অন্তঃসত্ত্বা নারীর রক্ত পরীক্ষায় দু'রকম বায়োকেমিকাল ভ্যালু খোঁজেন৷ সেই পরীক্ষা থেকেও আগাম ধারণা পাওয়া যায়৷ ড. গ্যোকে বলেন, ‘‘প্রায় ৯৫ শতাংশ নারীর ফার্স্ট ট্রিমেস্টার স্ক্রিনিং-এর ক্ষেত্রে কোনো অস্বাভাবিক ফল পাওয়া যায় না৷''

পরীক্ষায় কোনো শিশুর ক্রোমোজোমের ত্রুটির ঝুঁকি ধরা পড়লে অ্যামনিয়টিক ফ্লুইড পরীক্ষায় স্পষ্ট চিত্র পাওয়া যায়৷ কিন্তু সেটা করতে গেলে গর্ভপাতের ভয় থাকে৷ ড. গ্যোকে বলেন, ‘‘তখন আমরা দেখি, সূচ কী ভাবে অ্যামনিয়টিক ফ্লুইড পর্যন্ত ঢুকে গেছে৷ এখানে সমস্যা হলো কিছু ক্ষেত্রে শিশুও জখম হতে পারে৷''

সম্প্রতি অ্যামনিয়টিক ফ্লুইড পরীক্ষার বিকল্প খুঁজে পাওয়া গেছে৷ তখন থেকে জার্মানিতে ট্রাইসোমি রক্ত পরীক্ষা শুরু হয়েছে৷ ভাবী বাবা-মায়েদের এর জন্য প্রায় ৬৪০ ইউরো গুনতে হয়, যা স্বাস্থ্য বিমার আওতার বাইরে৷ ড. গ্যোকে বলেন, ‘‘ফিটাল ডিএনএ টেস্টের ক্ষেত্রে মায়ের শরীরে সূচ ঢুকিয়ে রক্ত বার করা হয় না৷ এই রক্তে শিশুর কোষের অংশ থাকে৷ তা পরীক্ষা করে জানা যায় – তার ক্রোমোজোমে কোনো অস্বাভাবিক বিষয় ধরা পড়ছে কি না৷''

এই রক্ত পরীক্ষার সমালোচকদের আশঙ্কা, শিশুর শরীরে ডাউন সিন্ড্রোম ধরা পড়লে অন্তঃসত্ত্বা নারীদের উপর গর্ভপাতের জন্য চাপ বাড়বে৷ কারণ এই পরীক্ষা খুবই সহজ৷ ড. গ্যোকে বলেন, ‘‘বিষয়টি অত্যন্ত ভেবে চিন্তে মূল্যায়ন করতে হবে৷ আমার মতে, বিচ্ছিন্নভাবে শুধু এই পরীক্ষার উপর নির্ভর করলে চলবে না৷ এতে শুধু ক্রোমোজোমের অনুপাত পরীক্ষা করা যায়৷ তার সঙ্গে আলট্রাসাউন্ড পরীক্ষা করলে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের ত্রুটি ধরা পড়বে, যা আরও ঘনঘন দেখা যায়৷''

শুরু থেকেই হাসপাতালে ট্রাইসোমি রক্ত পরীক্ষার চাহিদা বাড়ছে৷ প্রতিবন্ধীদের সংগঠন বিষয়টি সম্পর্কে অত্যন্ত সন্দিহান৷ কারণ অনেক অন্তঃসত্ত্বা নারী ডাউন সিন্ড্রোম সম্পর্কে যথেষ্ট সচেতন নন৷ তখন তাঁদের কাছে মনে হয়, গর্ভপাতই একমাত্র পথ৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক