1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

জার্মানির বিশ লাখ শিশু দরিদ্রতার শিকার

জার্মানি ক্রমশ আর্থিকভাবে সমৃদ্ধশালী হলেও দেশটিতে শিশু দরিদ্রতা বাড়ছে, সাম্প্রতিক এক গবেষণা বলছে এ তথ্য৷ এ জন্য সরকারের পারিবারিক নীতিকে দায়ী করছেন বিশেষজ্ঞরা৷

মানুষের সর্বনিম্ন প্রাত্যহিক চাহিদাগুলো মেটাতে জার্মানিতে কোনো ঘাটতি নেই৷ খাদ্য, আবাস, শীতের পোশাক, ওষুধ এবং স্কুল – সবার জন্যই সহজলভ্য৷ এমনকি বাভেরিয়া বা বার্লিনের দরিদ্র শিশুরা বিশ্বের দুশ' কোটি শিশুর অধিকাংশের চেয়ে ভালো অবস্থানে রয়েছে৷

তা সত্ত্বেও, ব্যার্টেলসমান ফাউন্ডেশনের সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা যাচ্ছে যে, দরিদ্রতার মধ্যে বড় হওয়া শিশুর সংখ্যা জার্মানিতে ক্রমশ বাড়ছে৷ গবেষণায় দেখা গেছে, প্রায় বিশ লাখ শিশুর অভিভাবকরা রাষ্ট্রের সাধারণ সহায়তা, যা ‘‘হার্টৎস-ফিয়ার' নামে পরিচিত, নিয়ে জীবনযাপন করছেন৷ তাদের জার্মানিতে গরিব হিসেবে বিবেচনা করা হয়৷ দীর্ঘমেয়াদি গবেষণাটিতে গবেষকরা রাষ্ট্রীয় কর্মসংস্থান ব্যুরোর কাছ থেকে পাওয়া তথ্য যাচাই-বাছাই করে শিশুদের উপর দরিদ্রতার প্রভাব কী, তা নির্ধারণের চেষ্টা করেছেন৷

টাটকা খাবারদাবার নিয়মিত খেতে না পারায় গরিব ঘরের শিশুদের মধ্যে পুষ্টির অভাব দেখা যাচ্ছে এবং তারা নানারকম অসুখের শিকার হওয়ার শঙ্কার মধ্যে রয়েছে৷ গবেষণায় আরো দেখা গেছে, দরিদ্রতার শিকার পরিবারের শিশুরা সমাজ থেকে অনেকটা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়৷ কেননা অভিভাবকরা তাদের স্কুলের প্রমোদভ্রমণে কিংবা খেলাধুলায় বা সংগীত কোর্সে পাঠাতে পারেন না৷ দরিদ্র শিশুদের নিজস্ব বেডরুম বা অনেকক্ষেত্রে বাসায় হোমওয়ার্ক করার নিরিবিলি জায়গাও থাকে না৷

জার্মানিতে অসাম্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ

বিশ্বের পঞ্চম সমৃদ্ধতম দেশেও দারিদ্র্য আছে...

এ সব কারণে দরিদ্র পরিবারের শিশুরা লেখাপড়ায় ভালো করতে পারে না৷ ব্যার্টেলসমান ফাউন্ডেশনের পারিবারিক নীতি বিষয়ক কর্মকর্তা আনেটা স্টাইন এই বিষয়ে বলেন, ‘‘নিরাপদ রোজগার আছে এমন পরিবারের সন্তানদের চেয়ে দরিদ্র শিশুদের শিক্ষাজীবনে বেশি সমস্যা দেখা যায়৷''

তবে এর অর্থ এই নয় যে, দরিদ্র পরিবারে জন্ম নেয়া শিশুরা সবসময় দরিদ্র থাকে৷ বরং নিম্নআয়ের পরিবারের অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের জন্য যতটা সম্ভব করার চেষ্টা করেন৷ এর পরেও অবশ্য দরিদ্রতার চিহ্ন থেকে যায়৷ স্টাইন বলেন, ‘‘শিশুরা যত বেশি দরিদ্রতার মধ্যে থাকে, ততবেশি নেতিবাচক বিষয়াদি দিয়ে প্রভাবিত হয়৷''

গবেষণায় আরো দেখা গেছে, একক অভিভাবকের সঙ্গে দুই বা ততোধিক ভাইবোন আছে এমন শিশুদের মধ্যে দরিদ্রতার হার অপেক্ষাকৃত বেশি৷

ফলে শিশুরা কোথায় বেড়ে উঠছে তার উপরে তাদের ভবিষ্যৎ প্রভাব বিস্তার করে৷ গবেষণায় দেখা গেছে, জার্মানির ধনী রাজ্যগুলোর শিশুদের মধ্যে অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল রাজ্যগুলোর শিশুদের তুলনায় দরিদ্রতার হার কম৷ জার্মানির পূর্বাঞ্চলে যেখানে প্রতি পাঁচটি শিশুর একটি দরিদ্র, সেখানে বাভেরিয়ায় প্রতি দশটি শিশুর একটি দরিদ্রতার শিকার৷

শিশুদের এই অবস্থার জন্য সরকারকে দায়ী করেছেন স্টাইন৷ তিনি জানান, পারিবারিক নীতি নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে এবং কিছু উদ্যোগও নেয়া হয়েছে৷ কিন্তু তাতে কাজ হচ্ছে না৷ তাঁর মতে, সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে কিভাবে সামাজিক কল্যাণভাতার রেট হিসেব করা হচ্ছে৷ বর্তমানে, প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য প্রযোজ্য রেট শিশুদের জন্যও ব্যবহার করা হচ্ছে, বলেন তিনি৷ স্টাইন মনে করেন, শিশুদের প্রয়োজনের কথা বিবেচনায় এনে সেই অনুযায়ী তাদের আর্থিক সহায়তা দিতে হবে৷ শুধু স্কুলিং নয়, সাংস্কৃতিক এবং শিক্ষামূলক প্রতিষ্ঠানগুলোতে তাদের অংশগ্রহণের সুযোগ নিশ্চিত করতে হবে৷

উল্লেখ্য, শিশু দরিদ্রতা জার্মানিতে নতুন নয়৷ কিন্তু ফাউন্ডেশনের গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, এটা রোধে সরকারি উদ্যোগগুলোর কোনোটাই পর্যাপ্ত নয়৷ বিষয়টি বিবেচনায় এনে জার্মানির অর্থমন্ত্রী ভল্ফগাং শয়েবলে গতসপ্তাহে শিশুদের জন্য সহায়তায় মাসে দুই ইউরো বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছেন৷ বলাবাহুল্য, অর্থমন্ত্রীর এই উদ্যোগের সমালোচনা করেছেন অনেকে, কেননা তারা মনে করেন মাত্র দুই ইউরো বাড়ালে কোনো কিছুই বদলাবে না৷

জার্মানির মতো একটি উন্নত দেশে ২০ লক্ষ শিশু দারিদ্রতাক শিকার, বিশ্বাস হয়? লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন