1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

জার্মানির বিশ্বকাপ জয়ে কৃষক আমজাদের মেজবান

মাগুরার সেই জার্মান ফুটবল দলের ভক্ত কৃষক আমজাদ হোসেন এখন আনন্দের জোয়ারে ভাসছেন৷ জার্মানির বিশ্বকাপ জয়ে তাঁর গ্রামের লোকেরা তাঁকে নিয়ে আনন্দ মিছিল করেছেন৷ তাঁকে গোসল করিয়েছেন দুধ দিয়ে৷

এদিকে আমজাদ মেজবান করে গ্রামের অন্তত ৫০০ মানুষকে ভুঁড়িভোজ করানোর ঘোষণা দিয়েছেন৷ জার্মান দূতাবাস আমজাদকে ঢাকায় আসার আমন্ত্রণ জানিয়েছে৷

সাড়ে ৩ কিলোমিটার লম্বা জার্মানির পতাকা তৈরি করে জার্মান জাতীয় ফুটবল দলের অফিসিয়াল ফ্যান ক্লাবের আজীবন সদস্যপদ পাওয়া মাগুরার ঘোড়ামারা গ্রামের কৃষক আমজাদ হোসেনকে নিয়ে সোমবার ভোররাতেই শুরু হয় আনন্দ উল্লাস৷ জার্মানির জয় নিশ্চিত হওয়ার পরই তাঁর গ্রামের লোকজন তাঁকে কোলে তুলে নিয়ে আনন্দ প্রকাশ করেন৷ আর আমজাদও আনন্দে চিৎকার করতে থাকেন৷

3,5 Kilometer lange Deutschlandfahne in Magura Bangladesh

গ্রামের অন্তত ৫০০ মানুষকে ভুঁড়িভোজ করানোর ঘোষণা দিয়েছেন

এরপর সকাল হতেই গ্রামের শত শত লোক তাঁর বাড়িতে আসতে শুরু করেন৷ তাঁরা আমজাদকে মাথায় তুলে জার্মানির পতাকা নিয়ে গ্রামে আনন্দ শোভাযাত্রা বের করেন৷ শোভাযাত্রার পর রীতি অনুযায়ী গ্রামের মানুষ দুধ ছিটিয়ে বরণ করেন এই জার্মান ভক্তকে৷ তারপর দুধ মেশানো পানি দিয়ে তাঁকে গোসল করানো হয়৷

আমজাদও কম যান না৷ গ্রামের সবাইকে তিনি খাওয়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন৷ ডয়চে ভেলেকে তিনি টেলিফোনে জানান, আগামী কয়েকদিনের মধ্যে জার্মানির বিশ্বকাপ জয়ের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে মেজবানের আয়োজন করবেন৷ অন্তত ৫০০ লোককে এই মেজবানে ভুঁড়িভোজের আমন্ত্রণ জানাবেন তিনি৷ এজন্য টাকা পয়সা জোগাড়ে লেগে গেছেন৷ প্রয়োজন হলে এবারও তিনি জমি বিক্রি করবেন বলে জানান৷ আমজাদ বলেন ভোজে কাউকে অতৃপ্ত রাখবেন না তিনি৷

এদিকে গ্রামের মানুষও এবার জার্মানির বিশ্বকাপ জয়ে বেজায় খুশী৷ তাঁদের কথা আমজাদ তাঁদের গ্রামকে পরিচিত করেছে৷ এই গ্রামটিকে এখন সবাই চেনে৷ তাঁরাও চান এবার আমজাদের মেজবানে সহায়তা করতে৷

১৯৮৭ সালে দুরারোগ্য এক অসুখে আক্রান্ত হলে কৃষক আমজাদ হোসেন (৬৫) চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন পথ্য ব্যবহার করেও কোনো সুফল পাননি৷ শেষে জার্মানি থেকে আনা ওষুধ সেবনে সুস্থ হয়ে ওঠেন তিনি৷ তারপর থেকেই জার্মানির প্রতি অনুরাগ তাঁর৷

জার্মানির প্রতি ভালোবাসার কারণে তিনি এবারের বিশ্বকাপে ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা খরচ করে প্রায় ৩ কি.মি. দীর্ঘ জার্মানির পতাকা তৈরি করেন৷ এজন্য তাঁকে বিক্রি করতে হয়েছে ফসলি জমি৷

এই খবর সংবাদ মাধ্যমে জানতে পেরে আকৃষ্ট হয় ঢাকার জার্মান দূতাবাস৷ ঢাকায় জার্মানির শার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স ড. ফ্যার্ডিনান্ড ফন ভেহে শনিবার বিকেলে মাগুরায় যান আমজাদের তৈরি করা দীর্ঘ পতাকাটি দেখতে৷ সেখানে তিনি আমজাদ হোসেনকে জার্মান ফুটবল দলের অফিসিয়াল ফ্যান ক্লাবের আজীবন সদস্যপদ দেয়ার ঘোষণা দেন৷ ফ্যান ক্লাবের সদস্যপদের পাশাপাশি তাঁর হাতে তুলে দেয়া হয় শুভেচ্ছা স্মারক, জার্মান জাতীয় দলের পতাকা, জার্সি ও একটি ফুটবল৷

এদিকে ঢাকায় জার্মান ফুটবল দলের ভক্তরাও নানাভাবে উদযাপন করছেন জার্মানির বিশ্বকাপ জয়কে৷ ভোররাতেই আনন্দ মিছিল বের করেন৷ আর সকালে বাইরে বের হন প্রিয় জার্মান দলের জার্সি গায়ে চাপিয়ে৷ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বিশেষ করে ফেসবুকে চলছে জার্মান ভক্তদের জয় উদযাপন৷ তাঁরা নানাধরণের ছবি আর মন্তব্য লিখে জয়কে উপভোগ করছেন৷

সোমবার রাতে জার্মান ফুটবল দলের ভক্তদের ঢাকায় একাধিক পার্টি আয়োজনেরও খবর পাওয়া গেছে৷ জার্মানভক্ত সাংবাদিক সমীর কুমার দে ডয়চে ভেলেকে বলেন, জার্মানি যোগ্য দল হিসেবেই বিশ্বকাপ জিতেছে৷ তাঁরা দাপটের সঙ্গে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করে দাপটের সঙ্গেই শেষ করেছেন৷ এরকম একটি পেশাদার এবং ভারসাম্যপূর্ণ দলের জয়ের মধ্য দিয়ে ফুটবলেরই জয় হলো বলে মনে করেন তিনি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন