1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

জার্মানির বিদেশি শিক্ষার্থীদের বড়দিনের উপহার ভাবনা

উপহার ছাড়া বড়দিন, এটা অনেক জার্মান পরিবার কল্পনাও করতে পারে না৷ তাইতো সঠিক উপহারের সন্ধানে সবাই ব্যতিব্যস্ত হয়ে পড়েন৷ কিন্তু জার্মানিতে বসবাসরত বিদেশি ছাত্রছাত্রীরা উপহারের ব্যাপারে কী ভাবছেন?

প্রবাসে বড়দিন পালনের কথাটা চিন্তাও করতে পারেন না পোল্যান্ড থেকে আসা আলিসিয়া৷ হিল্ডেসহাইম ইউনিভার্সিটিতে শীতকালীন সেমিস্টার থেকে আন্তর্জাতিক যোগাযোগ ও অনুবাদ বিভাগে পড়াশোনা করছেন তিনি৷ ক্রিসমাসের সময় মা-বাবার কাছে পোল্যান্ডে যাচ্ছেন তিনি৷ সাথে থাকছে একেবারেই জার্মান কিছু উপহার ও জিনিসপত্র৷ এই সম্পর্কে আলিসিয়া জানান, ‘‘স্বাভাবিকভাবেই আত্মীয় স্বজনের জন্য উপহার কিনেছি আমি৷ যেমন বোতলে ভরা সসেজ ও নানা রকম ছয় সাতটি জিনিস৷


স্বদেশে আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে কাটাতে চান অনেকে

জার্মানির আশেপাশের দেশ থেকে আসা বিদেশি ছাত্রছাত্রীরা সম্ভব হলে বড়দিনের ছুটিটা স্বদেশে আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে কাটাতে ভালবাসেন৷ সাথে থাকে অবশ্যই নানা রকমের উপহার৷ বেছে বেছে জার্মানির ঐতিহ্যবাহী জিনিসপত্র কেনার চেষ্টা করেন তারা৷ মা-বাবা, ভাই-বোন, নানা-নানি, দাদা-দাদি সবার জন্যই পছন্দসই উপহার কেনার চেষ্টা করেন এই তরুণ তরুণীরা৷ অবশ্য বাজেটে যতোটা কুলায়৷

22.11.2013 DW WIRTSCHAFT Tee 3

বিভিন্ন চা


দক্ষিণ কোরিয়া থেকে আসা মিয়োঙজে বড়দিনের উপহারকে ঘিরে জার্মানদের এই রকম স্ট্রেস বুঝতে পারেন না৷ সাধারণত বড়দিনে তিনি ও তাঁর তিন ভাইবোন প্রত্যেকের জন্য একটি করে উপহার কেনেন৷ এগুলি প্যাকেট করে রেখে দেওয়া হয়৷ যে কেউ যে-কোনো প্যাকেটি তুলতে পারেন৷ এই বছর তাঁর পরিবার বুঝতে পারবে জার্মানি থেকে কে প্যাকেটটি পাঠিয়েছে৷

কয়েক ধরনের ‘চা'

মিয়োঙজে বলেন, ‘‘আমি কয়েক ধরনের চা দেখেছি এখানে৷ কোরিয়াতে আমরা শুধু গ্রিন টি কিংবা কফি পান করি৷ এবার আমি ভ্যানিলার স্বাদের ফলের চা কিনেছি৷ আপেল টি, মেলিসা টিও কিনেছি৷'' ইতোমধ্যে মা-বাবার কাছ থেকে একটি প্যাকেট পেয়ে গেছেন বলে জানান উৎফুল্ল মিয়োঙজে৷

তবে ভিয়েতনামের আন গুয়েট দেশ থেকে পাঠানো উপহারের আশা করতে পারেন না৷ তাঁর পরিবারের জন্য এটা খুব ব্যয়সাপেক্ষ ও কষ্টকর৷

তাঁর ভাষায়, ‘‘আমার পরিবার বড় শহরে বাস করে না৷ বাস করে গ্রামাঞ্চলে৷ সেখান থেকে জার্মানিতে কিছু পাঠানো সহজ নয়৷''

ক্রিসমাসের কার্ড

মা-বাবাকে জার্মানি থেকে ক্রিসমাসের কার্ড পাঠিয়েছেন তিনি৷ তুষার ঢাকা হিল্ডেসহাইমের ফটো পাঠানোর ইচ্ছা তাঁর৷ মা এই রকম ছবি দেখতে খুব আগ্রহী৷

ঘনিষ্ঠ বান্ধবীর জন্য একটি স্কার্ফ কিনেছেন আন গুয়েট৷ আরেক বান্ধবী পাবে ভিয়েতনামের একটি ব্রেসলেট৷ অবশ্য এখনও এটা গোপন রাখা হয়েছে৷ হেসে জানান এই ছাত্রী৷


পবিত্র রাতে অন্যান্য বিদেশি ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে হিল্ডেসহাইমে কাটাবেন তিনি৷ জার্মান বন্ধু বান্ধবরা তো তাদের পরিবারের সাথে উৎসবটি পালন করবেন৷

চিঠি ও ফুল অনেক বেশি মূল্যবান

তুর্কি ছাত্রী বেলজান ছোটবেলায় স্যান্টাক্লজের জন্য প্রতি বছর অপেক্ষা করেছেন এবং প্রতিবারই হতাশ হয়েছেন৷

তাঁর ভাষায়, ‘‘সাত বছর বয়স পর্যন্ত আমি স্যান্টাক্লজের জন্য অপেক্ষা করেছি৷ ইউরোপীয় কার্টুন ফিল্মে আমি স্যান্টাক্লজকে দেখেছি৷ যিনি বাচ্চাদের জন্য সুন্দর সুন্দর জিনিস নিয়ে আসতেন৷ কিন্তু এরপর আমি বুঝতে পেরেছি, তুর্কিদের জন্য কোনো স্যান্টাক্লজ নেই৷''


মুসলিম প্রধান দেশ তুরস্কে অত ঘটা করে বড়দিন পালন করা হয় না৷ তার বদলে থাকে নববর্ষের উপহার৷ এ জন্য এক দোকান থেকে আরেক দোকানে গলদঘর্ম হওয়ার ইচ্ছা বেলজানের নেই৷ এর বদলে পরিবার ও বন্ধু-বান্ধবকে চিঠি লিখতে ভাল লাগে তাঁর৷

বেলজান বলেন, ‘‘আমি আমার পরিবার ও বন্ধুদের কাছে চিঠি লিখছি৷ মাঝে মাঝে বাগান থেকে ফুল ছিড়ে চিঠিতে ঢুকিয়ে দেই৷ কেনা কোনো জিনিসের চেয়ে এটা আমার কাছে অনেক মূল্যবান৷''


বেলজান আন্তর্জাতিক যোগাযোগ ও অনুবাদ বিভাগে পড়াশোনা করছেন৷ এই প্রথম বড়দিন কাটাবেন তিনি জার্মানিতে, পরিচিত হতে পারবেন ভিন্ন সংস্কৃতির সাথে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়