1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

জার্মানির অভিবাসীরা কি সুখী?

অভিবাসীদের মধ্যে যারা জার্মান ভাষাটা ভাল জানেন তারা জীবনে সন্তুষ্ট৷ এই তথ্য জানা গেছে ‘সুখ অ্যাটলাস ২০১৩' নামে এক জরিপের ফলাফলে৷ তবে বিশেষজ্ঞরা এ ব্যাপারে সন্দিহান৷

সুখ আসলে কী? কেমন করে তা পাওয়া যায়? এই সব প্রশ্নের উত্তর খোঁজার চেষ্টা করেছেন গবেষকরা৷ তাঁরা সুখ বলতে সাধারণত জীবনের সন্তুষ্টির কথা বলেছেন৷ আর সেটা পরিমাপও করা যায়৷ জার্মান পোস্টের উদ্যোগে ‘সুখ অ্যাটলাস ২০১৩' নামে এক সমীক্ষায় সেই চেষ্টাই করা হয়েছে৷ এতে জানতে চাওয়া হয়েছে জার্মানির মানুষরা, বিশেষ করে অভিবাসীরা কতটা সুখী?

জরিপ অনুযায়ী অভিবাসীরা সুখী

ফলাফলে দেখা গেছে বিদেশি বংশোদ্ভূত মানুষরা জার্মানিতে তাদের জীবনযাত্রা নিয়ে মোটামুটি সুখী৷ বিশেষ করে যারা জার্মান ভাষাটা ভাল বলতে পারেন৷ এমনকি তারা তুলনামূলকভাবে অন্যান্যদের চেয়েও বেশি সন্তুষ্ট৷ উত্তরদাতাদের ৪৯ শতাংশ তাদের আর্থিক অবস্থা ‘ভাল থেকে খুব ভাল' বলে মনে করেন৷ জার্মানদের মধ্যে এই হার ৪৫ শতাংশ৷

কোলনের অভিবাসীদের মানসিক স্বাস্থ্যপরিষেবা সংক্রান্ত এক প্রতিষ্ঠানের প্রধান তুর্কী বংশোদ্ভূত আরিফ উনাল এই ফলাফলে বিস্মিত হননি৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘এটা নির্ভর করে স্বদেশ ছেড়ে এখানে আসার কারণ এবং কী রকম পরিস্থিতিতে তাদের দেশ ছাড়তে হয়েছে তার ওপর৷ অনেক অভিবাসীর জন্য জার্মানিতে আসতে পারাটা জীবন বাঁচানো এক পদক্ষেপ৷ আর এটাই তাদের সুখী করে৷''

সুখ নিয়ে গবেষণা করছেন ইয়ান ডেলহে৷ তাঁর মতও অনেকটা এইরকম৷ ‘‘অনেকের জন্য জার্মানির জীবনটা স্বদেশের চেয়ে ভাল৷ জার্মানিতে অভিবাসীদের ক্ষেত্রে বৈষম্য নিয়ে মাথা ঘামানো হয়, কিন্তু অনেকে যে ভালই আছেন সেটা উপেক্ষা করা হয়৷''

বৈষম্যের কারণে সন্তুষ্টি কমে যায়

অবশ্য বৈষম্যের কারণে জীবনে সন্তুষ্টি কমে যেতে পারে৷ এটা জানা গেছে ‘সুখ-অ্যাটলাস ২০১৩' নামক সমীক্ষায়৷ উত্তরদাতা অভিবাসীদের বেশিরভাগই জানিয়েছেন, যে তারা জাতিগত কারণে বৈষম্যমূলক আচরণের সম্মুখীন হয়েছেন৷ বিশেষ করে তুর্কি বংশোদ্ভূতরাই এই ধরনের কথা জানান৷

সুখ গবেষক ডেলহে জানান কেউ তার জীবন নিয়ে সুখী কিনা তা জানা যায় কয়েকটি বিষয় থেকে৷ আর তা হলো: পাওয়া, ভালোবাসা, থাকা৷ ব্রেমেনের ইয়াকব ইউনিভার্সিটির সমাজ বিজ্ঞানের শিক্ষক ডেলহে আরো বলেন, পাওয়া হলো মানুষের পার্থিব জিনিস পাওয়ার আকাঙ্খা, উপার্জন ও জীবনের মান উন্নয়নের ইচ্ছা৷ ভালোবাসা গড়ে ওঠে সামাজিক সম্পর্ককে ঘিরে৷ আর থাকা হলো আমরা জীবনটাতে কীভাবে চালাচ্ছি সেটা৷ যেসব মানুষ সক্রিয়, যাদের এমন কিছু আছে, যাতে তারা আগ্রহী, সে সব মানুষই সাধারণত জীবনে সুখী৷


কিছুটা বিস্মিত করেছে বিশেষজ্ঞদের

সুখ অ্যাটলাসের এই ফলাফল কিছুটা বিস্মিত করেছে উনাল ও ডেলহে-র মতো বিশেষজ্ঞদের৷ কেননা উত্তরদাতাদের মধ্যে তুলনামূলক সেই সব অভিবাসীই সুখী, যারা জার্মানিতে জন্ম গ্রহণ করেছেন৷ অন্যদিকে যারা নিজেরা এই দেশে অভিবাসনে এসেছেন, তাদের জীবনে সন্তুষ্টি কম৷ যেখানে অন্যান্য সমীক্ষায় উল্টো চিত্র দেখা গেছে৷ যেমন প্রথম প্রজন্মের অভিবাসীরা দ্বিতীয় প্রজন্মের অভিবাসীদের চেয়ে সন্তুষ্ট৷ যদিও তারা এখানকার সমাজে ভালভাবেই সম্পৃক্ত৷ জার্মান পোস্টের এই ফলাফলে ব্যতিক্রমী এক চিত্র উঠে এসেছে, বলেন ডেলহে৷


অন্যান্য সমীক্ষায় দেখা গেছে, প্রথম প্রজন্মের অভিবাসীরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সুখী বলে জানিয়েছেন৷ এর কারণ তারা সাধারণত দরিদ্র দেশগুলি থেকে এসেছেন৷ যেখানকার জীবনযাত্রার মান তেমন উন্নত নয়৷ জার্মানিতে আসার পর তাদের জীবনযাত্রার মান উন্নত হয়েছে৷ এটাও তাদের মনে সুখের অনভূতি জাগায়৷

Glücksforscher Jan Delhey

সুখ নিয়ে গবেষণা করছেন ইয়ান ডেলহে

জার্মানিতে জন্ম নেওয়া দ্বিতীয় প্রজন্মের ছেলেমেয়েদের এই অভিজ্ঞতা হয়নি৷ তাই তারা মা-বাবার দেশের সঙ্গে নিজেদের অবস্থার তুলনা করে না৷ জার্মানির সমাজে তাদের অবস্থান নিয়ে মাথা ঘামায় বেশি৷ এই কারণে এখানকার সমাজে সম্পৃক্ত হলেও বাবা-মার প্রজন্মের চেয়ে তারা কম সন্তুষ্ট, বলেন সুখ গবেষক ডেলহে৷

প্রথম প্রজন্ম সন্তুষ্ট

উনাল তাঁর নিজের অভিজ্ঞতা থেকেই ব্যাখ্যা করতে পারেন বিষয়টি৷ ‘‘তুরস্ক থেকে আসা প্রথম প্রজন্মের অতিথি শ্রমিকরা এখানে কাজ করতে এসেছেন৷ তাদের লক্ষ্য কিছুটা অর্থ উপার্জন ও সঞ্চয় করা৷ হয়তো বা স্বদেশে একটা বাড়ি কেনা৷''

এইসব লক্ষ্য পূরণ হয়ে গেলেই তারা সন্তুষ্ট হন৷ তাদের চাহিদা ততটা উঁচু নয়৷

অভিবাসীদের সন্তুষ্টির ক্ষেত্রে পারিবারিক বন্ধনেরও একটা ভূমিকা রয়েছে৷ বিশেষ করে দক্ষিণ ইউরোপ থেকে অভিবাসীদের মধ্যে এটা লক্ষ্য করা যায়৷ আর এটা সুখের অনুভূতিতে একটা ইতিবাচক প্রভাব ফেলে৷

সবশেষে বলা যায় সুখের অনুভূতি একেক জনের কাছে একেক রকম৷ এক্ষেত্রে সুখ গবেষক ডেলহে কিছু সৎ পরামর্শ দিয়েছেন, যা মানুষের মনে সুখের অনুভূতি জাগাতে পারে, ‘‘যত বেশি সম্ভব অন্য মানুষের সাথে সময় কাটানো এবং সক্রিয় হওয়া৷ বাড়িতে চিপস খেতে খেতে টেলিভিশন দেখে বেশি সময় কাটানো ঠিক নয়৷ কর্মতৎপর হওয়া, যে-কোনো একটা হবি থাকা ও খেলাধুলায় মন দেওয়া উচিত৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন