1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

জার্মানিতে রয়েছে তিন ধরনের স্কুল

প্রোগ্রাম ফর ইন্টারন্যশনাল স্টুডেন্ট অ্যাসেসমেন্ট বা পিসা'র জরিপে জার্মানির স্থান কিছুটা ওপরের দিকে উঠেছে৷ তবে এখনও শিক্ষার সাফল্য নির্ভর করে পরিবারের আর্থিক সামর্থ্যের ওপর৷

এই অবস্থার পরিবর্তন হওয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা৷ কেননা প্রতিটি শিশুকেই প্রয়োজন জার্মানির৷ প্রাথমিক স্কুলে মাইকে ও মুরাত, আইলিন ও আব্দুল কাদের, ইওনাস ও ইউলিয়া পাশাপাশি বসে৷ কিন্তু ‘গিমনাসিউম' বা হাইস্কুলে বিদেশি বংশোদ্ভূত খুব কম ছেলেমেয়েকেই দেখা যায়৷ ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে ভিনদেশি নামও খুব একটা শোনা যায় না৷ জার্মানির স্কুলগুলির স্বাভাবিক চিত্র এটা৷ শিক্ষিত ও বিত্তশালীদের ছেলেমেয়েরা তাদের মা-বাবার মতোই গিমনাসিউম বা হাইস্কুলে যায়, দেয় ফাইনাল পরীক্ষা ‘আবিট্যুর'৷ অসচ্ছল ও স্বল্প শিক্ষিত পরিবারের ছেলেমেয়েদের পক্ষে প্রায়ই হাইস্কুলে যাওয়া সম্ভব হয় না৷

বহু ছাত্রছাত্রী আগেই স্কুল ছেড়ে দেয়

অনেক ছাত্রছাত্রী ফাইনাল পরীক্ষা না দিয়েই স্কুল ছাড়ে৷ পরিমাণটা ছয় থেকে সাত শতাংশ৷ এর মধ্যে অনেক ছেলেমেয়েই বিদেশি বংশোদ্ভূত৷ আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে সংখ্যাটা কম মনে হলেও জার্মানির মতো অর্থনৈতিক দিক দিয়ে শক্তিশালী একটি দেশের পক্ষে এই সংখ্যাটা অনেক বেশি৷

জার্মানিতে রয়েছে তিন ধরনের স্কুল

জার্মানির তিন ধরনের স্কুল সিস্টেমের কারণেই এই ধরনের বৈষম্যের সৃষ্টি হয়৷ জার্মানির প্রতিটি রাজ্যেই ছাত্রছাত্রীরা দশ বছর বয়সের মধ্যেই বাছাই হয়ে যায়৷ বিভিন্ন মানের স্কুলে যেতে হয় তাদের৷ ভাল স্কোর হলে ‘গিমনাসিউম'; মাঝারি হলে ‘রেয়ালশুলে'; আর বাদ বাকিদের জায়গা হয় ‘হাউপ্টশুলে'-তে৷

হাউপ্টশুলেতে ছেলেমেয়েদের ক্যারিয়ার করা বা কোনো ভাল পেশায় ঢোকার সুযোগ খুব কম৷ বৈষম্যমূলক এই বাছাইপর্বে অল্পবয়সেই বাচ্চাদের অনেকটা ‘ব্যর্থ' বলে চিহ্নিত করা হয়৷ বিষয়টা শুধু হৃদয়হীনই নয়, অর্থনৈতিক দিক দিয়েও অবিবেচনাপ্রসূত৷ কেননা আধুনিক অর্থনীতিতে প্রশিক্ষণ ছাড়া ভাল কাজ পাওয়া যায় না৷ এখন প্রয়োজন প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ও শিক্ষিত কর্মী৷ সব ছেলেমেয়েকে যে আবিট্যুর দিতে হবে এমন কোনো কথা নেই৷ তবে ফাইনাল না দিয়ে স্কুল ছাড়া ছেলেমেয়ের সংখ্যাটা যতটা কম হয়, ততই ভাল৷ কেননা জার্মানিতে জন্মের হার ক্রমেই হ্রাস পাচ্ছে৷ তাই বাচ্চাদের কাট-ছাঁট করে এক দলকে বাদ দেওয়ার সামর্থ্য জার্মানির নেই৷ শুধু মাত্র ধনী বাবা-মার সন্তান নয়, সব বাচ্চাকেই প্রয়োজন জার্মানির৷

Bildergalerie Diskriminierung

জার্মানিতে ‘গিমনাসিউম' বা হাইস্কুলে বিদেশি খুব কম ছেলেমেয়েকেই দেখা যায়

সুশিক্ষার সঙ্গে অর্থের সম্পর্ক

ইদানীং জার্মানিতে দামি বেসরকারি স্কুলের ধুম পড়েছে৷ সেখানে রয়েছে ছোট ছোট ক্লাস, ব্যক্তিগত তত্ত্বাবধান, স্বনির্ভর শিক্ষা ব্যবস্থা, উদ্যোগী শিক্ষক ইত্যাদি৷ বিত্তশালীদের ছেলেমেয়েরাই এই সব স্কুলে পড়ার সুযোগ পায়৷

তবে সুশিক্ষা মানিব্যাগের ওপর নির্ভর করে চলতে পারে না৷ সব স্কুলেরই এমন হওয়া উচিত, যেখানে বাচ্চারা তাদের যোগ্যতার বিকাশ ঘটাতে পারে, পরস্পরের কাছে থেকে শিখতে পারে, যেখানে শিক্ষক ও ছাত্ররা পরস্পরের প্রতি সম্মান দেখান৷

তাই বলা যায় পিসা-জরিপে কিছুটা ভাল ফলাফল নিয়ে সন্তুষ্ট থাকলে চলবে না সংশ্লিষ্টদের৷ শিক্ষাক্ষেত্রে সুবিচার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে চিন্তাভাবনা করতে হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন