জার্মানিতে বিমান প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন ভারতীয় হবু পাইলটরা | বিজ্ঞান পরিবেশ | DW | 13.02.2011
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

জার্মানিতে বিমান প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন ভারতীয় হবু পাইলটরা

ভারতের বিভিন্ন স্থানে অভ্যন্তরীণ যোগাযোগের জন্য ক্রমেই জনপ্রিয় হয়ে উঠছে বিমান যোগযোগ৷ এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যাতায়াত করতে সেখানে গড়ে উঠছে বিভিন্ন বিমান কোম্পানি৷সেই বিমানের অনেক চালক প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন জার্মানিতে৷

default

প্রশিক্ষণের জন্য ছোট বিমানই সুবিধাজনক

জার্মানির ছোট্ট একটি বিমান বন্দর৷ কোলন এবং ফ্রাঙ্কফুট শহরের মধ্যবর্তী স্থানেই এর অবস্থান৷ জিগারলান্ড বিমান বন্দর৷ গ্রামীণ সবুজে ঘেরা এই জায়গাতেই আছে বিমান চালানোর একটি প্রশিক্ষণ স্কুল৷ তেমন নামকরা কোন ফ্লাইং একাডেমি নয় এটি৷ তবুও ক্ষণে ক্ষণে বিমান উড়ছে এখানে৷ প্রশিক্ষকের তত্বাবধানে যাঁরা বিমান চালনা শিখছেন তাঁদের বেশির ভাগই এসেছেন ভারত থেকে৷ ভারতে ক্রমবর্ধমান বিমান শিল্পের জন্য প্রয়োজন দক্ষ চালক বা পাইলট৷ উৎসাহীরা জার্মানিতে এসে নিচ্ছেন প্রশিক্ষণ৷

ভারতের এভি এভিয়েশন এবং জার্মানির এয়ার অ্যালায়েন্স যৌথভাবে এই প্রশিক্ষণের আয়োজন করেছে৷ এভি এভিয়েশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালিকা আঞ্জু ভার্গেসে, যিনি নিজেও পাইলট, তিনি ডয়চে ভেলকে বললেন, ‘ফ্লাইং পরিচালনার জন্য প্রশিক্ষণ জরুরি৷ সেই সঙ্গে এই শিল্পে প্রয়োজন দক্ষ চালক৷ সেই উদ্দেশ্যেই আমরা জার্মানিতে এসেছি৷ জার্মানির এই প্রশিক্ষণ আন্তর্জাতিক মানের৷' দক্ষ চালক তৈরির জন্যই ২০০৭ সাল থেকে যৌথ অংশিদারিত্বে এই কাজ হচ্ছে বলে তিনি জানান৷ তিনি বলেন, এই প্রশিক্ষণ এমন ভাবে দেয়া হচ্ছে যাতে বিমান চালনার সর্বশেষ সব উপায় ও তথ্য তাদের কাছে থাকে৷

জার্মানির এয়ার অ্যালায়েন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলেক্স বায়েমডিক ইন্দো-জার্মান এই সহযোগিতায় দারুন খুশি৷ জানালেন, সঠিক নিয়মে প্রশিক্ষণ দেবার জন্য আমরা প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে আসছি৷ তিনি জানালেন, তাঁর স্কুলে কেবল ভারত থেকেই নয়, স্পেন, পর্তুগাল, ইটালি এবং রাশিয়া থেকে শিক্ষার্থীরা বিমান প্রশিক্ষণ নিচ্ছে৷

২৪ ভছর বয়স্ক হবু পাইলট জন লিনাস জানালেন, এখানে প্রশিক্ষকদের মনোভাব খুবই পেশাজীবী৷ তাঁরা প্রতিটি জিনিস পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে শিখিয়ে থাকেন৷ এক কথায় যদি বলা যায় তাহলে বলতে হবে এই স্কুলের মান যে কোন স্কুলের তুলনায় ভালো- দাবি এই শিক্ষার্থীর৷ উল্লেখ্য, বাজার নিরীক্ষকদের বলছেন আগামী ২০২০ সাল নাগাদ ভারতে বর্তমানের চেযে দ্বিগুন হয়ে যাবে যাত্রী পরিবহন বিমানের সংখ্যা৷ ফলে এই খাতে প্রয়োজন হবে অনেক লোকবলের৷

প্রতিবেদন: সাগর সরওয়ার

সম্পাদনা: সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়

সংশ্লিষ্ট বিষয়