1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

জার্মানিতে বায়ুশক্তি প্রযুক্তির আরও উন্নতি

রাতারাতি পরমাণু বিদ্যুৎ পরিত্যাগ করে নবায়নয়োগ্য জ্বালানির ব্যবহার ধাপে ধাপে বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে জার্মানি৷ বায়ুশক্তিও এ ক্ষেত্রে বড় অবদান রাখবে৷ জার্মানির সিমেন্স কোম্পানি তাদের টার্বাইনের উন্নতি ঘটিয়ে চলেছে৷

জার্মানির বাল্টিক সাগর উপকূলে শীঘ্রই দেখা যাবে এমন টার্বাইন, যার উৎপাদন ক্ষমতা ৩.৬ মেগাওয়াট৷ সিমেন্স উইন্ড পাওয়ার কোম্পানির সবচেয়ে জনপ্রিয় মডেল এটি৷ এর ‘মেকানিকাল গিয়ার' রয়েছে৷ প্রপেলারের চাকার ‘ন্যাসেল'-এ সেটা বসানো থাকে এবং চাকা ঘুরলে বিদ্যুৎ উৎপন্ন হয়৷

পাশের বিশাল হ্যাঙার-এর দিকে নজর দেবার অনুমতি নেই৷ কেউ যদি সেই প্রযুক্তি অন্য কোম্পানির কাছে পাচার করে দেয়! সিমেন্স সেখানে টার্বাইন তৈরি করে, যেগুলির এমন গিয়ারের প্রয়োজনই হয় না৷ চুম্বকের সাহায্যে শক্তি প্রেরণ করা হয়৷ এর মূল্য অনেক বেশি হলেও এই প্রক্রিয়ার বড় সুবিধাও রয়েছে৷ সিমেন্স উইন্ড পাওয়ার কোম্পানির মাইকেল পেডারসেন বলেন, ‘‘জটিলতা কমে যায়৷ গিয়ার টার্বাইনের তুলনায় ডায়রেক্ট টার্বাইনে মেকানিকাল যন্ত্রাংশের সংখ্যা ৫০ শতাংশ কম৷''

এর অর্থ, আরও কম ওজন, আরও কম ক্ষয়৷ অর্থাৎ আরও কম যন্ত্রাংশ মেরামতি অথবা বদলানোর প্রয়োজন পড়বে৷ সমুদ্রের মধ্যে অফশোর বায়ুশক্তি ব্যবসায় এটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ৷ কারণ, সমুদ্রের বুকে নতুন যন্ত্রাংশ বসানো বা রক্ষণাবেক্ষণের বিশাল ব্যয় মুনাফা অনেক কমিয়ে দেয়৷

সিমেন্স উইন্ড পাওয়ার কোম্পানির প্রধান মার্কুস টাকে লজিস্টিক্স-এর ব্যয়ও অনেকটা কমিয়ে আনতে চান৷ তাই আগে থেকে তৈরি অংশগুলি জুড়ে কাঠামো তৈরির প্রক্রিয়ার উপর জোর দিচ্ছেন তিনি৷ তিনি বলেন, ‘‘আগে গোটা যন্ত্র কারখানায় তৈরি হতো, তারপর অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে সেটিকে বন্দরে নিয়ে গিয়ে জাহাজে তোলা হতো৷ আজ মডুলার পদ্ধতিতে আলাদা আলাদা অংশ তৈরি করে সহজেই সেগুলি পরিবহন করা সম্ভব৷ বন্দরে অনেক জায়গা আছে৷ সেখানে টার্বাইন জুড়ে ফেলে সমুদ্রে নিয়ে যাওয়া সহজ৷ ফলে পরিবহনের অনেক জটিল চ্যালেঞ্জ এড়ানো সম্ভব৷''

তা সত্ত্বেও কয়েক টন ভারি থাকবে এই টার্বাইন৷ নতুন প্রযুক্তি তার আরও বিকাশ ঘটাবে৷ উৎপাদন ক্ষমতা বাড়াতে প্রপেলারগুলিকে আরও বড় করার প্রয়োজন পড়বে না৷ মার্কুস টাকে বলেন, ‘‘নতুন প্রকল্পে ৪ মেগাওয়াট যন্ত্রগুলিতে ১৩০ মিটার ব্যাসের রোটর থাকছে৷ সেগুলির দক্ষতা ১৫ শতাংশ বেশি৷ অফশোর শেষ কথা নয়৷ এর পরের প্রকল্পগুলিতে ৬ মেগাওয়াটের যন্ত্রে ১৫৪ মিটার রোটর থাকবে৷ কিন্তু তার পরেও প্রযুক্তির বিকাশ শেষ হবে না৷''

ভবিষ্যৎ সম্পর্কে সব স্বপ্নের পরেও উৎপাদন ব্যয়ের বিষয়টি সিমেন্স-এর জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ৷ সবচেয়ে সেরা উইন্ড টার্বাইন যথেষ্ট বিক্রি না হলে আর লাভ কী! বিশ্বের বাজারে তখন মাথা তোলার কোনো সুযোগই থাকবে না৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক