1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

জার্মানিতে তুর্কির সংখ্যা অর্ধেক কমাতে চেয়েছিলেন কোল

সাবেক চ্যান্সেলর হেলমুট কোল জার্মানিতে অবস্থানরত মোট তুর্কি জনগোষ্ঠীর অর্ধেক তাঁর দেশ থেকে বিদায় করতে চেয়েছিলেন৷ দীর্ঘদিন গোপন হিসেবে রাখা কিছু ব্রিটিশ নথি প্রকাশের পর জানা গেছে এই তথ্য৷

১৯৮২ সালের অক্টোবরে জার্মানির (পশ্চিম) তৎকালীন রাজধানী বনে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী মার্গারেট থ্যাচারের সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন জার্মান চ্যান্সেলর হেলমুট কোল৷ সেই বৈঠকে কোল জানান, তুর্কি অভিবাসীদের মধ্য থেকে একটি বড় অংশকে জার্মানি থেকে তাদের দেশে ফেরত পাঠাতে হবে, কেন না তাদেরকে জার্মান সমাজের মূল ধারার সঙ্গে সম্পৃক্ত করা সম্ভব নয়৷ বৃহস্পতিবার স্পিগেল অনলাইন এই তথ্য প্রকাশ করেছে৷

Margaret Thatcher und Helmut Kohl

১৯৮৩ সালে লন্ডনে কোল ও থ্যাচার

স্পিগেল পত্রিকা কোল এবং থ্যাচারের মধ্যকার বৈঠকে আলোচিত বিষয়াদি নিয়ে তৈরি ‘নোট' থেকে বিভিন্ন তথ্য নিয়েছে৷ নিয়ম অনুযায়ী ৩০ বছর এসব নোট গোপন রাখা হয়েছিল৷ এরপর ব্রিটিশ সরকার সেগুলো প্রকাশ করে৷

বনের সেই বৈঠক নোট করেছিলেন থ্যাচারের ব্যক্তিগত সেক্রেটারি এ.জে.কোলস৷ এতে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘‘চ্যান্সেলর কোল বলেছেন....আগামী চার বছরের মধ্য জার্মানিতে অবস্থানরত তুর্কি জনগোষ্ঠীর সংখ্যা অর্ধেকে কমিয়ে আনার প্রয়োজন হবে৷ তবে কোল জনসমক্ষে তাঁর এই পরিকল্পনার কথা জানাননি৷''

কোলসের তৈরি নোট অনুযায়ী, জার্মান চ্যান্সেলর বলেন, ‘‘বর্তমানে যে সংখ্যক তুর্কি রয়েছে তাদের সবাইকে জার্মান সমাজের মূল ধারায় অঙ্গীভূত করা সম্ভব হবে না৷''

জার্মানির রক্ষণশীল খ্রিষ্টীয় গণতন্ত্রী দল সিডিইউ-র সদস্য কোল ১৯৮২ সালে চ্যান্সেলরের দায়িত্ব গ্রহণ করেন এবং ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত এই দায়িত্ব পালন করেন৷

এরপর সামাজিক গণতন্ত্রী এবং সবুজদের নিয়ে তৈরি মধ্যবামপন্থী সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করেন তিনি৷ এই সরকার মূলত জার্মানিতে অভিবাসীদের জন্য উদার নীতি চালু করে৷

‘ভিন্ন ধরনের সংস্কৃতি'

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর দ্রুতই অর্থনৈতিক খাতে উন্নয়ন আনার চেষ্টা করে তৎকালীন পশ্চিম জার্মানি৷ এক্ষেত্রে সফলও হয় তারা৷ এই সাফল্যকে বিবেচনা করা হয় ‘‘ইকোনোমিক মিরাকেল'' হিসেবে৷ ১৯৬০ সালের দিকে তুরস্ক থেকে প্রচুর অতিথি শ্রমিক আনে জার্মানি৷ পাশাপাশি ইটালি, গ্রিস, পর্তুগাল, টিউনিশিয়া এবং সাবেক ইউগোস্লাভিয়া থেকেও অনেক শ্রমিক আসে৷

থ্যাচারের সঙ্গে বৈঠকে কোল বলেছিলেন, ‘‘জার্মানিতে পর্তুগিজ, ইটালীয় এবং এমনকি দক্ষিণ-পূর্ব এশীয়দের নিয়েও কোনো সমস্যা নেই৷ এসব দেশের নাগরিকরা ভালোভাবে সমাজের মূল ধারার সঙ্গে অঙ্গীভূত হচ্ছেন৷''

‘‘কিন্তু তুর্কিরা সম্পূর্ণ ভিন্ন ধরনের সংস্কৃতি থেকে এসেছে...'', বলেন কোল৷ এক্ষেত্রে তুর্কি সমাজে জোরপূর্বক বিয়ের বিষয়টি উল্লেখ করেন তিনি৷

বর্তমানে তিন মিলিয়নের মতো তুর্কি বংশোদ্ভূত মানুষ জার্মানিতে বসবাস করছেন৷ এদের অনেকেই জার্মান নাগরিকত্ব গ্রহণ করেছেন৷ সামাজিক গণতন্ত্রী এবং সবুজ দল অভিবাসীদের বিষয়ে নিয়মনীতি উদার করার পর জার্মান নাগরিকত্ব গ্রহণ করেন তারা৷ বর্তমানে জার্মানির মোট জনসংখ্যা ৮২ মিলিয়ন, এদের মধ্যে সাত মিলিয়ন অভিবাসী৷

এআই/ডিজি (এপি, ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়