1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

জার্মানিতে ক্রমশই বেড়ে চলেছে গৃহায়ন সমস্যা

অর্থনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন, জার্মানিতে ধনী আর গরিবের ব্যবধান ক্রমাগত বাড়ছে৷ গৃহায়ন সমস্যাও বাড়ছে ধীরে ধীরে৷ পাশাপাশি সরকারি ভর্তুকিতে গৃহ নির্মাণও কমছে আশঙ্কাজনকভাবে৷ তাই চিন্তা বাড়ছে ক্রমশই৷

২০১৩ সালে সারা জার্মানির ১৪ লাখ ৮০ হাজার অ্যাপার্টমেন্টই ছিল রাষ্ট্রীয় ভর্তুকির সুবিধা নিয়ে তৈরি৷ দু'বছর আগের, অর্থাৎ ২০১১ সালের চেয়ে সংখ্যাটি ৬৩ হাজার কম৷ জার্মান সংসদের উপনেতা ক্যারেন লে সম্প্রতি বলেছেন, ‘‘সামাজিক গৃহায়নে ক্রমহ্রাস' লক্ষ্য করা যাচ্ছে, যা রীতিমতো শঙ্কাজনক৷'' তাঁর মতে, জার্মানিতে প্রতি বছর রাষ্ট্রীয় ভর্তুকিতে অন্তত দেড় লাখ বাড়ি নির্মাণ করা দরকার৷

জার্মানিতে অভিবাসন প্রত্যাশী এবং পর্যটক বাড়ছে৷ কিন্তু সেই অনুযায়ী আনুপাতিক হারে নতুন ঘর তৈরি হচ্ছে না৷ ফলে বাড়িভাড়া বাড়ছে৷ স্থান বিশেষে প্রতি বর্গমিটার ৫ থেকে সাড়ে ৫ ইউরো হিসেবে বাড়ানো হচ্ছে বাড়ি ভাড়া৷

ভর্তুকিযুক্ত বাড়ির সংখ্যা সবচেয়ে বেশি কমেছে স্যাক্সনিতে৷ সেখানে এক সময় ভর্তুকি সুবিধাপ্রাপ্ত বাড়ি ছিল মোট ৪২ হাজার, এখন আছে মাত্র ৭ হাজার৷ তবে স্যাক্সনির গৃহায়ন সমিতির প্রেসিডেন্ট রাইনার সাইফার্ট তারপরও অবশ্য দাবি করেছেন, ‘‘আমাদের রাজ্যে সামাজিকভাবে পিছিয়ে পড়াদের জন্য পর্যাপ্ত বাসস্থান আছে৷''

এদিকে জার্মানির সব বড় শহরে নতুন গৃহ নির্মাণকে উৎসাহিত করা হচ্ছে৷ জার্মান বার্তা সংস্থা ডিপিএ-র সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৪ সালে সারা দেশে মোট ৩৯ হাজার নতুন অ্যাপার্টমেন্ট তৈরি হয়৷ সবচেয়ে বেশি অ্যাপার্টমেন্ট তৈরি হয়েছে মিউনিখ শহরে৷ প্রতি এক হাজার মানুষের জন্য গড়ে ৪ দশমিক ৭টি অ্যাপার্টমেন্ট তৈরি হয়েছে সেখানে৷ অন্যদিকে রাজধানী বার্লিনে ১ হাজারের জন্য নতুন বাড়ি হয়েছে মাত্র ২ দশমিক ৪৫টি৷ অথচ সেই শহরে গত তিন বছরে ৪৫ হাজার মানুষ বেড়েছে৷ বার্লিনে এখন প্রায় ৩৫ লাখ মানুষের বাস৷ আশঙ্কা করা হচ্ছে, জনসংখ্যা বৃদ্ধির বর্তমান হার বজায় থাকলে ২০৩০ সালে সেখানে মোট জনসংখ্যা দাঁড়াবে ৪০ লাখ৷ গৃহায়ন সমস্যা নিয়ে এখন থেকে না ভাবলে তখন এত মানুষ থাকবে কোথায়?

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়