1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

জার্মানিতে কর ফাঁকি দিয়ে এখনও পার পাওয়া যায়

কিভাবে? কর বিভাগের কাছে নিজেই সে খবর দিয়ে এবং বকেয়া কর ও মাশুল দিয়ে৷ কিন্তু তা সত্ত্বেও থেকে যায় নৈতিকতার প্রশ্ন, বিশেষ করে বিশিষ্ট ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে৷ যেমন প্রখ্যাত নারীবাদী আলিসে শোয়ার্ৎসারের ক্ষেত্রে৷

কর ফাঁকি দেওয়ার প্রবণতা তাঁরই বেশি হবে, যাঁর প্রদেয় করের পরিমাণ বেশি৷ কাজেই সুইজারল্যান্ডের গোপন অ্যাকাউন্টে টাকা রাখার প্রবণতা যে সব জার্মানদের থাকে, তাঁরা মোটামুটি সফল, কৃতী ও ওপরমহলের মানুষ৷ যেমন ধরা যাক বায়ার্ন মিউনিখ ক্লাবের প্রেসিডেন্ট উলি হ্যোনেস, যাঁর নামে কর ফাঁকি দেওয়ার মামলা চলছে৷

বিদেশে টাকা পাচার করে স্বদেশে কর ফাঁকি দেওয়াটা নতুন কিছু নয়৷ কিন্তু কম্পিউটারের যুগে ব্যাংকের খাতা-পত্র যখন গোপন সিডি হয়ে কর বিভাগের হাতে এসে পড়ে, তখন কর ফাঁকি দেনেওয়ালারাও আর ঠিক ততটা ‘নিরাপদ' বোধ করেন না৷ ওদিকে স্বদেশের সরকারও তাঁদের এই ভীতির সুযোগ নিয়ে কর আদায়ের একটা নতুন পন্থা চালু করে বসে আছে: কর ফাঁকি দেনেওয়ালারা যদি একটা নির্দ্দিষ্ট সময়ের মধ্যে নিজেরাই সেকথা কর বিভাগকে জানান ও ফাঁকি দেওয়া কর পরিশোধ করেন, তাহলে তাঁদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না৷

বায়ার্ন প্রেসিডেন্ট উলি হ্যোনেস ঠিক সেই শর্তটির উপর নির্ভর করতে গিয়েই ফেঁসেছেন৷ ওদিকে জার্মানিতে নারীমুক্তি ও নারী প্রগতির ক্ষেত্রে পথিকৃৎ, মহিলাদের ‘এমা' পত্রিকার প্রধান সম্পাদক আলিসে শোয়ার্ৎসার বস্তুত কোনো শর্তেই ফাঁসেননি: তাঁর নিজস্ব বিবৃতি অনুযায়ী তিনি সেই আশির দশক থেকে সুইজারল্যান্ডে বেশ কিছু টাকা – ২০ লাখ ইউরো পরিমাণ – রেখে আসছেন, এবং ২০১৩ সালে স্বপ্রণোদিতভাবে কর বিভাগকে সে খবর দিয়ে দু'লাখ ইউরো পরিমাণ বকেয়া করও শোধ করে দিয়েছেন৷

মুশকিল এই, এবার ‘ডের স্পিগেল' পত্রিকা সে খবর জনসমক্ষে ফাঁস করেছে৷ এবং সরকারিভাবে শোয়ার্ৎসারের আর শাস্তি না হবার সম্ভাবনা থাকলেও, জার্মানিতে নারীবাদ ও নারী চেতনার প্রতীক ও প্রবক্তা আলিসে শোয়ার্ৎসারকে এখন নৈতিকভাবে শূলে চড়ানো হচ্ছে৷ তাঁর সমালোচকদের বক্তব্য: শোয়ার্ৎসার নিজে নৈতিকতার দোহাই দিয়ে বহু মানুষের ও প্রতিষ্ঠানের সমালোচনা করেছেন; কাজেই তাঁর নিজের কর ফাঁকি দেওয়ার কাহিনির নৈতিক মাশুল তাঁকে দিতে হবে বৈকি৷

শোয়ার্ৎসার বলেছেন, আশির দশকেই তাঁর বিরুদ্ধে জার্মানিতে বিদ্বেষ ও বিমুখিতা এমন চরমে উঠেছিল যে, তিনি বাস উঠিয়ে বিদেশে যাবার কথা ভেবেছিলেন: সুইজারল্যান্ডে রাখা টাকাটাও ছিল সেই পরিকল্পনার অঙ্গ৷ শোয়ার্ৎসারের এক অন্তরঙ্গ বন্ধু কিন্তু বলেছেন, শোয়ার্ৎসার তখন ফ্রান্সে যাওয়ার কথাই ভাবছিলেন৷ দ্বিতীয়ত, শোয়ার্ৎসার যে মহিলাদের চিরন্তনী প্রতিরক্ষা কৌশল অনুযায়ী নিজেকে ষড়যন্ত্রের শিকার হিসেবে দেখানোর চেষ্টা করছেন, তা-তে তাঁর অনেক বিশিষ্ট মহিলা সুখি নন – যেমন সবুজ দলের নেত্রী কাট্রিন গ্যোরিং-একহার্ট৷

জার্মানিতে আর যে বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক চলেছে, সেটি হলো এই নিজের অপরাধ স্বীকার করে, বকেয়া অর্থ প্রদান করে উচিত দণ্ড থেকে মুক্তি পাবার প্রক্রিয়া – যা শুধু একমাত্র কর ফাঁকি দেওয়ার ক্ষেত্রেই চলে, অন্য কোনো দণ্ডনীয় অপরাধের ক্ষেত্রে নয়, যেমন মাদক সেবন কিংবা চৌর্যবৃত্তি৷ কাজেই অপরাধীর সঙ্গে এ ধরনের আপোশ – যেমন রাজসাক্ষীর সঙ্গে – আধুনিক জগতে আর চলে না, বলছেন অনেকে৷ অপরদিকে অন্যদের মত হলো, নিজের কর ফাঁকি স্বীকার করাটা থাকুক, কিন্তু সেই ফাঁকি দেওয়া করের পরিমাণ বেঁধে দেওয়া দরকার – এই যেমন পঞ্চাশ হাজার ইউরো৷

সেক্ষেত্রেও আলিসে শোয়ার্ৎসার ছাড় পেতেন না, পার তো দূরের কথা ৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন