1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

জার্মানিতে ইসলামবিরোধীদের রুখতে অনলাইন ক্যাম্পেইন

জার্মানিতে ইসলামবিরোধী বিক্ষোভ এবং উগ্র ডানপন্থিদের উত্থানের খবর আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে প্রকাশ হচ্ছে নিয়মিত৷ এদের বিরোধীরা কিভাবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সহায়তা নিচ্ছে – তাই নিয়েই এ প্রতিবেদন৷

সাম্প্রতিক সময়ে জার্মানির বিভিন্ন শহরে উগ্র ডানপন্থিদের প্রতিবাদ, বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়েছে৷ জার্মান গণমাধ্যম ছাড়াও আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমেও এ সব খবর ফলাওভাবে প্রকাশ হয়েছে৷ গত অক্টোবর মাসে জার্মানির কোলন শহরে ‘হুলিগানস এগেনস্ট সালাফিস্ট' বা হোগেসা আয়োজিত প্রতিবাদ কর্মসূচি শেষ হয়েছিল বিক্ষোভ সহিংসতার মধ্য দিয়ে৷ এটা ছিল সালাফিজমের বিরুদ্ধে বিভিন্ন প্রতিদ্বন্দ্বী ফুটবল ক্লাবের ‘হুলিগানস' এবং উগ্র ডানপন্থিদের সম্মিলিত আন্দোলন৷

ডিসেম্বরে ড্রেসডেনে ‘পেট্রিয়টিক ইউরোপিয়ানস এগেনস্ট দ্য ইসলামাইজেশন অফ অক্সিডেন্ট' বা পেগিডা আয়োজিত প্রতিবাদ কর্মসূচিতে কয়েক হাজার মানুষ অংশ নিয়েছে৷ তাদের দাবি হচ্ছে, রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থীদের জন্য আরো কড়া আইন চালু করতে হবে৷ গত সোমবার (১৫.১২.১৪) পেগিডার প্রতিবাদ কর্মসূচিতে ড্রেসডেন শহরে ১৫ হাজারের বেশি মানুষ অংশ নেয়৷ এর আগে তাদের কোনো কর্মসূচিতে এত মানুষের সমাগম হয়নি৷ ঐ দিইন বন এবং ড্যুসেলডর্ফসহ জার্মানির ১৫টির মতো শহরে এই কর্মসূচি পালন করা হয়৷

Polizei-Einsätze gegen Hooligans

দু’হাজারের মতো ‘হুলিগানস’কোলোনে সালাফিস্টদের বিরুদ্ধে সমাবেশ করে

জার্মানির রাজপথে এ সব প্রতিবাদ কর্মসূচির প্রভাব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও দেখা যাচ্ছে৷ গত নভেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে ফেসবুকে সক্রিয় হওয়া পেগিডার পাতা লাইক করেছেন ৭০ হাজার মানুষ৷ ফেসবুকে জনপ্রিয়তার বিচারে এই সংখ্যা জার্মানির বড় রাজনৈতিক দল সিডিইউ বা এসপিডি-র চেয়ে খুব একটা কম নয়৷ পেগিডা এবং হোগেসা তাদের ফেসবুক পাতা ব্যবহার করে ইসলামি চরমপন্থিদের বিরুদ্ধে সক্রিয় হতে জার্মানদের আহ্বান জানাচ্ছে৷

জার্মানির রাস্তায় পাল্টা প্রতিবাদ

ইসলামবিরোধী গ্রুপগুলোর প্রতিবাদ কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে জার্মানিতে এখন অভিবাসীবিরোধী মনোভাব, জিনোফোবিয়া এবং উগ্র ডানপন্থিদের কর্মকাণ্ড নিয়ে ব্যাপক বিতর্ক চলছে৷

ইসলামিবিরোধীদের প্রতিবাদ কর্মসূচির প্রতিবাদে রাজপথেও নেমেছেন অনেকে৷ ড্রেসডেনে যেদিন পেগিডারা সমাবেশ করেছে, সেদিন তাদের বিরোধীরাও রাস্তায় নেমেছিল ‘ড্রেসডেন ফর অল, অল ফর...' ব্যানার হাতে৷ একই সময়ে কোলনে রাস্তায় সমবেত একদল মানুষের হাতে ছিল ব্যানার ‘ইউ আর কোলন – নট নাৎসি৷'

‘অ্যান্টি নাৎসি' নামে নতুন একটি অ্যাপও তৈরি হয়েছে, যেটি ব্যবহার করে বার্লিন এবং ব্রান্ডেনবুর্গে কখন, কোথায় ডানপন্থিরা প্রতিবাদ বিক্ষোভের আয়োজন করছে এবং কোন রাস্তা তারা ব্যবহার করছে, তা জানা যাবে৷ এই অ্যাপ ডানপন্থিদের বিরোধীদের জন্য বিশেষ সহায়ক, কেননা তারা এই অ্যাপ অনুযায়ী পাল্টা কর্মসূচি দিতে পারে৷

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পাল্টা আন্দোলন

সিডনিতে জিম্মি ঘটনার প্রেক্ষিতে মুসলমান বিরোধী মানসিকতা যাতে বাড়তে না পারে সে উদ্দেশ্যে চালু হওয়া হ্যাশট্যাগ ‘‘আই'ল রাইড উইথ ইউ'' এখন জার্মানিতেও পেগিডাদের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হচ্ছে৷

পেগিডা#ওয়াচ নামক একটি গ্রুপ, যারা নব্য নাৎসি এবং পেগিডাদের কর্মকাণ্ডের দিকে নজর রাখছে, তাদের ফেসবুক পাতায় ইতোমধ্যে ১৫ হাজারের বেশি লাইক পড়েছে৷ টুইটারে এই গ্রুপ হ্যাশট্যাগ ‘নোপেগিডা' ব্যবহার করে বিভিন্ন টুইট করছে৷

পেগিডার অনুসারীদের শনাক্তের উপায়

কারো কোনো ফেসবুক বন্ধু পেগিডাদের লাইক করছে কিনা তা জানার জন্য একাধিক ওয়েবসাইট চালু হয়েছে৷ ব্লগার এবং আন্দোলনকারীরা এই লিংকটি অনলাইনে শেয়ার করছেন এবং অনুরোধ করছেন, লিংকটি ব্যবহার করে পেগিডাদের পছন্দ করে এমন ফেসবুক বন্ধুদের আনফ্রেন্ড করে দিতে৷

তবে এই লিংকটি যা বলতে পারছে না তাহচ্ছে, কেনো তারা পেগিডার ফেসবুক পাতা লাইক করছে৷ কেউ একজন হয়ত পাতাটির ‘লাইক' বোতাম চেপে রেখেছে যাতে তাদের আন্দোলন সম্পর্কে সব খবর পেত পারে৷ আবার তার অর্থ এই নয় যে পেগিডার মূলমন্ত্রের সঙ্গে সেই ব্যক্তিটি একমত পোষণ করছে৷ সামগ্রিকভাবে বিষয়টি নিয়ে ফেসবুকে বিতর্ক চলছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন