1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

জার্মানিকে হারিয়ে ফাইনালে উঠে গেল ফ্রান্স

৫৮ বছর ধরে বড় কোনো আসরে জার্মানির বিপক্ষে জয় পাচ্ছিল না ফ্রান্স৷ অথচ এর মাঝে বিশ্বকাপও জিতেছে তারা৷ তবে এবারের ইউরোতে জয়ের খরাটা কাটিয়েছে তারা৷ জার্মানিকে ২-০ গোলে হারিয়ে ফ্রান্স উঠে গেছে ফাইনালে৷

বৃহস্পতিবারের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে কাগজে-কলমে জার্মানিই ছিল ফেভারিট৷ একে তো তারা বিশ্বচ্যাম্পিয়ন, তার ওপর সেই ১৯৫৮ সালের বিশ্বকাপের পর থেকে বড় আসরে ফরাসিদের কাছে কখনোই না হারার রেকর্ড – দুইয়ে মিলে জার্মানির জয়ের সম্ভাবনাই বেশি দেখছিলেন বিশ্লেষকরা৷ তবে স্বাগতিক হওয়ার সুবিধেটা ছিল ফ্রান্সের৷ আর ছিল ফর্ম৷ দু'টোর সমন্বয়ে দারুণ আত্মবিশ্বাসী দল হয়ে উঠেই ইউরো ২০১৬-তে জার্মানির বিদায়ঘণ্টা বাজিয়ে দিল ফ্রান্স৷ বিশ্বকাপের পর একই সঙ্গে ইউরো চ্যাম্পিয়নও হওয়ার লক্ষ্য ছিল ইওয়াখিম ল্যোভের দলের৷ ২-০ গোলে হারিয়ে তাদের সেই স্বপ্ন চুরমার করে দিলো ফ্রান্স৷

সেমিফাইনালে চমকের সম্ভাবনাটা আগের ম্যাচেই জাগিয়েছিল ফ্রান্স৷ কোয়ার্টার ফাইনালে আইসল্যান্ডকে একরকম নাস্তানাবুদই করেছিল ৫-২ গোলে হারিয়ে৷

অন্যদিকে জার্মানি অতি কষ্টের জয় পেয়েছিল ইটালির বিপক্ষে৷ বড় আসরে ইটালির বিপক্ষে তাদের জয়ের খরা কেটেছিল টাইব্রেকারে৷

সেই ম্যাচেই দুশ্চিন্তার ভাঁজ দেখা গিয়েছিল জার্মানির কোচ ইওয়াখিম ল্যোভের কপালে৷ দলের কয়েকজন নির্ভরযোগ্য খেলোয়াড়ের চোট আর হলুদ কার্ড এবং টোমাস ম্যুলারের বাজে ফর্ম সেমিফাইনালে যে সমস্যা হয়ে দেখা দিতে পারে সে আশঙ্কা নিশ্চয়ই তাঁর মনেও জেগেছিল৷ সে আশঙ্কা দূরে রাখতে দলে কিছু পরিবর্তনও এনেছিলেন৷ লিভারপুলের এমরে কানকে এ ম্যাচেই দিয়েছিলেন ইউরো অভিষেকের সুযোগ৷ সেন্ট্রাল ডিফেন্সে জেরোম বোয়াটেং-এর পাশে দাঁড় করিয়েছিলেন বেনেডিক্ট হ্যোভেডেস৷

প্রথমার্ধের অন্তিম মুহূর্ত পর্যন্ত প্রতিদ্বন্দিতা ভালোভাবেই ধরে রেখেছিল জার্মানি৷ কিন্তু ইনজুরি টাইমে বলে হাত লাগিয়ে সর্বনাশ ডেকে আনলেন বাস্তিয়ান শোয়াইনস্টাইগার৷

সেই সুবাদেই পেনাল্টি এবং পেনাল্টি থেকে গোল করে ফ্রান্সকে এগিয়ে নেন অঁতোয়ান গ্রিসমান৷ দ্বিতীয়ার্ধে ম্যাচে ফেরার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছিল জার্মানি৷ কিন্তু চোটের কারণে বোয়াটেং-ও মাঠ ছাড়তে বাধ্য হওয়ায় সবই যেন কেমন এলোমেলো হয়ে গেল৷ ৭২ মিনিটে তরুণ ডিফেন্ডার কিমিচের ভুলে আবার সুযোগ পেয়ে যান গ্রিসমান৷ আবারও গোলপোস্টের অতন্দ্র প্রহরী মানুয়েল নয়ার পরাস্ত৷ ০-২ গোলে পিছিয়ে পড়া জার্মানি তারপর বেশ কয়েকটি সুযোগ তৈরি করলেও গোল পায়নি৷

ফলে ইউরো ২০১৬ যাঁরা নিয়মিত দেখছেন তাঁদের মনে এখন একটাই প্রশ্ন – কে হবে চ্যাম্পিয়ন? ফ্রান্স, নাকি পর্তুগাল? জানার জন্য রবিবার পর্যন্ত অপেক্ষায় থাকতে হবে৷ সেদিনই ফাইনালে এ আসরের সর্বোচ্চ গোলদাতা গ্রিসমানের ফ্রান্সের মুখোমুখি হবে ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডোর পর্তুগাল৷

এসিবি/ডিজি (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়