1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ইউরোপ

‘জার্মানরা খারাপ, খুবই খারাপ'

এলেন, দেখলেন কিন্তু মন জয় করলেন না৷ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ন্যাটো ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে আলোচনায় ঔদ্ধত্যমাখা বিতৃষ্ণা রেখে গেলেন৷ জি-সেভেন বৈঠকেও তাঁর রেশ থেকে যাচ্ছে৷

গোটা বিশ্বে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ সহযোগীদের সঙ্গে প্রথম সাক্ষাতের সময়েও তিনি বুঝিয়ে দিলেন – তিনি ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ তথ্য-পরিসংখ্যান, হিসেবনিকেশ, সুসম্পর্কের ইতিহাস তাঁর কাছে গুরুত্বহীন৷ শরীরী ভাষাতেও তাঁর সেই ঔদ্ধত্য চোখে পড়েছে৷ শীর্ষ নেতাদের কখনো ধাক্কা দিয়ে, কখনো টেনে সরিয়ে দিয়ে তাঁকে নিজের পছন্দের জায়গা দখল করতে দেখা গেছে৷

তাঁর উপস্থিতিতে সহযোগী নেতাদের কঠিন মুখচ্ছবিও ট্রাম্প সম্পর্কে তাঁদের মনোভাব প্রকাশ করেছে৷ ফ্রান্সের সদ্য নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁ ও ট্রাম্প করমর্দনের সময় পরস্পরের হাত এতটাই চেপে ধরেছিলেন যে, দু'জনের মুখে কষ্টের ছাপ দেখা গেছে৷

ন্যাটো শীর্ষ বৈঠকে ট্রাম্প আবার সহযোগী দেশগুলিকে প্রতিরক্ষা খাতে ব্যয় বাড়ানোর কথা মনে করিয়ে দেন৷ তাঁর সাফ কথা, ফেলো কড়ি মাখো তেল৷ অ্যামেরিকার করদাতাদের অর্থে ন্যাটোর ‘আর্থিক ঘাটতি' আর মেটানো হবে না বলে তিনি জানিয়ে দেন৷ এমনকি তাঁর দাবি, অনেক বছর ধরে বেশ কিছু সদস্য দেশের বিশাল অঙ্কের বকেয়া চাঁদা ন্যাটোর প্রাপ্য৷ এমনকি রসিকতা করে ট্রাম্প বলেন, ন্যাটোর নতুন সদর দপ্তর তৈরি করতে কত ব্যয় হয়েছে, তিনি সে কথা জানতে চাননি৷ এমন মন্তব্যের পর কাউকে হাসতে দেখা যায়নি৷

ইউরোপীয় ইউনিয়নের নেতাদের সঙ্গে বৈঠকেও ট্রাম্প শীতল মনোভাব দেখান৷ বিশেষ করে জলবায়ু পরিবর্তন ও মুক্ত বাণিজ্যের প্রশ্নে দুই পক্ষের মতপার্থক্যের উল্লেখ করেন ট্রাম্প৷ রাশিয়া সম্পর্কেও ইইউ'র সঙ্গে একমত হতে পারেননি ট্রাম্প৷ ইইউ কমিশন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টুস্ক বলেন, সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলার প্রশ্নে বৈঠকে মতৈক্য দেখা গেছে৷

শুধু দুই রাষ্ট্রজোট নয়, দেশ হিসেবে জার্মানির প্রতি তাঁর বিতৃষ্ণার মনোভাব গোপন করেননি ট্রাম্প৷ ইউরোপীয় কমিশন প্রেসিডেন্ট জঁ ক্লোদ ইয়ুংকারের সঙ্গে বৈঠকে তিনি বলেন, ‘‘জার্মানরা খুব খারাপ৷ কারণ, তারা অ্যামেরিকায় লক্ষ লক্ষ গাড়ি বিক্রি করছে৷ আমরা এটা বন্ধ করবো৷'' বৈঠকে উপস্থিত কয়েকজন জার্মানির ‘ডেয়ার স্পিগেল' পত্রিকাকে এমন কথা জানিয়েছেন৷ এর জবাবে অবশ্য ইয়ুংকার জার্মানির পক্ষে সওয়াল করে ট্রাম্পকে বলেন, মুক্ত বাণিজ্যের ফলে সবারই উপকার হয়৷ জার্মান চ্যান্সেলরের দফতর ও হোয়াইট হাউস এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেনি৷

নির্বাচনি প্রচারের সময় ট্রাম্প অনেক বিদেশি রাষ্ট্র ও রাষ্ট্রজোট সম্পর্কে বিরূপ মন্তব্য করেও প্রেসিডেন্ট হিসেবে নিজের অবস্থান বদলেছেন৷ বিশেষ করে চীন ও সৌদি আরবের ক্ষেত্রে সেই পার্থক্য চোখে পড়ার মতো৷ সেসব দেশের নেতাদের সঙ্গে আলোচনার সময়ে ট্রাম্পকে প্রায় বিগলিত অবস্থায় দেখা গেছে৷ কিন্তু ন্যাটো, ইইউ ও জার্মানির ক্ষেত্রে তাঁর বৈরি মনোভাবের পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে না৷

এসবি/এসিবি (রয়টার্স, এএফপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়