1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

জার্মানরা অখুশি হলেও, নয়ার খুশি

জার্মানির বিশ্বকাপ জেতা জাতীয় দলের গোলরক্ষক মানুযেল নয়ার ফিফা-র ‘‘স্বর্ণগোলক'' না জেতায় বেকেনবাউয়ার এবং ল্যোভ-এর মতো জার্মান ফুটবলের কিংবদন্তি তথা কর্মকর্তারা হতাশ হয়েছেন৷ নয়ার কিন্তু খোশমেজাজে৷

গোল যদি বেঁধেই থাকে, তাহলে নয়ার-এর নিজের ক্লাব বায়ার্ন মিউনিখের নতুন তারকা রোব্যার্ট লেভান্ডোভস্কি যে দলীয় সতীর্থ নয়ার-এর পরিবর্তে ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো-কে ভোট দিয়েছেন, তা নিয়ে৷ বুন্ডেসলিগার শীতকালীন বিরতিতে বায়ার্ন দল ছিল কাতার-এ, ট্রেনিং ক্যাম্পে৷ গত বুধবার সেখান থেকেই নয়ার বলেছেন, তাঁর লেভান্ডোভস্কি-র বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই: ‘‘একজন ফরোয়ার্ডের পক্ষে আরেকজন ফরোয়ার্ড-কে ভোট দেওয়াটা বৈধ৷ আমার তাতে কোনো সমস্যা নেই৷'' লেভান্ডোভস্কি বোরুসিয়া ডর্টমুন্ড থেকে বায়ার্ন মিউনিখে আসেন গত গ্রীষ্মে৷ তিনি মঙ্গলবারেই বলেন, নয়ার এবং বায়ার্নের আরেক খেলোয়াড় বাস্টিয়ান শোয়াইনস্টাইগার-এর পরিবর্তে রোনাল্ডো-কে ভোট দেওয়াটা ভুল হয়েছে৷ পরে অবশ্য তিনি টুইটারে সে কথা প্রত্যাহার করেন৷

নয়ার খুশি

সোমবার জুরিখে ফিফা-র অনুষ্ঠানে জার্মানরা একাধিক খেতাব জিতেছেন: সেরা কোচের খেতাব জেতেন জার্মান জাতীয় দলের কোচ ইওয়াখিম ল্যোভ; মহিলা ফুটবলের সেরা কোচ নির্বাচিত হন ভল্ফসবুর্গের কোচ রাল্ফ কেলারমান; এছাড়া ২০১৪ সালের সেরা মহিলা ফুটবলার নির্বাচিত হয়েছেন ভল্ফসবুর্গ তথা জার্মানির মিডফিল্ডার নাডিনে কেসলার৷ কিন্তু নয়ার যে বিশ্বের সেরা ফুটবলারের শিরোপাটি পেলেন না, সেটা আঘাত দিয়েছে বৈকি৷

বিভিন্ন জাতীয় দলের ক্যাপ্টেন, কোচ এবং মিডিয়ার প্রতিনিধিদের দেওয়া ভোটের মধ্যে রোনাল্ডো পেয়েছেন প্রায় ৩৮ শতাংশ; তার অনেক নীচে লিওনেল মেসি, ১৫ দশমিক ৭৬ শতাংশ ভোট; এবং ঠিক তার পরেই মানুয়েল নয়ার, ১৫ দশমিক ৭২ শতাংশ ভোট৷ সাধে কি আর নয়ার জুরিখেই বলেছেন, ‘‘আমি এই বাড়ি থেকে বেরোচ্ছি মুখে একটা বিরাট হাসি নিয়ে৷ এটা ছিল আমার পক্ষে একটা জেতার দিন৷ প্রথম তিনজনের মধ্যে থাকাটাই তো সাফল্য৷''

জার্মানরা অখুশি

ফ্রানৎস বেকেনবাউয়ার জার্মানির ক্যাপ্টেন এবং কোচ, উভয় ভূমিকাতেই বিশ্বকাপ জিতেছেন৷ তিনি বলেছেন: ‘‘আমার মনে হয় এটা ন্যায্য হয়নি৷ এর মানে, এই ভোটে খেলায় সাফল্য চেহারা, হাব-ভাবের চেয়ে কম গুরুত্বপূর্ণ৷'' কাইজার ফ্রানৎস যোগ করেন, ‘‘গোলকিপারদের মুশকিল হল, লোকে গোল দেখতে চায়, গোল আটকানো নয়৷''

জাতীয় দলের কোচ ইওয়াখিম ল্যোভ বলেছেন: ‘‘আমি মানুয়েলের কথা ভেবে একটু হতাশ, কেননা বিশ্বকাপে মানুয়েল সম্পূর্ণ অন্য ধরনের গোলকিপিং দেখিয়েছে, যা অতীতে কখনো দেখা যায়নি৷'' ল্যোভ-এর মতে নয়ার বিশ্বের সেরা গোলকিপার হলেও, জার্মান দল ‘‘কোনো একজন সুপারস্টারের'' কল্যাণে বিশ্বকাপ জেতেনি৷ এছাড়া রোনাল্ডো এবং মেসি দু'জনেই অসাধারণ খেলোয়াড়, যারা প্রতিবছর ৫০ থেকে ৬০টা গোল করে থাকেন৷ ল্যোভ-এর মতে, বিগত দশ বছরের সেরা খেলোয়াড় হলেন জার্মান ক্যাপ্টেন ফিলিপ লাম, যিনি গতবছর জার্মানির হয়ে আন্তর্জাতিক ফুটবল খেলা থেকে সরে দাঁড়ান৷

এসি/এসবি (ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন