1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

জার্মানদের স্বাস্থ্য সচেতনতা

প্রযুক্তির উন্নতির সাথে সাথে জার্মানি তথা পশ্চিমের মানুষরা ক্রমেই ঘরকুনো হয়ে উঠছে৷ কায়িক শ্রম বা খেলাধুলার প্রতি আগ্রহ কমে যাচ্ছে তাদের৷ ফলে স্বাস্থ্যের ওপর পড়ছে তার বিরূপ প্রতিক্রিয়া৷

default

জার্মানরা এখন না হেঁটে কম্পিউটারের সামনে বসে সময় কাটাতেই বেশি পছন্দ করছে

‘‘জার্মানদের জীবনযাত্রা কতটা স্বাস্থ্যকর?'' এই শিরোনামে জার্মান স্বাস্থ্যবীমা প্রতিষ্ঠানগুলি পরিচালিত সাম্প্রতিক এক সমীক্ষায় জানা গেছে, জার্মানির বেশিরভাগের মানুষের জীবনযাত্রা খুব একটা স্বাস্থ্যসম্মত নয়৷ সুষম খাদ্যগ্রহণ, হাঁটাচলা ও খেলাধুলার প্রতি অনাগ্রহী হয়ে উঠছে জার্মানির মানুষ৷ ফলে উচ্চ রক্তচাপ, বহুমূত্র ও হৃদরোগের হারও বৃদ্ধি পাচ্ছে৷ সমীক্ষায় আড়াই হাজার বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার নানা বয়সি নারী ও পুরুষকে টেলিফোনে প্রশ্ন করা হয়েছিল৷ তুলনা করা হয়েছে জার্মানির বিভিন্ন রাজ্যের মানুষের মধ্যে৷ চলাফেরা, খাদ্যাভ্যাস, স্ট্রেস বা মানসিক চাপ, ধূমপান ও মদ্যপান ইত্যাদি বিষয়গুলির দিকে জোর দেওয়া হয়েছে৷

সমীক্ষায় জানা গেছে, মাত্র ১৪ শতাংশ মানুষ সব মিলিয়ে স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন করে৷ ১৮ শতাংশ নারী ও ১০ শতাংশ পুরুষ স্বাস্থ্যের ব্যাপারে সচেতন৷ উত্তরদাতাদের মধ্যে ৪০ শতাংশ হাঁটাচলা করে খুব কম৷ ৫০ শতাংশ স্বাস্থ্যকর খাদ্যগ্রহণের ব্যাপারে উদাসীন৷ ২৫ শতাংশ ধূমপানে অভ্যস্ত৷ স্বাস্থ্যসম্মত জীবনযাত্রার দিক দিয়ে পুরুষদের চেয়ে মেয়েরা এগিয়ে আছে৷ খেলাধুলার ক্ষেত্রে ছেলেরা এগিয়ে থাকলেও গৃহস্থালির কাজকর্ম, বাজারহাট করা – এই সব দিক দিয়ে মেয়েরাই বেশি সক্রিয়৷ খাবারের ব্যাপারেও মেয়েরা সচেতন বেশি৷ তাদের খাবারের তালিকায় ফলমূল, শাকসবজির পরিমাণ ছেলেদের তুলনায় বেশি থাকে৷ পুরুষদের ঝোঁক লক্ষ্য করা যায় মাংসের প্রতি৷ অন্যদিকে মেয়েরা মিষ্টিজাতীয় খাবারের লোভ সামলাতে পারেনা অনেক সময়৷

দেখা গেছে, বয়স্কদের চেয়ে অল্পবয়সিরা স্বাস্থ্যকর জীবন যাপনের ব্যাপারে উদাসীন৷ ৬৫ বছরের অধিক বয়সিদের মধ্যে ২০ শতাংশ এবং ১৮ থেকে ২৯ বছর বয়সিদের মধ্যে মাত্র ৭ শতাংশ স্বাস্থ্যসম্মত জীবন যাপন করে৷ অন্যদিকে নিকোটিন ও অ্যালকোহলের প্রতি ঝোঁক এবং তরকারি ও ফলমূলের প্রতি অনীহাও তরুণ বয়সিদের মধ্য বেশি লক্ষ্য করা যায়৷

Deutsche Fußballfans

বয়স্কদের চেয়ে অল্পবয়সিরা স্বাস্থ্যকর জীবন যাপনের ব্যাপারে উদাসীন

কোলন শহরের ক্রীড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসক ডাক্তার ইঙো ফ্রোব্যোজে সমীক্ষাটির পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন৷ এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘১৮ থেকে ৩৫ বছর বয়সি মানুষদের নিয়েই আমাদের বেশি চিন্তা৷ এই বয়সিরাই সবচেয়ে কম স্বাস্থ্যসচেতন৷''

এ জন্য বিশেষজ্ঞরা স্কুল কলেজ ও অফিস আদালতের ক্যান্টিনে সুষম খাবার পরিবেশনের ওপর জোর দিচ্ছেন৷ পাশাপাশি খেলাধুলার প্রতি আগ্রহ বাড়ানোর কথা বলছেন তারা৷ সমীক্ষায় দেখা গেছে, উত্তরদাতাদের প্রতি পাঁচ জনের মধ্যে এক জন ফিটনেস স্টুডিও বা জিম ও খেলার মাঠ মোটেও পছন্দ করেনা৷ এ জন্য দৈনন্দিন জীবনযাত্রার মধ্যেই হাঁটাচলা অন্তর্ভুক্ত করতে হবে, আর তা শুরু করতে হবে শিশুকাল থেকেই৷ ফ্রোব্যোজে জানান, ‘‘এ ক্ষেত্রে লন্ডনে এক সুন্দর দৃষ্টান্ত রয়েছে৷ সেখানে এক ধরনের ওয়াকিং বাস চালু করা হয়েছে৷ এ বাসে করে বাচ্চারা স্কুলে যায়, কিন্তু তিন স্টপেজ আগেই বাচ্চাদের নামিয়ে দেওয়া হয়, বাকি পথটা হেঁটেই যায় তারা স্কুলে৷ বলা যায় সম্পূর্ণ নতুন এক ধারণা৷''

সমীক্ষার একটি ফলাফল বিশেষজ্ঞদের অবাক করেছে৷ আগের অন্যান্য সমীক্ষা থেকে মনে করা হয়েছিল, স্বল্প শিক্ষিতদের চেয়ে উচ্চ শিক্ষিতরাই বুঝি স্বাস্থ্যকর জীবন যাপন করে৷ কিন্তু সাম্প্রতিক সমীক্ষাটি এই ধারণা বদলে দিয়েছে৷ মাধ্যমিক স্কুল পাশ করা কম শিক্ষিতদের কর্মক্ষেত্রে কায়িক শ্রমের কাজ করতে হয় বেশি৷ উচ্চশিক্ষিত অ্যাকাডেমিক পেশার সঙ্গে যুক্ত মানুষ ভাল খাবার খেলেও কর্মক্ষেত্রে কম্পিউটারের সামনে বসেই অনেকটা সময় কাটান৷ তাই সব মিলিয়ে কম শিক্ষিতরাই স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন করেন বলে দেখা গেছে সমীক্ষার ফলাফলে৷

জার্মানির রাজ্যগুলির মধ্যে স্বাস্থ্য সচেতনতার দিক দিয়ে মেকলেনবুর্গ ফোরপমার্ন-এর বাসিন্দারা অগ্রগামী৷ এখানকার শতকরা ২০ শতাংশ মানুষ স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন করেন৷ বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলে গাড়ি বা বাসের চেয়ে সাইকেলেই চলাফেরা করতেই অভ্যস্ত এই অঞ্চলের বাসিন্দারা৷ এক্ষেত্রে সবচেয়ে পিছিয়ে আছেন স্যাক্সনি আনহাল্ট রাজ্যের লোকজন৷ এই অঞ্চলের ৮ শতাংশেরও কম মানুষ স্বাস্থ্যের প্রতি খেয়াল রাখেন৷

প্রতিবেদন: রায়হানা বেগম

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

সংশ্লিষ্ট বিষয়