1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

জামায়াতের হরতালে বিএনপির সমর্থন নেই

কিছু বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ছাড়া জামায়াতের হরতালে জনজীবনে তেমন কোনো প্রভাব পড়েনি৷ রাজধানীতে যানবাহন চলাচল ছিল প্রায় স্বাভাবিক৷ বিএনপি বলেছে, এর সঙ্গে তাদের বা ১৮ দলীয় জোটের কোনো সম্পর্ক নেই৷

জামায়াতের সোমবারে হরতাল আদালত অবমাননার দায়ে দণ্ডপ্রাপ্ত ৩ নেতাকে দণ্ড দেয়ার প্রতিবাদে৷ তারা হলেন জামায়াতে সেক্রেটারি জেনারেল রফিকুল ইসলাম খান, কর্মপরিষদ সদস্য হামিদুর রহমান আযাদ এমপি এবং সেলিম উদ্দিন৷

এই হরতালে তেমন সাড়া মেলেনি৷ ঢাকার জনজীবন প্রায় স্বাভাবিক ছিল৷ জামায়াতের হরতালের সমর্থনে ঢাকায় জামায়াত শিবিরের নেতা-কর্মীদের মিছিল বা পিকেটিং করতেও দেখা যায়নি৷ পুরনো ঢাকায় কিছুটা পিকেটিং-এর চেষ্টা করলে পুলিশ ৫ শিবির কর্মীকে গ্রেফতার করে৷

এদিকে শাহবাগে জাগরণ মঞ্চের জামায়াতের হরতাল বিরোধী মিছিলের পর সেখানে ২টি ককটেল বিস্ফোরিত হয়৷ এই বিস্ফোরণের জন্য জামায়াত-শিবিরকে দায়ী করা হয়েছে৷

Bangladesch Streik in Dhaka

ঢাকার জনজীবন প্রায় স্বাভাবিক ছিল (ফাইল ছবি)

ঢাকার বাইরে সিরাজগঞ্জে হরতাল সমর্থকরা পুলিশের গাড়িতে হামলা চালায়৷ তাদের ককটেল হামলায় ২ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন৷ তারা সেখানে ২০টি গাড়ি ভাঙচুর করেছে৷

এদিকে জামায়াতের সোমবারের হরতালে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি কোনো সমর্থন দেয়নি৷ বিএনপি'র চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘জামায়াত হরতাল ডেকেছে তাদের নিজস্ব বিষয় নিয়ে৷ ১৮ দলীয় জোট যে দাবিতে আন্দোলন করছে, তার সঙ্গে এই দাবির কোন সম্পর্ক নেই৷ জামায়াত হরতাল ডাকার আগে বিএনপির সঙ্গে আলোচনা করেনি, চায়নি জোটের সমর্থন৷ ফলে সমর্থন দেয়ার প্রশ্ন আসেনা৷ আর জোটভুক্ত যে কোনো দল চাইলে তাদের নিজ দলীয় দাবিদাওয়া নিয়ে আলাদা আন্দোলন করতে পারে, কর্মসূচি দিতে পারে, এতে কোন বাধা নেই৷''

জামায়াতের এই হরতাল কেন ঢিলেঢালা – তা জানতে জামায়াতের কোন নেতাকেই পাওয়া যায়নি৷ তবে জানা গেছে, জামায়াতের শীর্ষ নেতারা এখন কারাগারে৷ মধ্যম সারির নেতা, যারা এখনো কারাগারে যাননি, তারা আছেন আত্মগোপনে৷ সারা দেশে জামায়াত শিবিরের কর্মীদের বড় একটি অংশও এখন কারাগারে আছে৷ ফলে হুংকার বড় হলেও হরতাল সফল করার মত শক্তি এখন আর তাদের নেই৷ তবে জামায়াতে ইসলামীর ওয়েবসাইটে হরতাল সফলের দাবি করা হয়েছে৷ সেখানে হরতাল এবং হরতালের সমর্থনে তাদের কর্মতত্‍পরতার খবর আছে৷ তারা এখন হরতালসহ নানা কর্মসূচিও ঘোষণা করে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে৷

এদিকে আইন প্রতিমন্ত্রী কামরুল ইসলাম জানিয়েছেন, জামায়াতের এমপি হামিদুর রহমান আযাদের ৩ মাসের কারাদণ্ড হওয়ায় তিনি সংসদ সদস্যপদ হারাতে পারেন৷ হামিদুর রহমান আযাদ এখন পলাতক আছেন৷

(প্রতিবেদনে ব্যবহৃত ছবিগুলো ফাইল থেকে নেয়া)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়