1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

জাপান কি আরেকটি চেরনোবিল?

জাপানে বিভিন্ন খাবারে এবং পানিতে তেজস্ক্রিয়তার উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে৷ সাধারণ মানুষ আতঙ্কিত, আতঙ্কিত আশেপাশের দেশের মানুষও৷

default

জাপানে খাবার ও পানিতে তেজস্ক্রিয়তা

জাপান থেকে খাবার আমদানি বন্ধ রাখা হয়েছে৷ সুস্থ এবং স্বাভাবিক জীবন থেকে জাপান এখন অনেক দূরে৷ এভাবে আর কতদিন চলবে? প্রতিটি মূহূর্তেই মানুষ আতঙ্কিত অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে৷ বাধ্য হয়েই অনেকে সেই খাবার খাচ্ছে এবং পানি পান করেছে৷ তাই সবাই চিন্তিত এই ভেবে যে, ‘‘আমার ভেতর কি তেজস্ক্রিয়তা ঢুকে পড়েছে?'' একজন মহিলা জানলেন,‘‘আমার ভেতর তেজস্ক্রিয়তা ঢুকে পড়েছে কিনা তা নিয়ে আমি চিন্তিত৷ বাচ্চাদের মধ্যে ঢুকে পড়েছে কিনা তাও জানিনা৷ আমরা একই খাবার খাচ্ছি, একই পানি পান করছি৷''

কেইডো ইয়ামাডা একজন চিকিৎসক৷ বেশ চিন্তিতভাবে তিনি বললেন,‘‘আমি যে বিষয়টি নিয়ে সবচেয়ে চিন্তিত, তা হল যে বা যাদের দেহে তেজস্ক্রিয়তা পাওয়া যাবে তারা ভীষণভাবে বৈষম্যের শিকার হবে৷''

কতজন আক্রান্ত কেউই জানে না

এবং শেষ পর্যন্ত কতজন মানুষের মধ্যে এই তেজস্ক্রিয়তার উপস্থিতি পাওয়া যাবে তা সঠিকভাবে এখনো কেউ জানে না৷ সবাই আতঙ্কিত অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে৷ একজন ভদ্রলোক একটি কারখানায় কাজ করতেন৷ সুনামি ভাসিয়ে নিয়ে গেছে সব কিছু৷ তিনি প্রতিদিন বাসা থেকে বের হন নাক-মুখ ঢেকে৷ প্রাণপণে তিনি চেষ্টা করেন খুব গভীরভাবে শ্বাস-প্রশ্বাস না নিতে৷ তিনি জানান,‘‘আমি কোন অবস্থাতেই স্বস্তিবোধ করছি না৷ কোন দিক থেকে কখন তেজস্ক্রিয়তার সংস্পর্শে চলে আসি, তা নিয়ে ভীষণ ভীত আমি৷''

তিনি একা নন, আরো অনেকেই এভাবে নাক-মুখ ঢেকে বাসা থেকে বের হচ্ছেন৷ তবে অনেকের মনে আতঙ্কের বোঝা কিছুটা হালকা হয়েছে৷

জাপানে খাবারের মধ্যে তেজস্ক্রিয়তা পাওয়া গেছে৷ পানির মধ্যেও তা ছড়িয়ে পড়েছে৷ ফুকুসিমার মাত্র ৩০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত একটি গ্রাম৷ সেখানে কোনো কল থেকে পানি যেন কোন অবস্থাতেই পান না করা হয় – সে বিষয়ে সরকারের নির্দেশ রয়েছে৷ সেই গ্রামে পানি সরবরাহ করা হচ্ছে৷

শাক-শব্জি খাওয়া বন্ধ

পালংশাকসহ আরো বেশ কিছু সব্জি হুমকির সম্মুখীন৷ তবে দুধ এবং দুগ্ধজাত পণ্যের মধ্যে তেজস্ক্রিয়তা পাওয়া গেছে, তা বেশ স্পষ্ট করেই জানিয়ে দেয়া হয়েছে৷ আর পানিতে এই তেজস্ক্রিয়তা ছড়িয়ে পড়ার ফলে মাছ খাওয়াও আপাতত বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে৷ কীভাবে এসব তেজস্ক্রিয় সম্পন্ন পণ্যের কাছ থেকে দূরে থাকা যায় সেই চেষ্টাই সবাই করছে৷

Tschernobyl

চেরনোবিলে বিশ্বের সবচেয়ে ভয়াবহ পারমাণবিক দূর্ঘটনা

একজন মহিলা জানালেন,‘‘আমি বিশ্বাস করি, তেজস্ক্রিয়তা সংক্রামিত খাবার কখনোই বাজারে ছাড়া হবে না৷ সাবধানতা অবলম্বন করতে আমি নিজেই বাড়িতে সব্জি লাগিয়েছি৷''

আরেকজন জানালেন,‘‘আমি শাক-সব্জি কেনা একেবারে বন্ধ করে দিয়েছি৷''আরেকজনের ভাষ্য,‘‘আমি আজ বেশি চিন্তিত, কারণ বৃষ্টি হচ্ছে৷ আমি জানি না এটা শুভ লক্ষণ কিনা৷ বৃষ্টিতে ভিজলে এই মুহূর্তে আরো সমস্যায় পড়বো কিনা৷''

তবে একটি কথা ঠিক৷ তেজস্ক্রিয়তার হাত থেকে সবাই বাঁচতে চাইছে, পরিবারকে বাঁচাতে চাইছে৷ শিজুকো কোহাতার বয়স ৬০ বছর৷ তিনি সুনামিতে সব কিছুই হারিয়েছেন৷ তাঁর বাড়ি ভাসিয়ে নিয়ে গেছে উত্তাল সমুদ্র৷ তিনি এখন থাকছেন একটি শরণার্থী শিবিরে৷ এই বৃদ্ধ বয়সে তিনি আতঙ্কিত তেজস্ক্রিয়তায় সংক্রামিত খাবারের জন্য৷ তিনি নিজে একসময় শাক-সবজির চাষ করতেন৷ তিনি জানান,‘‘আমি নিজেই অনেক ধরণের শাক-সবজি লাগিয়েছি৷ এখন আমি নিজেই ভয় পাচ্ছি৷ ভবিষ্যতে এই পেশা কি আমাকে টিকিয়ে রাখতে পারবে?''

তেজস্ক্রিয়তার ভয়াবহ ফলাফল

তেজস্ক্রিয়তার ফলে কী কী হতে পারে? যে কোন ধরণের ক্যান্সার হওয়া অস্বাভাবিক কিছু নয়৷ এর রেশ থাকতে পারে দশকের পর দশক৷ প্রজন্মের পর প্রজন্মও ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে৷ বিকলাঙ্গ শিশু জন্ম নিতে পারে৷ এবং এটা শুধু যে মানুষেরই ক্ষতি করতে সক্ষম তা নয়৷ পশু-পাখিও রক্ষা পায় না এর হাত থেকে৷ ক্যান্সারে আক্রান্ত হতে পারে গৃহপালিত পশু এমনকি বন্য পশুও৷ পানিতে ছড়িয়ে পড়লে রক্ষা পাবে না মৎসকূল৷ গাছ-গাছালি পুরোপুরি নষ্ট হয়ে যাবে৷ ফল-ফুল আর ফলবে না৷

১৯৮৬ সালের চেরনোবিলের তেজস্ক্রিয়তার পর অসংখ্য বন নষ্ট হয়ে গিয়েছে ইউক্রেনে৷ মাটির উর্বরতা নষ্ট হয়ে গেছে, আজও তা ঠিক হয়নি৷ প্রায় ১০ লক্ষ মানুষ মারা গেছে বলে জানান বিজ্ঞানীরা এবং এদের প্রায় ৯০ শতাংশই আক্রান্ত হয়েছিল বিভিন্ন ধরণের ক্যান্সারে৷

প্রতিবেদন: মারিনা জোয়ারদার

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন