1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

জাতীয় সংগীতের বিশ্ব রেকর্ড

লাখো কণ্ঠে গাওয়া জাতীয় সংগীতের রেকর্ডকে স্বীকৃতি দিয়েছে গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস কর্তৃপক্ষ৷ বুধবার তাদের ওয়েবসাইটে এই স্বীকৃতির কথা জানানো হয়৷ গত ২৬শে মার্চ জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে জাতীয় সংগীতটি গাওয়া হয়েছিল৷

মহান বিজয় দিবস ১৬ই ডিসেম্বর৷ আর ২৬শে মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস৷ বিজয় দিবসে বিশ্বের সর্ববৃহত্‍ মানব পতাকা – জাতীয় পতাকা তৈরি করে একবার, আর স্বাধীনতা দিবসে লাখো কণ্ঠে ‘আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালোবাসি...' গানটি গেয়ে আরেকবার বিশ্ব রেকর্ড গড়লো বাংলাদেশ৷

২৬শে মার্চ সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে এবং সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের সহায়তায় লাখো কণ্ঠে সোনার বাংলা গাওয়ার ১৩ দিন পর এই স্বীকৃতি পাওয়া গেল৷ ঐ দিন জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে ঢোকার সময় স্বয়ংক্রিয় যান্ত্রিক গণনা অনুসারে লোক হয়েছিল ২ লাখ ৫৪ হাজার ৬৮১ জন৷ এতেই গত বছরের ৬ই মে ভারতে সাহারা গ্রুপের আয়োজনে এক লাখ ২২ হাজার লোকের একসঙ্গে জাতীয় সংগীত গাওয়ার রেকর্ডটি ভেঙে নতুন বিশ্বরেকর্ড হয়৷

কিন্তু গণনার বাইরেও আরো অনেক মানুষ এই জাতীয় সংগীত গাওয়ার অনুষ্ঠানে অংশ নেন সেদিন৷ প্যারেড গ্রাউন্ড এবং আশপাশ এলাকায় ৩ লাখ লোক সমবেত হয়েছিলেন বলে জানান আয়োজকরা৷ এছাড়া প্যারেড গ্রাউন্ডে গিয়ে দাঁড়িয়ে জাতীয় সংগীতের সঙ্গে সুর মেলান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সরকারের মন্ত্রী ও সংসদ সদস্যসহ সশস্ত্র বাহিনীর ঊর্ধতন কর্মকর্তারাও৷

এই লাখো কণ্ঠে জাতীয় সংগীতের জন্য চালানো হয় ব্যাপক প্রচারণা৷ শিরোনাম ছিল ‘লাখো কণ্ঠে সোনার বাংলা'৷ এর জন্য ইসলামী ব্যাংক থেকে অর্থ নেয়ায় বিতর্কও দেখা দেয়৷ পরে অবশ্য বিতর্কের মুখে ইসলামী ব্যাংকের অর্থ ফেরত দেয়া হয়৷ এই অনুষ্ঠানে অর্থ খরচের স্বচ্ছতা নিয়েও চলছে বিতর্ক৷ অভিযোগ আছে আয়োজক সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী তাঁর নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমেই অধিকাংশ কাজ করে ব্যবসা নিয়েছেন৷ এ নিয়ে সংবাদমাধ্যমে লেখালেখিও হচ্ছে৷

৪৪তম স্বাধীনতা দিবসে লাখো কণ্ঠে সোনার বাংলা শুধু রেকর্ডের জন্য নয়, স্বাধীনতার চেতনাকে উজ্জ্বীবীত এবং জাতিকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ঐক্যবদ্ধ করাও ছিল উদ্দেশ্য৷ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও তাঁর বক্তব্যে বলেছেন, ‘এই আয়োজনের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য জাতীয় ঐক্য৷'

এদিকে এই অনুষ্ঠানে যাঁরা যোগ দিয়েছেন তাঁদের মধ্যে একজন ফেরদৌসি প্রিয়ভাষিনী ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘এটা বাংলাদেশের আরেকটি অর্জন৷ লাখো কণ্ঠে জাতীয় সংগীত গেয়ে বাংলাদেশ যে রেকর্ড গড়লো, তা বাংলাদেশকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ঐক্যবদ্ধ করবে৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়